ব্র্যাক বিসিডিএম বিয়ে উৎসব এর অনন্য আয়োজন

ব্র্যাক বিসিডিএম বিয়ে উৎসব এর অনন্য আয়োজন

SHARE
Brack-Inn-(1)

শহুরে কোলাহল একেবারেই নেই। শান্ত নরম, নিস্তব্ধ গোটা এলাকা। যেন এক মায়াময় স্বপ্নরাজ্য। সবুজে ঘেরা নৈসর্গিক সৌন্দর্যে ভরপুর এই স্থানটিতে রয়েছে আধুনিক জীবন যাপনের সকল সুযোগ সুবিধা। লেকে বয়ে যাওয়া পানির স্রোত, অপরূপ ফুলের বাগান, সবুজ মাঠ, পুকুর- সবই রয়েছে ব্র্যাক বিসিডিএম-এর অপরূপ রিসোর্টগুলোকে ঘিরে। যান্ত্রিক ঢাকা শহর থেকে এখানে যেতে সময় লাগবে মাত্র এক ঘন্টা। যারা একটু ভিন্নভাবে নিজের বিয়ে কিংবা পার্টি করতে চান, এমনকি যারা শহরের চার দেয়ালে ঘেরা কমিউনিটি সেন্টার, পার্টি সেন্টারের বাইরে গিয়ে সবুজ প্রকৃতির সঙ্গে জীবনের শ্রেষ্ঠ মহূর্তকে ফ্রেমে বেঁধে রাখতে চান- তারা বেছে নিতে পারেন এই রিসোর্টগুলোকে। যেখানে শুধু বিয়ে কিংবা পার্টির খাওয়া-দাওয়া করাই শেষ কথা না। শহরে জীবনে হাফিয়ে ওঠা পরিবেশ থেকে রেহাই পেতে ঢাকার পাশে এর চেয়ে উত্তম জায়গা আর কোনোটাই হতে পারে না। ব্র্যাক-এর রাজেন্দ্রপুর ও সাভারে অবস্থিত ‘বিসিডিএম’- এর রিসোর্টে রয়েছে বিশাল জায়গাজুড়ে উন্মুক্ত স্থান। যেখানে বিয়ে কিংবা বিয়ের মতো বড় বড় ইভেন্টগুলো করতে পারেন অনায়াসে। এছাড়াও রিসোর্ট দুটিতে থাকা বড় বড় টাওয়ার ভবন, অডিটোরিয়ামসহ রাজকীয় ব্যাংকোয়েট হল এবং কনফারেন্স ভেন্যুগুলোকে অনুষ্ঠানের জন্য বেছে নিতে পারেন অনায়াসে। অনুষ্ঠান শেষে ফেরার তাগিদ না থাকলে থাকার জন্য রাজকীয় সব রুম রয়েছে- যেগুলোর ক্যাটাগরি হচ্ছে- ডিলাক্স টুইন, সুপার ডিলাক্স টুইন, সুপার ডিলাক্স কুইনসহ প্রিমিয়াম সুইটও। লিখেছেন সৈয়দ ইকবাল

রাজেন্দ্রপুরের ভাওয়াল বনে ব্র্যাক (বিসিডিএম)

