মানুষের ভালোবাসাই আমার কাছে বড় উপহার : আরেফিন শুভ

মানুষের ভালোবাসাই আমার কাছে বড় উপহার : আরেফিন শুভ

1556
SHARE

২ ফেব্রুয়ারি এ সময়ের জনপ্রিয় অভিনেতা আরেফিন শুভর জন্মদিন। কথা হল জনপ্রিয় এই অভিনেতার সাথে।

আনন্দ আলো: ২ ফেব্রুয়ারি আপনার জন্মদিন। দিনটা  কীভাবে পালন করেন?

আরেফিন শুভ: জন্মদিন নিয়ে তেমন কোনো চিনত্মা-ভাবনা নেই আমার। আমি সেই অর্থে জন্মদিন পালন করি না। কয়েক বছর ধরে আমার বন্ধু-বান্ধব, পরিচালক, ইউনিটের সবাই মিলে শুটিং স্পটেই জন্মদিন উদযাপন করে। শুটিংয়ে সবার সঙ্গে দেখা হয়। কেক কাটা হয়। বেশ আনন্দের সাথেই কেটে যায় জন্মদিনটা।

আনন্দ আলো: ছোটবেলার জন্মদিন আর এখনকার জন্মদিনের মধ্যে কী পার্থক্য খুঁজে পান?

আরেফিন শুভ: পার্থক্য তো অবশ্যই আছে। ছোটবেলার জন্মদিন অনেক মজার, আনন্দের ছিল। জন্মদিন শেষ হলেই পরের বছরের  জন্য অপেক্ষা করতাম কবে আসবে জন্মদিন। অনেক আনন্দ করতাম এ দিনে। কেক কাটা হতো। বাসায় ভালো ভালো রান্না বান্না হতো। আত্মীয়-স্বজন, স্কুলের বন্ধুরা বাসায় চলে আসত। সবাই মিলে অনেক আনন্দে কাটত দিনটি। তখন কিন্তু আমাদের জন্মদিন ঘটা করে পালন করা হতো। আর এখনতো কয়েক বছর ধরে শুটিং স্পটেই আমার জন্মদিন পালন করা হচ্ছে। ওই দিন যদি কোনো শুটিং থাকে তাহলে শুটিং স্পটেই পালন করা হয় জন্মদিন। জন্মদিন এলেই মনে হয় জীবন থেকে একটি বছর চলে গেল। এখন আর বয়স বাড়ছে না। মনে হয় আয়ু কমছে।

আনন্দ আলো: সবার আগে জন্মদিনে আপনাকে কে উইশ করে?

আরেফিন শুভ: সবার আগে জন্মদিনে উইশ করে আমার ভক্তরা। তাঁরা একদিন আগে থেকেই পাল্লা দিয়ে উইশ করতে থাকে। এটা আমার কাছে খুবই ভালো লাগে। এছাড়া আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব, কলিগরা জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানায়। ফুল নিয়ে আসে।

আনন্দ আলো: জন্মদিনে কী উপহার পেতে ভালো লাগে?

আরেফিন শুভ: আমাকে ভালোবেসে সবাই যখন জন্মদিনে উইশ করে তখন খুবই ভালো লাগে। এর চেয়ে ভালো উপহার কী হতে পারে। মানুষের ভালোবাসাই আমার কাছে বড় উপহার।

সব মানুষের কাছেই নিজের জন্মদিন ভীষণ প্রিয়। সবাই আশা করে এই দিনে প্রিয়জনরা তাঁদের শুভেচ্ছা জানাবে। এছাড়া উপহার পাবার ক্ষেত্রে সবার সুপ্ত একটা বাসনা তো থাকেই। আকাঙ্খিত জিনিস উপহার দিয়ে এই দিনে বার্থডে বয় অথবা গার্লকে সারপ্রাইজড করা যায়। ভাবছেন তাদের জন্য কী কেনা যায়? ভেবে ভেবে কূলকিনারা পাচ্ছেন না, তাই তো উপহার কিনতে প্রচুর টাকা খরচ করতে হয় তা কিন্তু নয়। একটু মাথাটা খাটিয়ে চিনত্মা করুন। আপনি যার জন্য উপহার কিনতে চান তার রুচিবোধ খেয়াল করুন। মনে করার চেষ্টা করুন কোনো বিশেষ জিনিস নিয়ে তার আক্ষেপ আছে কিনা। একবার ভেবে দেখুন তো কখনো কী তাঁর মুখে শুনেছেন ইস। দেখনা জিনিসটা কী সুন্দর, পকেটে একদম টাকা নেই। জন্মদিনে সেই প্রিয় জিনিসটি দিয়ে তাঁকে অভিভূত করতে পারেন।