সততা ও নিষ্ঠাই আশিফুরের সাফল্যের মূলমন্ত্র

সততা ও নিষ্ঠাই আশিফুরের সাফল্যের মূলমন্ত্র

641
SHARE

স্বল্প খরচে অনবায়ণযোগ্য সম্পদের ব্যবহার, টেকসই উন্নয়ন, বিষাক্ত পদার্থের ব্যবহার কমানো ও প্রকৃতিকে গুরুত্ব দিয়ে স্থাপত্য শিল্পে কাজ করে চলেছেন স্থপতি মো: আশিফুর রহমান। আহসানউল্লাহ ইউনিভার্সিটিতে পড়াশোনা করেছেন। বর্তমানে তিনি নাভানা রিয়েল এস্টেট-এ ডিজাইন ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত আছেন। এ যাবৎ তিনি বেশ কিছু দৃষ্টিনন্দন স্থাপনার ডিজাইন করেছেন। স্কুল জীবনে ছবি আঁকাআঁকিতে পারদর্শী ছিলেন। বইপড়া, ফটোগ্রাফি ছিল তার পছন্দের বিষয়। ক্রিকেট ভালো খেলতেন। দ্বিতীয় বিভাগের ক্রিকেটদল ইয়ং মেরিনার্সের সাথে জড়িত ছিলেন। এবার শাহ সিমেন্ট সুইট হোমে তাঁকে নিয়ে প্রতিবেদন লিখেছেন মোহাম্মদ তারেক।

আর্কিটেক্ট মোহাম্মদ আশিফুর রহমান প্রকৃতিপ্রেমী একজন স্থপতি। ইট, কাঁঠ, বালু ও কংক্রিটের মাঝে খুঁজে ফেরেন প্রকৃতির সান্নিধ্য। আর তাই তার প্রতিটি স্থাপনায় থাকে সবুজের ছোঁয়া। প্রতিটি ডিজাইনের ক্ষেত্রে আলো, বাতাস, সবুজ প্রকৃতি বিষয়কে প্রাধান্য দিয়ে থাকেন তিনি। আর্কিটেক্ট আশিফুর রহমান দুই ভাইয়ের মধ্যে ছোট। তার গ্রামের বাড়ি কিশোরগঞ্জে। সেখানেই তাঁর বেড়ে ওঠা। আশিফুর রহমানের বাবার নাম রফিকুর রহমান। তিনি সরকারি কর্মকর্তা ছিলেন। মা তাহমিনা বেগম গৃহিণী।

স্কুলে পড়াকালীন আশিফুরের ছবি আঁকাআঁকির প্রতি ছিল প্রচণ্ড নেশা। বইপড়া, ফটোগ্রাফি ছিল পছন্দের বিষয়। তবে ছবি আঁকার ঝোঁকটা ছিল অনেক বেশি। ছোটবেলা থেকেই আশিফুর রহমানের ইচ্ছা ছিল স্থপতি হওয়ার। তার ইচ্ছা পূরণ হয়েছে। আজ তিনি হয়েছেন সফল একজন স্থপতি। কিশোরগঞ্জ গভর্নমেন্ট বয়েজ হাইস্কুল থেকে এসএসসি পাস করেন ১৯৯৫ সালে। ১৯৯৭ সালে ওয়ালি নওয়াজখান কলেজ থেকে কৃতিত্বের সাথে এইচএসসি পাস করে ভর্তি হন আহসানউল্লাহ ইউনিভার্সিটির স্থাপত্য বিভাগে। স্থপতি মোহাম্মদ আশিফুর রহমান ব্যাচেলর অব আর্কিটেকচার ডিগ্রি লাভ করেন ২০০৫ সালে। পাস করে বের হওয়ার পরই আশিফুর রহমান যোগ দেন স্থপতি তুগলক আজাদ মিঠুর অধীনে ‘সম্মনয় আর্কিটেক্ট’ নামক কনসালটেন্সি ফার্মে। সেখানে তিনি চার বছর চাকরি করেন। ২০০৬ সালে যোগ দেন শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরে। সেখানে চার বছর চাকরি করেন। ২০১০ সালে যোগ দেন ‘এসেট ডেভেলপমেন্ট হোল্ডিং লিমিটেডে’। সেখানে সততা ও নিষ্ঠার সাথে চার বছর চাকরি করেন। এরপরে ২০১৪ সালে যোগ দেন নাভানা রিয়েল এস্টেট-এ। বর্তমানে তিনি এই প্রতিষ্ঠানে ডিজাইন ডেভলপমেন্ট ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত আছেন।