চারদিকে সবুজ বনরাজি এবং লেকভিউ সমৃদ্ধ গাজীপুরের ঐতিহাসিক ভাওয়াল বনাঞ্চল অধ্যুষিত রাজেন্দ্রপুরে ব্র্যাক সার্ভিসেস লিমিটেড (বিএসএল)-এর বিসিডিএম রাজেন্দ্রপুর রিসোর্ট সপরিবারে বেড়িয়ে আসা, বিয়ের অনুষ্ঠান করা কিংবা কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানের আউটিং ও মিটিংয়ের জন্য এক আদর্শ স্থান হয়ে উঠেছে। মোটা ১২ বিঘা জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত ১৫৬টি আন্তর্জাতিক মানের কক্ষ ও অনেকগুলো বহুমাত্রিক সম্মেলন স্থান মিলে রিসোর্টটি সারাবিশ্বে ইতোমধ্যে নজর কেড়েছে। বিএসএলের প্রধান বিক্রয় ও বিপণন কর্মকর্তা ডাল্টন জহির জানান, রাজধানী থেকে মাত্র এক ঘণ্টার দূরত্বে নাগরিক কোলাহলমুক্ত রাজেন্দ্রপুরের এই রিসোর্টে তিনটি সুবিশাল টাওয়ার ভবনে ছড়িয়ে রয়েছে ১৫৬টি কক্ষ যার মধ্যে ৫৬টি ডিলাক্স টুইন বেড, ৪৮ সুপার ডিলাক্স টুইন বেড, ৪৪ সুপার ডিলাক্স কুইন বেড এবং ৪টি করে জুনিয়র সুইটসও প্রিমিয়াম সুইটস। আরও রয়েছে ৪৮০ আসনবিশিষ্ট লেকভিউ অডিটোরিয়াম, ২৫০ আসনের রাজকীয় ব্যাংকোয়েট হল, ৮টি কনফারেন্স ভেন্যু, এক্সিকিউটিভ মিটিং রুমসহ আনন্দদায়ক ভ্রমণের আরামদায়ক সব ব্যবস্থা।
Brack-Inn-(2)রিসোর্টটির ভেতরে বিশাল বিশাল উম্মুক্ত স্থানে করতে পারেন বিয়ের মতো বড় বড় ইভেন্টগুলো। সেট বানিয়ে সুন্দরভাবে পরিপাটি প্রোগ্রাম করার জন্য সব ধরনের সুযোগ সুবিধা রয়েছে রিসোর্টটিতে। শুধু তাই নয় একঝাঁক দক্ষ কর্মীবাহিনী আপনার সেবা দানে সবসময় প্রস্তুত রয়েছেন। ক্যাটালগ দেখে বিয়ের অনুষ্ঠানের সেট ডিজাইন করা, বিয়ের লাইটিং করা, বুফে খাবারের জন্য জায়গা করাসহ ওয়াশরুমের আধুনিক সব ব্যবস্থা রয়েছে এখানে। একসঙ্গে কয়েক হাজার মানুষের অনুষ্ঠান করার মতো ক্যাপাসিটি রয়েছে। কেউ চাইলে বর আর কনে পক্ষের জন্য আলাদা আলাদা ভেন্যু করেও অনুষ্ঠান করা সম্ভব। কারণ রিসোর্টটিতে রয়েছে বিশাল বিশাল এরিয়ার অনেকগুলো উম্মুক্ত স্থান। কেউ চাইলে বর আর কনের একসঙ্গে বিয়ে-বৌভাতসহ বিয়ের পুরো আয়োজন সেখানে করতে পারেন। এজন্য থাকার মতো পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রয়েছে। উভয়পক্ষের আত্মীয়-স্বজন সেখানে থেকে বিয়ের সকল আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে ফিরে আসতে পারেন নিজেদের বাসস্থানে। এতে করে পুরো পরিবারের একটা আউটিংও হলো এবং জীবনের স্মরণীয় মুহূর্তটুকু একটু অন্যরকমভাবে ফ্রেমবন্দীও হলো।
এছাড়াও রিসোর্টটিতে আরো রয়েছে নানান সুবিধা। চারদিকে কাঁচের দেয়ালঘেরা পথ পেরিয়ে দেখা মিলবে আধুনিক স্থাপত্যের নকশায় ছিমছাম কফিশপ, দোতলায় রয়েছে বারবিকিউ আউটলেট, ব্যাংকোয়েট হলের ঠিক ওপরে সুইমিং পুল, আধুনিক যন্ত্রপাতি দিয়ে সাজানো পুরুষ ও নারীদের জন্য পৃথক জিম।
এখানে আরও রয়েছে যোগ ব্যায়ামের প্রয়োজনীয় উপকরণ, রিসোর্ট এলাকায় ফ্রি সাইক্লিং কিংবা নির্দিষ্ট অঙ্কের ফি দিয়ে লেকের পানিতে নৌকায় ঘুরে বেড়ানোর সুযোগ, খেলাধুলা এবং অন্যান্য রকমারি সুবিধা। একসঙ্গে পাঁচ হাজার লোকের সেবা প্রদানে সক্ষম এটি। এর সুবিশাল পার্কিং এলাকায় পঞ্চাশটি বাস রাখার ব্যবস্থার পাশাপাশি আন্ডারগ্রাউন্ডে ২০০টির বেশি গাড়ি রাখা যাবে। ব্র্যাক (বিসিডিএম) রাজেন্দ্রপুর সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে www.bracservicesltd.com

