ভক্ত বলে কথা!

ভক্ত বলে কথা!

1201
SHARE

জাকীর হাসান: মানিকগঞ্জ থেকে শুটিং করে ঢাকায় ফিরছিলেন চলচ্চিত্রের বিশিষ্ট অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান। আছর নামাজের ওয়াক্ত হওয়ায় রাস্তার ধারে গাড়ি পার্ক করে নামাজ পড়ে সালাম ফিরিয়ে তাকিয়ে দেখেন বেশ ক’জন বয়স্ক কৃষক হাতের কাজ ফেলে তারপাশে দাঁড়িয়ে আছেন। হাসি, মুখে কুশল বিনিময় করলেন এই বরেণ্য অভিনেতা এমন সময় চল্লিশোর্ধ্ব এক কৃষক সদর্পণে এসে অকথ্য ভাষায় গালাগাল দিয়ে জড়িয়ে ধরলেন অভিনেতাকে এবং হাউমাউ করে কেঁদে ফেললেন। এটিএম শামসুজ্জামান কিছুই বুঝে উঠতে পারছিলেন না। পরে ক্রেজী সেই ভক্তের সঙ্গে কথা বলে এটিএম শামসুজ্জামান জানতে পারেন, লোকটি তার একনিষ্ঠ পাগল ভক্ত। তার অভিনীত সিনেমা ছাড়া অন্য কারো সিনেমা দেখেন না। তার বহুদিনের শখ একদিন খুব কাছ থেকে প্রিয় অভিনেতাকে দেখবেন, হাত দিয়ে ছুঁয়ে দেখবেন। সেই প্রত্যাশা পূরণ যখন হলো- তখন নিজের আবেগ ধরে রাখতে পারেননি ভক্ত। কি করতে কি করবেন এই ভাবনায় দিশেহারা হয়ে পড়েছিলেন। শুধু সাংস্কৃতিক অঙ্গনের তারকারাই নন খেলার মাঠের তারকারাও এই ফিচারের মূল পতিপাদ্য বিষয়। সাম্প্রতিক আফগানিস্তান ও বাংলাদেশের মধ্যকার ক্রিকেট সিরিজের শেষ ওয়ান ডে ম্যাচের সময় মাঠে ঢুকে পড়ে বাংলাদেশ অধিনায়ককে জড়িয়ে ধরে এক মাশরাফি পাগল ভক্ত। তারপর সেই ভক্তকে পাকড়াও করা হয়। তাকে শাস্তি দেয়ার জন্য টেনে হিঁচড়ে বাইরে নেয়ার চেষ্টা করা হলে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের গর্বিত অধিনায়ক ১৬ কোটি মানুষের প্রাণভ্রমরা মাশরাফি বাধা দেন। বলেন, এই ভক্তের কোনো ক্ষতি যেন না করা হয়। তখন আফগানিস্তান ৭ উইকেটে করেছে ১০২ রান। জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ৩ উইকেট। এই পরিস্থিতিতে একজন অধিনায়ক মহা টেনশনে থাকেন। কিন্তু অধিনায়কটি যে মাশরাফি। শ্রান্ত হলেও তিনি শান্ত থাকেন, মহাদুর্যোগেও তিনি ইস্পাত কঠিন দৃঢ়তার স্থির থাকেন। ভক্ত মাঠে ঢোকার পরও তিনি তাই করলেন। তার মানবিক আচরণ এবং একজন কমপ্লিট স্পোর্টস স্টারের সৌন্দর্যকে প্রকাশ করলেন। সারা পৃথিবীর বাঙালিরা এই দৃশ্য দেখে সবিনয়ে মাশরাফির প্রতি কুর্নিশ করলেন। এই মানুষটি শুধু স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় নয় বাংলার হাটে, মাঠে-ঘাটে, কৃষক-যুবক-বৃদ্ধ, নারী-পুরুষ-শিশু সবার আদর্শের প্রতীক হয়ে উঠেছেন। ভারতের মানুষের কাছে ক্রিকেট হচ্ছে ধর্ম আর শচীন টেন্ডুলকার হচ্ছে সেই ধর্মের দেবতা। পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম স্পোর্টস তারকাদের মধ্যে অন্যতম সেরা তিনি। বিশেষ করে তার মানবিক আচরণের জন্য। প্রতিপক্ষের বলে সত্যিকারের আউট হলে থার্ড আম্পায়ারের প্রয়োজন পড়তো না। মাথানত করে নিজে থেকেই প্যাভেলিয়নে ফিরে যেতেন।

