Home আরোও বিভাগ সিনেমা সিনেমা

সিনেমা

SHARE
Mousumi

প্রতিবাদী চরিত্রে আসছেন মৌসুমী

ছবির নাম দুলাভাই জিন্দাবাদ। নায়িকা চরিত্রে অভিনয় করবেন বিশিষ্ট চিত্রনায়িকা মৌসুমী। তার স্বামীর চরিত্রে অভিনয় করবেন খল চরিত্রাভিনেতা ডিপজল। মনতাজুর রহমান আকবর পরিচালিত নতুন এই ছবির কাহিনি গড়ে উঠেছে দেশের সামাজিক প্রেক্ষাপটকে ঘিরে। ছবিতে মৌসুমীকে এক প্রতিবাদী নারীর চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে। প্রতিবন্ধী এক ভাই ও একমাত্র বোনকে নিয়ে জীবনযুদ্ধে লড়াই করবেন মৌসুমী। বোনের চরিত্রে অভিনয় করবেন আরেক চিত্রনায়িকা পরীমনি। ছবিটি কাহিনি মূলত মৌসুমীর চরিত্রকে ঘিরে আবর্তিত হবে।

অঞ্জনা এবার পরিচালকের ভূমিকায়

Anjonaএবার পরিচালকের খাতায় নাম লিখতে যাচ্ছেন অঞ্জনা। যদিও চলচ্চিত্রে তেমন ব্যস্ত নন। ব্যবসা ও ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট নিয়েই তার যত ব্যস্ততা। তবে আবার চলচ্চিত্রে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছেন। প্রাণ সজনী, দেশ-বিদেশে, লাভ ইন সিঙ্গাপুর ও নেপালী মেয়ে নামে কয়েকটি ছবি তার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান থেকে নির্মাণ করা হয়। এবার প্রযোজক থেকে পরিচালক হতে চান। ফুলেশ্বরী নামে একটি ছবি বানানোর প্রস্তুতি শুরু করেছেন বলে জানা গেছে। মার্চ-এপ্রিলে ছবির কাজ শুরু করবেন বলে একটি সূত্র জানিয়েছে।

নাম ভূমিকায় মাহী!

mahiচিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহির সৌভাগ্যই বলতে হবে। একের পর এক সিনেমায় নাম ভূমিকায় অভিনয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হচ্ছেন। এর আগে অনেক সাধের ময়না, অগ্নি, অগ্নি-২, বিগ ব্রাদার ও রোমিও ভার্সেস জুলিয়েট এ নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন। এবার প্রেমের বাঁধন, গোলাপতলীর কাজল, জান্নাত, দুরন্ত মেঘলা এবং তুমি আমার সুন্দরী ছবিতে নাম ভূমিকায় অভিনয় করবেন। প্রেমের বাঁধন-এ বাঁধন চরিত্রে, গোলাপতলীর কাজল-এ কাজল চরিত্রে, জান্নাত-এ জান্নাত চরিত্রে, দুরন্ত মেঘলায় মেঘলার চরিত্রে এবং তুমি আমার সুন্দরীতে সুন্দরী নামের চরিত্রে মাহিকে অভিনয় করতে দেখা যাবে। বাংলা সিনেমায় সাধারণত নায়ককে গুরুত্ব দিয়ে কাহিনি লেখা হয়। নাম ভূমিকার ক্ষেত্রে পুরুষ অভিনেতারই প্রাধান্য থাকে। তবে মাহির ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ঘটছে। এ নিয়ে মাহি অবশ্য দোটানায় আছে। নাম ভূমিকায় এত ছবি। কোনো একটি ফ্লপ করলেই দায়টা তার ওপর হয়তো বর্তাবে। দেখা যাক ভবিষ্যৎ কী বলে!

শাকিবের শিকারী পুরস্কৃত

Shakib-Khanকলকাতায় কালাকার অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে শাকিব খানের শিকারী। কালাকার-এর ২৪তম আসরে শিকারী সেরা চলচ্চিত্রের সম্মান পেয়েছে। ছবির নায়িকা শ্রাবন্তী সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার পেয়েছেন। শিকারী সেরা চলচ্চিত্রের পুরস্কার পাওয়ায় শাকিব খান খুউব খুশি হয়েছেন। এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, খবরটা শুনে ভালো লাগছে। শিকারী আমার যৌথ প্রযোজনার প্রথম ছবি। মুক্তির পর পরই ভারত বাংলাদেশে দারুণ আলোচনায় আসে। শিকারী কালাকার পুরস্কার পাওয়ায় আমি খুব খুশি।

অনুদানের দুই ছবিতে সুবর্ণা মুস্তাফা!

