রাইজিং স্টার

রাইজিং স্টার

1085
SHARE

রেজানুর রহমান: আয়নায় চোখ ফেললে নিজেকে চেনা খুবই সহজ হয়। অনেকে মনে করেন আমরা চুল আচরানোর জন্য আয়না দেখি। আসলে কী তাই? আয়না কী শুধুমাত্র চুল আচরানোর জন্যই ব্যবহার করা হয়? ঠিক তা নয়। আয়নায় আসলে আমরা নিজেদেরকেই দেখি। চেহারা কী শুকিয়ে গেছে? নাকি চুলের রঙ বদলে গেছে? অথবা কপালে বয়সের ভাঁজ পরেছে কী? এসব অনেক কিছুই খুঁজি আয়নায়। সে কারণে আয়না খুবই প্রিয় সবার কাছে।
এতো গেল মানুষের ব্যক্তিগত আয়না। যা ঝুলানো থাকে ঘরের দেয়ালে অথবা ড্রেসিং টেবিলে। কেউ কেউ বিশেষ করে মহিলারা তাদের ভেনেটি ব্যাগে একটা ছোট্ট আয়না রাখেন। সময় পেলেই বিশেষ করে কোথাও বেড়াতে গেলে এই আয়নায় নিজেকে দেখে নেন। ঠিক আছি তো? কপালে ভাঁজ পরেনিতো? আহা-রে পার্লারে গিয়ে চুলটা ঠিক করে নিয়ে এলো ভালো হতো! এতো গেল আয়নায় নিজের চেহারা দেখা। কিন্তু সারা বছর কেমন গেল? আসলে কী করলাম বছর জুড়ে… ইত্যাদি দেখার জন্যও আমরা একটা আয়না খুঁজি। এটাকে কী মনের আয়না বলব? হ্যাঁ, বলা যায়। মনের আয়নায় নিজেকে খোঁজার চেষ্টা। কারণ মনের আয়নায়তো জমা হয়ে আছে পুরনো দিনের চিত্র। কী করলাম, কী করতে পারতাম… এর চিত্র পাওয়া যাবে মনের আয়নায়। কিন্তু দেশের চিত্র পেতে গেলে আসলে কোন আয়নাটা জরুরি? দেয়ালে ঝুলানো আয়না? নাকি মনের আয়না? এর বাইরেও একটি আয়না আছে। যে আয়না দেয়ালে ঝুলানো আয়না আর মনের আয়নার থেকেও স্বচ্ছ। দেয়ালে ঝুলানো আয়না আর মনের আয়নায় যা ধরা পড়ে না তা এই আয়নায় ধরা পড়বেই। কোন মাফ নেই। যা কিছু সত্য ও সুন্দর তাতো থাকে এই আয়নায়। আরও থাকে কদর্য, অন্যায়, অবিচার, অনিয়মের ঘটনাও। এই আয়নার নাম ‘ইতিহাসের আয়না’।
বছরের প্রথম দিকে এই আয়নায় মুখ রাখতে চান অনেকে। দেখতে চান- কেমন ছিলাম, কেমন গেল আগের বছরটি। কেউ কেউ একে বলেন সালতামামি… আমরা একে বলতে চাই ‘ফিরে দেখা’ স্মৃতি। কারণ ফিরে দেখা স্মৃতি মানেই নিজেকে একবার আয়নায় দাঁড় করানো। কেমন ছিলাম এটা দেখার পর সহজেই সিদ্ধান্ত নেয়া যায় আগামী বছর কেমন থাকব? এর জন্য কী কী করা জরুরি… তাও ভেবে নেয়া যায় গুরুত্বের সাথে। একথা মাথায় রেখেই আনন্দ আলো প্রতি বছর ‘রাইজিং স্টার’ শীর্ষক একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে বছর শুরুর প্রথম সংখ্যায়। সেই ধারাবাহিকতায় এবারও একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হলো।
প্রশ্ন উঠতে পারে আমরা ‘রাইজিং স্টার কাকে, কাদেরকে বলছি’? এই প্রশ্নের সহজ উত্তর- আমরা রাইজিং স্টার তাদেরকেই বলছি যারা সারা বছর জুড়ে আমাদের শোবিজে আলো ছড়িয়েছেন। অবশ্য তাদেরকে তরুণ হতে হবে। অর্থাৎ নতুন কোনো তারকা শোবিজে পা রেখেই মেধার ঝলক দেখিয়েছেন এমন তারকাকেই আমরা রাইজিং স্টার বলছি। এজন্য সারা বছর আমাদের একটি পর্যবেক্ষণ কার্যক্রম চালু থাকে। ডিসেম্বরে এসে আমরা এই পর্যবেক্ষণ কার্যক্রমকেই ইতিহাসের আয়নায় ফেলার চেষ্টা করি।
আমাদের শোবিজ এখন অনেক বড়। নাটক, সিনেমা, রিয়েলিটি শো এর কথাই যদি বলি তাহলে দেখা যাবে প্রতিদিন আমাদের শোবিজে অনেক তরুণ-তরুণীর আত্মপ্রকাশ ঘটছে। এদের মধ্যে কেউ হয়তো টিকে যাচ্ছে আবার কেউ হারিয়ে যাচ্ছে। এদের মধ্য থেকেই আমরা মেধাবীদের খুঁজে বের করার চেষ্টা করেছি। আমরা মনে করেছি তরুণদের মধ্যে এরাই ‘রাউজিং স্টার’। আগামীতে এরাই শোবিজে ঝলক দেখাবে। নানা ক্ষেত্রে নেতৃত্বও দিবে।
হ্যাঁ, প্রশ্ন উঠতেই পারে যাদের কথা এই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে শুধু কী তারাই রাইজিং স্টার? এর বাহিরে কেউ নেই? আছে, অবশ্যই আছে। তাদেরকেও আমরা খুঁজে বের করতে চাই। তাদের ব্যাপারেও কথা বলতে চাই। যেমন আমরা মঞ্চের ‘রাইজিং স্টার’ খুঁজতে গিয়ে শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারিনি। তবে আমরা হাল ছাড়িনি।
রাইজিং স্টার নিয়ে আমাদের প্রত্যাশার জায়গাটা অনেক বড়। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি চলতি বছরের পুরো সময়টা জুড়ে আমরা তরুণ তারকাদের কাজের ওপর দৃষ্টি রাখবো। আগামী বছরের শুরুতে ‘রাইজিং স্টারদের’ নিয়ে পত্রিকার বিশেষ সংখ্যা প্রকাশের পাশাপাশি একটি বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠান করার ইচ্ছে রাখি। এই অনুষ্ঠানে শোবিজের সকল তারকাদের এক ত্রক করে তাদের সামনে রাইজিং স্টারদেরকে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হবে।
এবার রাইজিং স্টার হিসেবে যাদেরকে আনন্দ আলোয় ফোকাস করা হলো তাদের সবার প্রতি রইলো অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা। তাদের সকলের প্রতি আমাদের একটি পরামর্শ আছে। তাহলো- আমরা একটি আলোর মশাল আপনাদের হাতে তুলে দিলাম। আমাদের শোবিজকে আলোকিত করার দায়িত্ব এখন আপনাদের হাতে। আপনাদের জয় হোক।

আরো বিস্তারিত ৩৩-৫২