বিসিডিএম সাভার

Brack-Inn-(3)আশুলিয়া-বিরুলিয়া ব্রিজ পার হয়ে কিছুদূর এগুলেই দেখা মিলবে মনোরম প্রাকৃতিক পরিবেশে গড়ে ওঠা ব্র্যাক-এর আরেকটি রিসোর্ট ‘বিসিডিএম সাভার’। যেখানে প্রবেশ করতেই সুবিশাল পুকুর আপনাকে স্বাগত জানাবে। পুকুরে হাঁসের বিচরণ দেখা মাত্রই ইট কাঠের শহরে থাকা মনটা একটু প্রশান্তিময় হয়ে যাবে। আর পুকুরের পাড়ে একটু আয়েস করার জন্য বসতে চাইলে রয়েছে সুশ্রী বেঞ্চির ব্যবস্থা। পুকুর পাড়েই রয়েছে বিশাল বড় উম্মুক্ত মাঠ। মাঠের পাশেই রয়েছে বুফে খাবার পরিবেশন কিংবা বিয়ের মতো বড় বড় ইভেন্ট করার মতো স্টেজের জন্য পর্যাপ্ত জায়গা। কেউ চাইলে এই মাঠটিকে বিয়ের আমেজে সাজিয়ে প্রাকৃতিক পরিবেশে জীবনের এই অধ্যায়টুকুকে রাঙাতে পারেন। পুকুরের আরেক প্রান্তে রয়েছে সুবিশাল একটি টাওয়ার। যার মধ্যে রয়েছে ১৭৪টি কক্ষ ও ২০ টি কনফারেন্স ভেন্যু। আরেকটি ভবনে রয়েছে বেশকিছু কনফারেন্স ভেন্যুসহ আধুনিক ডাইনিংয়ের ব্যবস্থা। আরো রয়েছে বারবিকিউসহ কফি শপের ব্যবস্থাও। সাভার বিসিডিএম-এর রুমগুলোর টাইপ হচ্ছে- স্ট্যান্ডার্ড, স্ট্যান্ডার্ড টুইন, ডিলাক্স টুইন, ডিলাক্স কুইন এবং জুনিয়র সুইট। আরো রয়েছে অডিটরিয়াম, বেনকুয়েট হল, কনফারেন্স হল, মিটিং রুম, রুফ টপ বারবিকিউ কর্ণার ও জিমসহ আরো নানান সুবিধা। শুধু পার্টি কিংবা আউটিং-ই না। আপনি জরুরি সভা, মিটিংসহ অফিসিয়াল নানান ধরনের কনফারেন্স এই রিসোর্টটিতে সেরে নিতে পারেন।
আরো জানতে ভিজিট করুন:www.bcdmsavar.com

ব্র্যাক সেন্টার ইন

Brack-Inn-(4)হযরত শাহজালাল (র:) আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর থেকে মাত্র ৮ কি. মি. দূরত্বে এবং কূটনৈতিক পাড়ার কাছাকাছি শহরের প্রায় মূল কেন্দ্র, মহাখালিতে ব্র্যাক সেন্টার ইন নামে একটি অত্যাধুনিক হোটেল রয়েছে যা এক কথায় নান্দনিক। ঐতিহ্যবাহী বাঙালি আতিথেয়তা এবং আন্তর্জাতিক মানের সেবা মিলে হোটেলটির সুনাম বহুবিধ। এই কোলাহলময় শহরে অবস্থানের নিমিত্তে ব্যবসায়ী বা বিদেশি পর্যটকদের জন্য এটি একটি নিখুঁত ও মনোরম এবং নিরাপদ আবাসস্থল। এখানে রয়েছে ডিলাক্স টুইন ও ডিলাক্স কুইন রুম। আরো রয়েছে অডিটরিয়াম, বেনকুয়েট হল, কনফারেন্স হল, মিটিং রুম, রুফ টপ ও জিমসহ আরো নানান সুবিধা। আরো জানতে ভিজিট করুন: www.bracinn.com

দি আর্টিসান

Brack-Inn-(5)একই ছাদের নিচে সব সুবিধা নিয়ে নগরীর উত্তরায় রয়েছে হোটেল দি আর্টিসান। বিমান বন্দর থেকে মাত্র ৩ মিনিটের দূরত্বে হোটেলটি অবস্থিত। এই হোটেলে রয়েছে ডিলাক্স কুইন, ডিলাক্স টুইন, সুপার ডিলাক্স ও সুইট রুম। এছাড়াও হোটেলে রয়েছে জিমসহ আরো নানান সুবিধা। এই্ হোটেলের ষড়ঋতু রেস্টুরেন্টটিতে ১২০ সিটের অত্যাধুনিক ফ্যাসিলিটি রয়েছে। এই রেস্টুরেন্টটি ইতোমধ্যে ভোজন রসিকদের মধ্যে বেশ সাড়া জাগিয়েছে। আরো জানতে দেখতে পারেন: www.artisan-hotel.com