হুমায়ূন আহমেদের নতুন বই চাই!

হুমায়ূন আহমেদের নতুন বই চাই!

313
0
SHARE
Boimela-pro

কাউকে ভালোবাসলে বেশি কাছে যাবার চেষ্টা করতে নেই। তাতে করে কাছে যাবার আকুতি দেখে সে হয়তো দূরে চলে যেতে পারে। কেননা মানুষ সোজা পথের চেয়ে বাঁকা পথে হাঁটতে আনন্দ পায় বেশি। কিন্তু সব হারিয়ে সোজা পথেই আসতে হয়। সেই সময়ে নতুন করে ভালোবাসার ইচ্ছেটা আর থাকে না’।
অতি সহজ সরল বাক্যে জীবনের রূঢ় বাস্তবতাকে চোখে আঙুল দিয়ে দেখাতে পেরেছিলেন তিনি। একাধারে যেমন তুলেছেন জীবনের সরল সহজ সত্য ছবি, পাশাপাশি রম্য, রসবোধ ও যাপিত জীবনের দৈনন্দিন গল্পকে লিপিবদ্ধ করে গড়েছেন এক একটি নক্ষত্র। সেজন্যই তিনি পিয় হুমায়ূন; হুমায়ূন আহমেদ, পাঠকের প্রিয় হুমায়ূন স্যার।
বইমেলার গেট দিয়ে ঢুকতে ঢুকতে এক কিশোর তার মামাকে জানাচ্ছিল, হুমায়ূন আহমেদের নতুন বই চাই। মামা বললেন, তিনি তো বেঁচে নেই- ফলে নতুন বই হবে কী করে। যা আছে সবই তো পুরাতন।
হুমায়ূন আহমেদের বই শেষ পর্যন্ত মেলায় সেই কিশোর প্রিয় লেখকের বই কিনেছিল কিনা তা আর জানা হয়নি, তবে বইক্রেতাদের বড় অংশের হাতেই মিলেছে হিমু-মিসির আলি কারিগরের বাঁধানো সাহিত্য।
হুমায়ূনহীন পাঁচ বছর হলো মেলা। তাতে কী, তিনি কি কখনও পুরাতন হতে পারেন!
রসবোধেও হুমায়ূনের জুড়ি মেলা ভার! জনম জনম উপন্যাসে তিনি বলছেন, ‘আল্লাহতালা মেয়েগুলোকে এতো সুন্দর করে পাঠিয়েছেন কেন কে জানে? মেয়েদের সবই সুন্দর। এরা রাগ করলেও ভালো লাগে, অপমান করলেও ভালো লাগে। ভালোবাসার কথা বললে কেমন লাগবে কে জানে’?
আধুনিক এই ব্যক্তিত্ব এক পরিপূর্ণ সাহিত্য, কথাশিল্পে বীরের প্রতিচ্ছবি। তিনি তো সবসময়ই পাঠকের মনে বীরদর্পে হাঁটবেনই। ‘তবুও ভাটা পড়লো কি মেলায় এবছর হুমায়ূন সাহিত্য বিক্রিতে’ এমন প্রশ্নের জবাবে উল্টো বীরত্বগাথা শুনিয়ে দিলেন কাকলী প্রকাশনীর কর্ণধার এ কে নাছির আহমেদ সেলিম। তিনি বলেন, এবারও হুমায়ূন আহমেদের বই পুরো মেলায় সব থেকে বেশি বিক্রি হচ্ছে। তিনিই শীর্ষে। তার যত বই আজ পর্যন্ত প্রকাশিত, প্রত্যেকটাই আছে বিক্রির শীর্ষে। এগুলোর সমষ্টি করলে তিনিই তো এগিয়ে। এছাড়া কয়েকটি প্রকাশনা সংস্থা নতুন করে সংকলন বের করেছে; সেগুলোর চাহিদাও প্রচুর। অন্তত ৩০-৪০টি হুমায়ূন সংকলন ২০১৭ বইমেলায় এসেছে।
সাহিত্যর মূল্য হিসেবে হুমায়ূনের বই-ই সেরা উল্লেখ করে প্রবীণ এই প্রকাশক বলেন, তাকে নিয়ে তিনটি নতুন কাজ কাকলী করার চেষ্টা করেছে। এরমধ্যে, কথামালা, শ্রেষ্ঠ মিসির আলি এবং হুমায়ূন সংগীত: নদীর নামটি ময়ূরাক্ষী; লেখা- মেহের আফরোজ শাওন।
হুমায়ূন আহমেদের উপন্যাস কাকলী থেকে ‘কথামালা’র বিক্রি তুঙ্গে; ইতোমধ্যে বাজারে এলো বেশ কয়েকটি সংস্করণ। এটি মূলত লেখকের বিভিন্ন উপন্যাস থেকে সংকলিত বাণী বা উল্লেখযোগ্য চরণ সমন্বয়। আর গানের বইটিতে হুমায়ূনের লেখা গান ও এর পেছনের কথা তুলে ধরেছেন তার স্ত্রী শাওন।
অন্বেষা থেকে রূপা, তন্দ্রাবিলাস, অমানুষ, নির্বাসন, কয়েকটি নীলপদ্ম ভালো বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া তারা নতুন দুটি বই এনেছেন (সংকলন), যার মধ্যে আছে, চন্দ্রসখা ও হলুদ হিমু। প্রকাশনীর স্বত্তবাধিকারী সাহাদাত হোসাইন বলেন, হুমায়ূনের আবেদন চিরন্তন। তার বই বিক্রির শেষ নেই। দিন দিন তার বই কেনার পাঠকের সৃষ্টি হচ্ছে।
অন্যপ্রকাশও নতুন সংকলিত বই বের করেছে। মুক্তিযুদ্ধের বাছাই গল্প এবং মিসির আলি দশ যার অন্তর্ভুক্ত। এছাড়াও তাদের ইতোপূর্বে প্রকাশিত বইগুলোর মধ্যে, জোছনা ও জননীর গল্প, শেষ উপন্যাস- দেয়াল, মাতাল হাওয়ার কাটতি দারুণ।
হুমায়ূন সাহিত্যে আরেক বড় প্রকাশনা অনন্যা থেকে মিসির আলির গল্পমালা এবং নির্বাচিত ভূত- নামে নতুন দুই বই বের হয়েছে (সংকলন); একেকটি বই দুই থেকে তিনশ কপি বিক্রি সম্পন্ন।
তাম্রলিপি নিয়ে এলো জনপিয় এই লেখকের চার সংকলন। সেরা পাঁচের মিশ্রণে তারা করেছে, সেরা পাঁচ মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস, প্রেমের উপন্যাস, ভূত ও কিশোর উপন্যাস। যার একটির থেকে আরেকটির বিক্রি পাল্লা দিন দিন হচ্ছে ভারি।
এদিকে আরও কয়েকটি প্রকাশনা হুমায়ূনের লেখাগুলো নিয়ে সংকলন করেছে।
কৃতজ্ঞতা: বাংলানিউজ২৪.কম