শচীন টেন্ডুলকারের অনেক ভক্তের কথা আমরা জানি। ভক্তদের মধ্যে একজন মধ্যপ্রদেশের সুভাষ। মা তাকে একদিন বলেছিল বাবা মন্দিরে যাও পুজো দিয়ে আসো। ছেলে রেডি হয়ে একটি প্ল্যাকার্ড হাতে বেরিয়ে পড়লো। দুই ঘণ্টা পর মা টিভির খবরে জানতে পারল ছেলে একটি প্ল্যাকার্ডসহ পুলিশের হাতে ধরা পড়েছে ভারত-অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট ম্যাচে মাঠে প্রবেশের দায়ে। পরে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে শচীন টেন্ডুলকারের অনুরোধে। আর ওই প্ল্যাকার্ডে ইংরেজিতে লেখা ছিল মা আমাকে মন্দিরে যেতে বলেছে দেবতার পুজো দিতে। আমি দেবতার পুজো দিয়ে গেলাম মা। এই ঘটনা সারা বিশ্বে আলোড়ন তুলেছিল তখন।

তবে ক্রিকেটের চেয়ে পৃথিবীতে ফুটবল নিয়ে ভক্তদের পাগলামিটা বেশি হয়। বিশেষ করে ইংল্যান্ড, স্পেন, জার্মানি ও ল্যাটিন আমেরিকায়। ভক্তরা যে শুধু তারকাদের সান্নিধ্য পেতে এবং আবেগে মাঠে প্রবেশ করে কাণ্ডকারখানা করে তাই নয়। যেমন- শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটার কুশলের এক ভক্ত মাঠে ঢুকে পড়ে একটি ফ্ল্যাগ নিয়ে। কুশলের সঙ্গে মাঠে দাঁড়িয়ে কথিত তামিল রাষ্ট্রের পতাকা প্রদর্শন করছিল ভক্ত এবং তামিলদের প্রতিনিধি হিসেবে এই কাণ্ডটি ঘটিয়েছিল।

এই মুহূর্তে পৃথিবীর ফুটবল বিশ্বের সেরা তিন তারকা রিয়াল মাদ্রিদের ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো, বার্সেলোনার মেসি ও নেইমার।

রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে বার্সেলোনার খেলার সময় হঠাৎ রোনালদোর উপর চড়াও হয় এক বার্সেলোনার ভক্ত। তাকে মারতে উদ্যত হয়। পরে পুলিশ এসে ভক্ততে পাকড়াও করে নিয়ে যায়।

supporterমেসির ঘটনাটা অন্য রকম। কোপা আমেরিকা ফাইনালে চিলির কাছে আর্জেন্টিনা পরাজিত হওয়ার পর মেসি জাতীয় দল থেকে অবসরে যাওয়ার ঘোষণা দেন। রাষ্ট্রীয় ভাবে অনুরোধ করার পরও তার মন গলেনি। পরে লাখ লাখ ভক্তের অনুরোধ করার পরও তিনি অবিচল। নতুন কোচ আসার পর তার অনুরোধে বিশ্বকাপ (২০১৮) বাছাই খেলায় অংশ নিতে রাজি হন। উরুগুয়ে-আর্জেন্টিনা ম্যাচের হাফ টাইমে হঠাৎ এক ভক্ত মাঠে ঢুকে পড়ে। মেসির পায়ের সামনে এসে হাঁটু গেড়ে মাথা নত করে বসে পড়ে। এবং অনুরোধ করে জাতীয় দলে খেলার। নইলে সে আত্মহুতি দিবে। মেসি তাকে দু হাত দিয়ে বুকে জড়িয়ে ধরেন। অশ্রুসজল মেসি কিছুক্ষণ সময় দাঁড়িয়ে থাকেন মাঠে। পুরো মাঠে পিনপতন নিরবতা দেখা যায়। ৫ মিনিট পর খেলা শুরু হয়।

