সিটিসেল গানবাজনা

সিটিসেল গানবাজনা

1546
SHARE

গান শোনার পাশাপাশি দেখারও বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে

চ্যানেল আই সেরাকণ্ঠ চ্যাম্পিয়ন ঝিলিক। বর্তমানে ব্য¯ত্ম রয়েছেন মিউজিক ভিডিও নিয়ে। পাশাপাশি প্লেব্যাকের কাজটাও করছেন নিয়মিত। এছাড়া দেশ-বিদেশে স্টেজ প্রোগ্রামে ব্য¯ত্ম রয়েছেন। সাম্প্রতিক সময়ে তার ব্য¯ত্মতার চুম্বক অংশ তুলে ধরা হলো আনন্দ আলোর পাঠকদের জন্য।

আনন্দ আলো: নতুন কোনো একক অ্যালবামের কাজ করছেন কী?

ঝিলিক: আমার সর্বশেষ একক অ্যালবাম ‘প্রথম প্রেম’ প্রকাশ পেয়েছে এক বছরও হয়নি। এ অ্যালবাম থেকে একটি গানের মিউজিক ভিডিও করেছি। ইমরানের সঙ্গে করা এ গানটির শিরোনাম ‘বেসামাল’। গানটির বেশ সাড়া পাচ্ছি। এখন আসলে ভিডিও ছাড়া গান বের হচ্ছে না। গান শোনার পাশাপাশি দেখার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমিও এ অ্যালবাম থেকে আরো একটি গানের ভিডিওর পরিকল্পনা করেছি। খুব শিগগিরই কাজটা শুরু করব। আর তারপরই নতুন একক নিয়ে ভাববো।

আনন্দ আলো: প্লেব্যাকের কী খবর?

ঝিলিক: আমি চ্যানেল আই সেরাকণ্ঠ প্রতিযোগিতার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর থেকে বেশ কিছু ছবিতে প্লেব্যাক করেছি। এক্ষেত্রে দেশের গুণী সব সুরকারের সুরে গান করার সুযোগ মিলেছে। তাদের কাছ থেকে অনেক কিছু শিখতে পেরেছি। আসলে আমি সিনিয়রদের কাছ থেকে সব সময় শেখার চেষ্টা করি। প্লেব্যাক এখনো করছি।

আনন্দ আলো: অডিও ইন্ডাস্ট্রির একটা দুঃসময় চলছে। এ অবস্থা মোকাবিলা করতে সমস্যা হচ্ছে নিশ্চয়ই?

ঝিলিক: এই প্রজন্মের শিল্পী হিসেবে এটা আমার জন্য দুর্ভাগ্য। কারণ অডিও ইন্ডাস্ট্রির সুসময়টা আমি পাইনি। তবে আমি মনে করি শেষ পর্যšত্ম মেধাবীরাই দীর্ঘ সময় পর্যšত্ম টিকে থাকবে। আমি রাতারাতি সব কিছু পেতে চাই না। আ¯েত্ম ধীরে এগুতে চাই। আজীবন গান করে যেতে চাই। বাকীটা শ্রোতারাই বিচার করবে। তবে আমি মনে করি অডিও ইন্ডাস্ট্রির উন্নয়নে কোম্পানীগুলো বড় ভ‚মিকা রাখতে পারে। সে জন্য চাই উদার মানসিকতা।

সুবীর নন্দীর সুরঞ্জনা

SUBER-NONDE-(3)সিডি চয়েসের ব্যানারে প্রকাশিত হয়েছে সুবীর নন্দীর নতুন একক অ্যালবাম ‘সুরঞ্জনা’। এতে গান রয়েছে আটটি। সব গানের কথা লিখেছেন মোয়াজ্জেম হোসেন ফিরোজ। সুর ও সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন গোলাম সারোয়ার। গানগুলো রেকর্ডিং হয়েছে কলকাতায়। ‘সুরঞ্জনা’ নামের একটি কাল্পনিক চরিত্র নিয়ে অ্যালবামের টাইটেল গানটি সাজানো হয়েছে। অন্য গানগুলোর শিরোনাম মেঘের ভেলা, আমার বাংলাদেশ, ও মেঘ, চৈতি চাঁদের জোছনায়, শরৎ পেরিয়ে, নীরবতা শুধু চেয়েছি, ও তুমি যদি বলে দিতে। নতুন অ্যালবামটি প্রসঙ্গে সুবীর নন্দী বলেন, অনেকদিন পর নতুন অ্যালবাম বের করলাম। শ্রোতাদের জন্য এটা আমার উপহার। আমি মেলোডি গান গাইতে পছন্দ করি। অ্যালবামটি সেভাবে সাজানো হয়েছে।

