Home সাক্ষাৎকার সাদা ফুল আমার খুব প্রিয় : নার্গিস আক্তার

সাদা ফুল আমার খুব প্রিয় : নার্গিস আক্তার

SHARE
২০ নভেম্বর চলচ্চিত্র পরিচালক নার্গিস আক্তারের জন্মদিন। জন্মদিনে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আনন্দ আলোর কথা হয় তার সাথে।

আনন্দ আলো: জীবনের অনেকগুলো সময় পার করলেন। কোন সময়ের জন্মদিনকে উল্লেখযোগ্য বলে মনে হয়?

নার্গিস আক্তার: হ্যাঁ তাইতো জীবনের অনেকগুলো সময় পার করে ফেলেছি। ছোটবেলায় জন্মদিন পালন করেছি মাদারীপুরে। যখন কেউ জন্মদিনের কথা ভাবতেই পারতো না, তখনো আমার জন্মদিন পালিত হতো। আমার জন্য নতুন ডিজাইনের পোশাক আসতো। কেক আসতো। জন্মদিনে বাড়িতে অতিথিরা এলে আমি বারবার তাদের জিজ্ঞাসা করতাম আমার জন্য কী নিয়ে এসেছেন? এখন এসব মনে পরলে হাসি পায়। আমার মধ্যবেলার জন্মদিনগুলো পালন করেছি বন্ধুদের সাথে। তখন ঘর সংসার শুরু করেছি। সন্তান, নিজের কাজ সবমিলিয়ে প্রচন্ড ব্যস্ততা। এই ব্যস্ততার মাঝেও মনে করে কাছের মানুষদের নিয়ে জন্মদিনে একসাথে হয়েছি। আর এখন আমার জন্মদিনটা আর আমার নেই। এখন আমার জন্মদিনটা সবার হয়ে গেছে। সবাই মনে করে ফোন দেয়। উইশ করে। ভীষণ ভালো লাগার একটা বিষয় নিঃসন্দেহে। বিভিন্ন চ্যানেল থেকে আমাকে দাওয়াত দেয়। চ্যানেল আই আমার ছবিসহ কেক দিয়ে তারকাকথন করে। এসব আমার ভালোবাসার জায়গা। এই তিন রকমের সময়কে বিবেচনা করলে এখন মনে হয় আমার ছোটবেলায় কাটানো জন্মদিনটাই ছিল জীবনের উল্লেখযোগ্য জন্মদিন।

আনন্দ আলো: এবারের জন্মদিনের পরিকল্পনা কী?

নার্গিস আক্তার: তেমন কোন পরিকল্পনা নেই। হয়তো সন্ধ্যেবেলায় কাছের প্রিয় মানুষদের নিয়ে বাইরে আড্ডা দিতে যাব সাখে খাওয়া দাওয়া তো থাকবেই। আনন্দ আলো: কী উপহার সবচেয়ে প্রিয়? নার্গিস আক্তার: ফুল আমার সবচেয়ে প্রিয়। বিশেষ করে সাদা ফুল। সাদা ফুল আমাকে স্নিগ্ধ করে। প্রিয় মানুষের শুভেচ্ছা মুহূর্তে মন ভালো করে দেয়। আমার ছেলেকে অনেক কারসাজি করতে দেখি। রাত ১২টা বাজার আগে সে আমাকে নিয়ে ব্যস্ত হয়ে যায়। চোখে চোখে রাখে। কেক লুকানোর জায়গা পায় না। এখান থেকে সরাচ্ছে, আবার আরেক জায়গায় নিয়ে গিয়ে রাখছে। কত কী! আমি যেন দেখতে না পাই। একসময় ফ্রিজ খুলতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। আমি সবই বুঝি কিন্তু প্রকাশ করি না পাছে তার সারপ্রাইজ দেয়াটা নষ্ট হয়ে যায়। এই ভালোবাসাগুলো এসব ভীষণ ভালো লাগে। এসবই জীবনের অনন্য উপহার।