ব্রাজিল ও কলম্বিয়ার মধ্যে বিশ্বকাপ (২০১৮) ম্যাচ অনুষ্ঠিত হওয়ার আগের দিন অনুশীলন হচ্ছিল কলাম্বিয়ায়। কড়া নিরাপত্তায় অনুষ্ঠিত এই অনুশীলনে ব্রাজিল দলের সুপাস্টার নেইমারকে লক্ষ করে এক যুবক ধেয়ে আসে। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে নেইমার প্রাণ বাঁচাতে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করেন। ওদিকে ভক্তটিও তার পিছু পিছু দৌড়াচ্ছে। এক সময় ভক্ত ধরে ফেলে নেইমারকে। নেইমার ভয়ে চিৎকার দেন। মুহূর্তে নিরাপত্তা রক্ষীরা ধরে ফেলে ভক্তকে। পরে ভক্তের কাছে জানতে চাওয়া হয় কেন তিনি এমনটি করলেন। তার উত্তরে ভক্ত বলেন, আমি নেইমারের মহা ভক্ত, তাকে ভালোবাসি। তাকে দেখলে ঠিক থাকতে পারি না। তার সংস্পর্শে থাকতে চাই সব সময়।

পাগল বা ক্রেজী ভক্তদের পাল্লায় পড়ে খেলোয়াড়রা শুধু অবাকই হন না, অনেক সময় তাদের বিব্রতও হতে হয়। এই যেমন- আইভরিকোস্টের গার্ভিন হোর কথাই ধরা যাক। খেলার সময় মাঠে ঢুকে এক পাগল ভক্ত গার্ভিন হোকে ধরার জন্য দৌড় শুরু করে। ভক্তের ভয়ে তিনিও দৌড়ে পালাতে গিয়ে পড়ে যান। পরে ভক্ত তার শর্টপ্যান্ট খুলে ফেলেন। এতে গার্ভিন প্রচণ্ড রেগে যান এবং নিরাপত্তা কর্মীদের এক হাত নেন।

ব্রাজিল ফুটবলের এক সময়কার সুপারস্টার ছিলেন রোনালদিনহো। বার্সোলানার এই মহাতারকা ব্রাজিলের হয়ে বহু ম্যাচ জয় করেছেন। ব্রাজিলের জার্সি গায়ে এই তারকা আর্জেন্টিনার সঙ্গে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে গোল করার পর এক ভক্ত মাঠে ঢুকে তাকে পায়ে হাত দিয়ে সালাম করেন এবং তার ভাই হতে চান। যতক্ষণ না ভাই হওয়ার সম্মতি দেন ততক্ষণ পা ছাড়বেন না বলে হুমকি দেন। অবশেষে রোনালদিনহো হাসি মুকে ভক্তকে ভাই হওয়ার সম্মতি দেন।

supporter-1ব্রাজিল বিশ্বকাপে দক্ষিণ কোরিয়ার দল অনুশীলন করছিল একটি মাঠে। নিরাপত্তা কর্মীদের চোখ ফাঁকি দিয়ে একতরুণী প্রবেশ করে মাঠে। স্টাইকার পার্কের কাছে গিয়ে ভালোবাসা নিবেদন করে এবং স্মৃতি স্বরূপ তার গায়ে অটোগ্রাফ দিতে বলে। ভালোবাসা দিয়েছিলেন কি না তা জানা না গেলেও তরুণীর পিঠে পার্ক অটোগ্রাফ ঠিকই দিয়ে ছিলেন। তবে ফুটবল ও ক্রিকেট মাঠে মজার সব কাণ্ড ঘটে ইংল্যান্ডের মাঠে। বিশেষ করে নারী ভক্তদের কাণ্ড কারখানা উল্লেখ করার মতো। ইংল্যান্ডের ওভালে বা লর্ডস-এ বড় বড় ক্রিকেট ম্যাচে নারী ভক্তদের উদাম শরীরে মাঠে প্রবেশ করার উদাহরণ প্রচুর। এই ধরনের ঘটনা সেখানে হর হামেশায় ঘটছে। এতে যেমন বিব্রত হচ্ছে খেলোয়াড়রা। তেমনি ম্যানেজমেন্টও সমঅলোচনার মুখে পড়ছে। ইদানিং ইংল্যান্ডের খেলার মাঠে উলঙ্গ পুরুষ ভক্তদের প্রবেশ নিয়ে কর্তৃপক্ষ বেশি চিনিৱত। পর পর কয়েকটি ক্রিকেট ও ফুটবল ম্যাচে মধ্যবয়সী অর্থাৎ ৪০ থেকে ৪৫ বছরের পুরুষ ভক্তরা খেলার সময় মাঠে প্রবেশ করে আলোচনা-সমালোচনা ভিন্নমাত্রা যোগ করেছে।