সুবর্ণা মুস্তাফা। এক নামেই যার ব্যাপক পরিচিতি। অতি সম্প্রতি দুটি সিনেমায় অভিনয় করলেন। দুটিই সরকারি অনুদানের সিনেমা। একটির পরিচালক বদরুল আলম সৌদ। তার ছবির নাম ‘গহীন বালুচর’। অন্যটির নাম ‘আখি ও তার বন্ধুরা’। পরিচালনা করছেন বিশিষ্ট নির্মাতা মোরশেদুল ইসলাম। কাহিনি লিখেছেন বিশিষ্ট লেখক, শিক্ষাবিদ মুহম্মদ জাফর ইকবাল।

পাশাপাশি দুটি অনুদানের ছবিতে অভিনয় করে আবার চলচ্চিত্রাঙ্গনে সরব হলেন সুবর্ণা মুস্তাফা। দুটি ছবির কাহিনি একে বারেই বিপরীত ধর্মী। একটি বড়দের ছবি। অন্যটি শিশুতোষ ছবি।

সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো সুবর্ণা মুস্তাফা অনেক দিনপর বরিশালের দপদপিয়ায় দাদার বাড়িতে গিয়েছিলেন। সেখানেই প্রায় এক মাস গহীন বালুচর-এর শুটিং হয়েছে। চর দখলকে কেন্দ্রে করে গহীন বালুচরে এক কাহিনি গড়ে উঠেছে। আসমা নামের একনারী চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। চর দখলকে কেন্দ্র করে দুইপক্ষের মারামারিতে কোমরে আঘাত পান এই নারী। হাঁটাচলা করতে পারেন না। সর্বক্ষণ চেয়ারে বসে থাকেন। তাকে কোথাও নিতে হলে চেয়ারে বাঁশ বেঁধে ঝুলিয়ে নিতে হয়।

Subarna-Mustafaগহীন বালুচর-এর শুটিং চলাকালে ফোনে এই প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা বলেন সুবর্ণা মুস্তাফা।

আনন্দ আলো: কেমন আছেন?

সুবর্ণা: ভালো। গহীন বালুচর-এর শুটিং করতেছি।

আনন্দ আলো: শুটিং কেমন হচ্ছে?

সুবর্ণা: অনেক ভালো। তোমাদের কাছে ছবি পাঠাচ্ছি। বলেই ফেসবুকে ছবির অনেকগুলো স্থির চিত্র পাঠান সুবর্ণা মুস্তাফা।

আবার তার সঙ্গে ফোনে কথা হয়। তিনিই প্রশ্ন করেনণ্ড ছবির স্টিল দেখে কেমন মনে হচ্ছে?

প্রতিবেদক: ভালো। মনে হচ্ছে অনেক কষ্ট করে শুটিং করছেন?

সুবর্ণা: হ্যাঁ বেশ কষ্ট হচ্ছে। কিন্তু অভিনয় করে বেশ আনন্দ পাচ্ছি। পরিচালক হিসেবে সৌদ কোনো কিছুতেই ছাড় দেয় না। ধরে ধরে গহীন বালুচর-এর শুটিং করছে।

আনন্দ আলো: ছবির অন্যান্য অভিনেতাণ্ডঅভিনেত্রী কে কেমন করছেন?

সুবর্ণা: সবাই খুব ভালো অভিনয় করেছেন। আশাকরি ছবিটি অনেক ভালো হবে।

আনন্দ আলো: চর দখলকে কেন্দ্র করে ছবির কাহিনি গড়ে উঠেছে। এর বাইরে কাহিনিতে আর কি আছে?

সুবর্ণা: মূলত: এটি একটি প্রেমের গল্প। ছবির শেষে প্রেমিক-প্রেমিকার মিলন হয় না। অনেকটা রোমিও জুলিয়েটের মতোই করুণ দশা…

অন্য ছবিতে সুবর্ণার চরিত্র একজন প্রিন্সিপালের। আগের প্রিন্সিপাল স্কুলের বাচ্চাদেরকে কড়া শাসনে রাখতেন। বাচ্চাদেরকে বেত দিয়ে মারতেন। নতুন প্রিন্সিপাল সুবর্ণা স্কুলের সব নিয়ম পাল্টে দেন। একটি প্রতিবন্ধী শিশুকে ঘিরে ছবির গল্প আবর্তিত হয়েছে।