Dhaka-Bank,-Motijil-Branchইতিমধ্যে আশিফুর রহমান দেশের নামকরা ইউনিভার্সিটি, ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, কমার্শিয়াল টাওয়ার, অফিস বিল্ডিং, ডুপলেক্স বিল্ডিংসহ অসংখ্য রেসিডেন্স বিল্ডিংয়ের ডিজাইন করেছেন। তার উল্লেখযোগ্য কাজের মধ্যে রয়েছে রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেটের ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ ও এগ্রিকালচার ইউনিভার্সিটি, ময়মনসিংহের ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, ধানমন্ডি হাসান হ্যারিটেজ, উত্তরার ডুপলেক্স বিল্ডিং মনচেরি, বসুন্ধরার ১০ কাঠার প্রজেক্ট ‘মুকিত মিনার’ উত্তরার গরীব নেওয়াজ এভিনিউর নাহিয়ান রেসিডেন্স বিল্ডিং, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর জোন অফিস, বসুন্ধরার মুন রাইজ মমতা রেসিডেন্স বিল্ডিং, মেলেন মেরিনা রেসিডেন্স বিল্ডিং, আলেক জেনড্রা রেসিডেন্স বিল্ডিং, প্লাজোজয়া অ্যাপার্টমেন্ট, উত্তরার ফ্লোরা ভিসত্মা রেসিডেন্স বিল্ডিং, এপল উড রেসিডেন্স বিল্ডিং, লাভিনিয়া অ্যাপার্টমেন্ট, গ্লান্ডরোজ রেসিডেন্স বিল্ডিংসহ অসংখ্য বিল্ডিংয়ের ডিজাইন করেছেন। এ ছাড়া বর্তমানে বেশ কিছু নতুন প্রজেক্টের কাজ করছেন মোহাম্মদ আশিফুর রহমান। আশিফুর রহমান তার সব ধরনের কাজ স্থাপত্য নীতি ও রাজউকের নিয়ম মেনেই করেন। ২০০৭ সালে তিনি বিয়ে করেন। স্ত্রীর নাম উম্মে মুসলিমা আক্তার। তিনি একজন গৃহিণী। এই দম্পতি এক সনত্মানের জনক-জননী। স্থপতি মোহাম্মদ আশিফুর রহমান বলেন, টেকসই উন্নয়ন আমাদের পৃথিবীর পরিবেশগত স্থিতিশীলতার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। পরিবেশ বান্ধব এবং পরিকল্পিত ভবন তৈরির মাধ্যমে আমাদের পরিবেশের উপর বিরুপ প্রভাব হ্রাস করা যায়। কিছু নিয়মনীতি অনুসরণ করে আমরা টেকসই নির্মাণকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারি। স্বল্প খরচে অনবায়নযোগ্য সম্পদের ব্যবহার, উন্নত প্রাকৃতিক পরিবেশ এবং বিষাক্ত পদার্থের ব্যবহার কমানো স্থাপত্য ধারণা ক্ষেত্রে এটি একটি অনন্য চ্যালেঞ্জ উপস্থাপন করে। সর্বোপরি টেকসই স্থাপত্য হল বৈদ্যুতিক যান্ত্রিক এবং স্ট্রাকচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং এর সাথে স্থাপত্যের চিনত্মাশীলতার সমন্বয় সাধন। ইমারতের আনুপাতিক স্কেল, জমির নন্দনতত্ত্ব, পরিবেশগত আলোছায়ার সুবিধা, অর্থনৈতিক এবং দীর্ঘ মেয়াদি রক্ষাণাবেক্ষণের বিষয়গুলো প্রাধান্য দিয়ে প্রতিটি কাজে নজর দেন স্থপতি আশিফুর রহমান। পাশাপাশি স্থাপত্য নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে আশিফুর রহমান বলেন আবহাওয়া, জলবায়ু এবং প্রকৃতিকে গুরুত্ব দিয়ে ভবিষ্যতে বাংলাদেশের পরিবেশ নিয়ে কাজ করার ইচ্ছা আছে আমার।