পক্ষ বিপক্ষ

আফগানিস্তানের সাথে শেষ ওয়ানডে ম্যাচে যখন টাইগারদের জয়ের পাল্লা ভারী হয়ে এসেছে তখন হঠাৎ করে মিরপুর শের-এ বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অভূতপূর্ব এক ঘটনা ঘটে যা বাংলাদেশের খেলার ইতিহাসে প্রথম।

খেলার সময় হঠাৎ করেই মাশরাফি ভক্ত এক যুবক মাঠে ঢুকে পড়ে। টাইগার অধিনায়ক মাশরাফিকে দৌড়ে এসে জড়িয়ে ধরে। কয়েকজন নিরাপত্তা কর্মী দৌড়ে এসে যুবককে ধরে শাস্তি দিকে চাইলে টাইগার ক্যাপ্টেন ভক্তের কোনো ক্ষতি যাতে না হয় সে ব্যাপারে নিরাপত্তা কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান। পরবর্তীতে ওই যুবককে মিরপুর থানায় সোপর্দ করা হয়। পরের দিন জিজ্ঞাসাবাদের পর শর্তসাপেক্ষে ছেড়ে দেয়া হয়। এই নিয়ে পুরো বাংলাদেশে সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে সব শ্রেনি পেশার মানুষের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কেউ বলেছেন নিরাপত্তা ব্যবস্থার দুর্বলতার কারণে ওই ক্রিকেট ভক্ত মাঠে ঢুকে পড়েছিল। সে নিছক একজন মাশরাফির ভক্ত, তাকে নিয়ে মিডিয়া ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অযথাই বাড়াবাড়ি করা হচ্ছে এটা কোনো ঘটনাই নয়।

অনেকেই অন্যদিকে বলেছেন, মাঠে ঢুকে ওই ভক্ত খুবই অন্যায় করেছে। তার বিচার হওয়া প্রয়োজন। কারণ তার বিচার না হলে অন্য তরুণ ভক্তরাও এই ধরনের অ্যাডভেঞ্চারে উৎসাহিত হবে। তাছাড়া ওই ভক্ত যদি কোনো বিস্ফোরক নিয়ে যেত, যদি মাশরাফিকে আঘাত করতো তাহলে পরিস্থিতি কি হতো? গুলশান, শোলাকিয়া, কল্যাণপুরে জঙ্গি হামলার পর এমনিতেই সারাবিশ্বে বাংলাদেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। এই সময় ক্রিকেট মাঠের এ ঘটনা নানা প্রশ্নের জন্ম দিচ্ছে।

ক্রিকেট পাগল ওরা পাঁচজন

বাংলাদেশের শোয়েব আল বোখারী

bd-suporterবাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অন্ধ ভক্ত বলে সহজেই তকমা লাগিয়ে দেয়া যায় শোয়েব আল বোখারীর নামের পাশে। পেশায় মোটর মেকানিক হলেও বাংলাদেশ দলের প্রতিটি খেলায় আগাগোড়া বাঘের রঙে দেখতে পাওয়া যায় তাকে গ্যালারিতে। যেভাবেই হোক, যেখানেই হোক, আর যে আবহাওয়াতেই হোক পুরো খেলা জুড়ে উম্মাদনার ফোয়ারা ছড়িয়ে দিতে কার্পণ্য করেন না বাংলাদেশের এই সমর্থক। হয়তো খাওয়ার ঠিক নেই, ঘুমানোর জায়গা নেই, প্রচণ্ড গরম বা প্রচণ্ড শীত, কিন্তু তাতে কি? বাংলাদেশের খেলা যেখানে শোয়েব আল বোখারীও সেখানে। বাংলাদেশ ক্রিকেটের পাগল ভক্ত বলে পরিচিত সবার কাছে এই তরুণ।