আবারও পেব্যাকে আইয়ুব বাচ্চু

AIUB-BACCHU,আবারও ছবিতে প্লেব্যাক করতে যাচ্ছেন জনপ্রিয় ব্যান্ড তারকা আইয়ুব বাচ্চু। ছবির নাম ‘পোস্ট মাস্টার৭১’। পরিচালক আবির খান বলেন, এরই মধ্যে আইয়ুব বাচ্চুর সঙ্গে এব্যাপারে চূড়াšত্ম কথা হয়েছে। তিনি জানান, মুক্তিযুদ্ধের কাহিনী নিয়ে ছবিতে একটি গানই থাকবে। পুরো ছবির ব্যাকগ্রাউন্ডে বাজবে গানটি। গানের কথা লিখেছেন রাশেদ শামীম। আইয়ুব বাচ্চু সর্বশেষ কণ্ঠ দিয়েছেন ‘চোরাবালি’তে। এরপর ‘টেলিভিশন’ ছবির দুটি গানে কণ্ঠ দিয়েছেন। ‘পোস্ট মাস্টার ৭১’ এর কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করবেন ফেরদৌস। নায়িকা এখনো চূড়াšত্ম হয়নি।

নভেম্বরে বেঙ্গল উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত উৎসব

চতুর্থবারের মতো হতে যাচ্ছে ‘বেঙ্গল উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত উৎসব বাংলাদেশ- ২০১৫। আগামী ২৭ নভেম্বর থেকে শুরু হবে এ উৎসব। পাঁচ দিন ব্যাপী এ উৎসব অনুষ্ঠিত হবে বেশ বড় আয়োজনে। এ উপলক্ষে সম্প্রতি রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলের সুরমা হলে আয়োজন করা হয় এক সংবাদ সম্মেলনের। লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের পক্ষে সদস্য লুভা নাহিদ চৌধুরী। আরো বক্তব্য রাখেন ব্র্যাক ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ মাহবুবুর রহমান, রবির সিও মাহতাব উদ্দিন আহমেদ, স্কয়ার টয়লেট্রিজের বাজারজাতকরণ বিভাগের প্রধান মালিক মোহাম্মদ সাঈদ ও মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী সৈয়দ ফাহিম মুনয়েম।  এবারের উৎসবটি উৎসর্গ করা হয়েছে বাংলাদেশের অন্যতম চিত্রকর ও সুহৃদ প্রয়াত শিল্পী কাইয়ুম চৌধুরীকে। এবারের বেঙ্গল উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত উৎসব বাংলাদেশ- ২০১৫ এর নিবেদক স্কয়ার গ্রæপ। আয়োজনে সহযোগিতা করছে ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড। টেলিকম সহযোগী হিসেবে থাকবে রবি আজিয়াটা লিমিটেড। সম্প্রচার সহযোগী হিসেবে রয়েছে মাছরাঙা টেলিভিশন।  উৎসবে যোগ দেবেন প্রবাদ প্রতিম তবলা শিল্পী ও¯ত্মাদ জাকির হোসেন, বাঁশিবাদক জয়াপ্রদা রামমুর্তি, শিল্পী পÐিত হরিপ্রসাদ চৌরাসিয়া, পÐিত শিবকুমার শর্মা, পÐিত অজয় চক্রবর্তী, পÐিত উল্লাম কশলকার, পÐিত সুরেশ তালওয়ালকার, পÐিত তেন্দ্রেনারায়ণ মজুমদার, ও¯ত্মাদ রশিদ খান, কর্নাটকি কণ্ঠ শিল্পী পদ্মবিভ‚ষণ ড. বালমুরালী কৃষ্ণ, গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ড নমিনি শিল্পী বনু মজুমদার, খেয়ালিয়া শুভামুগডাল, শ্রæতি সাদোলিকার, ধ্রæপদিয়া ওয়াসিক উদ্দিন ডাগর, এন রাজমের নেতৃত্বে কর্নাটকি ধারার তিন বেহালা শিল্পী, কুচিপুড়ি নৃত্যশিল্পী বিশিষ্ট দম্পতি রাজা ও রাধারেড্ডি, ইরাশাদ খান ও সুজাদ খান, ইমরাত খান সুর বাহার, গরস্থতীয় বীণা শিল্পী জয়ন্ত্রী কুমারেশ, এস্রাজ শিল্পী শুভায়ু সেন মুজমদার, বম্বে জয়শ্রী, অলারমেলে ভাল্লি, গনেশ রাজগোপালান, মৃদঙ্গশিল্পী কড়াউকুড়ি মানি, রাহুল শর্মা, কৌশিকি চক্রবর্তী, সামিহাম কললকার। বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য শিল্পীর ও অংশগ্রহণ থাকবে এ আয়োজনে। ২৭ নভেম্বর থেকে ১ ডিসেম্বর প্রতিদিন সন্ধ্যা ৭টা থেকে ভোর ৫টা পর্যšত্ম ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামে এ উৎসব উপভোগ করা যাবে বিনামূল্যে অনলাইনে নিবন্ধনের মাধ্যমে।