ভারতের সুধীর কুমার গৌতম

india-suporterপুরো শরীরজুড়ে ভারতের পতাকার রঙ মাখা, চুলহীন মাথা, তার ওপর আবার শচীন টেন্ডুলকারের নাম- এই বেশেই সুধীর কুমার গৌতমকে চেনেন পৃথিবীর সবাই। শুরুটা অবশ্য হয়েছিল একেবারেই অন্যরকমভাবে। একটি কোম্পানিতে কাজ করতেন তখন সুধীর। সেই সঙ্গে শিক্ষক হওয়ার জন্য প্রশিক্ষণও নিচ্ছিলেন। তবে এমন স্বাভাবিক জীবন আর খুব বেশিদিন স্থায়ী হয়নি সুধীরের। ১৯৮১ সালে জন্ম নেয়া এই মানুষটি ২০০৩ সাল থেকে ভারতের একটাও ঘরের খেলা বাদ পড়তে দেননি। সবসময়ই ভারতের পাশে থেকে গ্যালারি মাতিয়েছেন তিনি। বিশেষ করে শচীন টেন্ডুলকারের প্রচণ্ড ভক্ত বলে মনে করা হয় এ মানুষটিকে।

শ্রীলঙ্কার পার্সি আবেসেকেরা

srilanka-suporterশ্রীলঙ্কার নামটা ক্রিকেট জগতে এলেই তার পাশাপাশি আর যে একটি নাম ফুটে ওঠে সেটি হচ্ছে পার্সি আবেসেকেরা। দেশকে সমর্থন জানিয়ে প্রায় হাজারের বেশি ম্যাচ দেখে ফেলেছেন পার্সি আজ অবধি। একটি খেলাও মিস হয়নি তার। হার কিংবা জিত ফলাফল যেটাই হোক সবসময়ই শ্রীলঙ্কার পাশে থেকেছেন এই ভক্ত। তখন শ্রীলঙ্কা একদমই নতুন দল। টেস্ট স্ট্যাটাসও পায়নি। তবুও কোনোকিছুর পরোয়া করেননি পার্সি। তবে সুদীর্ঘ ভক্ত জীবনকে কাটিয়ে, গ্যালারিতে উত্তেজনার বন্যা বইয়ে দিয়ে অবশেষে ৭৭ বছর বয়সে অবসর নেন এই মানুষটি।

পাকিস্তানের চৌধুরী আবদুল জলিল

pakistan-suporterমুখ ভর্তি সাদা দাড়ি, গায়ে পতাকার রঙ করা পোশাক আর হাতে পাকিস্তানের পতাকা- চাচা পাকিস্তানের বলে পরিচিত চৌধুরী আবদুল জলিলের বর্ণনা এটুকুই। তবে তার পরিচিতি কিন্তু এর চেয়েও অনেক বেশি ওপরে। ১৯৮০ সালের শারজাহ কাপ চলছে তখন। সে সময় ট্রাকচালক ছিলেন আবদুল জলিল। নিজের যতটা ক্ষমতা আছে তাই দিয়েই দেশের পক্ষে উম্মাদনা দেখান তিনি। সমর্থন করেন পাকিস্তান ক্রিকেট দলকে। তার উৎসাহ দেখে পিসিবি এক সময় পাকিস্তানের প্রতিটি ম্যাচে মাঠে আসতে অনুরোধ করে তাকে। অবশ্য মাঝখানে পিসিবি টাকা দেয়া বন্ধ করে দেয় আবদুল জলিলকে। তবে তাতে দমে যাননি আবদুল জলিল। ঠিক খেলার সময় মাঠে এসে চিৎকার করে গিয়েছেন তিনি পাকিস্তানের পক্ষে।

আয়ারল্যান্ডের ল্যারি দ্য লেপ্রেশন

ireland-suporter‘কলার খোসা ছাড়াও, ভর্তা করো, ছুড়ে মারো এবং এগিয়ে চলো কলারা’ খেলা চলাকালীন সময়ে গ্যালারির ভেতর থেকে একটু খেয়াল করলেই আইরিশ ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় এই ভক্তের মুখ দিয়ে প্রতিবারই শোনা যায় এই কথা। এমনিতে মানুষটির নাম আদ্রিয়ান রাফটেরি, আর পেশা শিক্ষকতা হলেও ক্রিকেট বিশ্বের কাছে তিনি শুধুই ল্যারি দ্য লেপ্রেশন। ২০১৫ সালে প্রথম নজরে আসেন এই আইরিশ ভক্ত নিজের গায়ে চড়ানো ঐতিহ্যবাহী পোশাক, নকল দাড়ি আর উম্মাদনার জন্য।