বিজয় মাসে লাল সবুজের মেলা : সৈয়দ ইকবাল

বিজয় মাসে লাল সবুজের মেলা : সৈয়দ ইকবাল

1042
SHARE

বিশেষ দিবস কিংবা উৎসব পার্বণে ফ্যাশনে-বসনে আসে ব্যাপক পরিবর্তন। আর তাই তো বিজয় দিবস উপলক্ষে দেশীয় ফ্যাশন হাউজগুলোতে স্থান পেয়েছে লাল সবুজ কম্বিনেশনের নানান পোশাক। দেশীয় ফ্যাশন হাউজগুলো গত কয়েক বছরের মতো এবারও বিজয়ের মাসে এনেছে লাল আর সবুজ রঙের অনেক পোশাক। পোশাকগুলোর ডিজাইনের একটা বড় অংশজুড়ে রয়েছে দেশাত্মবোধের চেতনা। মূলত সময়কে ধারণ করার জন্যই এমন আয়োজন বলে জানান দেশীয় ফ্যাশন ডিজাইনাররা। স্টাইল, স্মার্টনেস, আউটলুকিংয়ের সামগ্রিক কনসেপ্টে বৈচিত্র্য এলেও বিজয় দিবসের ফ্যাশনে দেশাত্মবোধের চিন্তাটা  উন্মোচিত হয়। বাঙালির স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ, মাতৃ ভাষার প্রতি শ্রদ্ধা, মমতা এবং এক রক্তক্ষয়ী ইতিহাসের প্রতিটি মুহূর্ত রয়েছে এসব পোশাকে। যেখানে স্বাধীনচেতা বাঙালির হাজার বছরের ঐতিহ্যের মহিমান্বিত গৌরব গাঁথার বিষয়ই ফুটে ওঠেছে। দীর্ঘ আন্দোলন, সংগ্রাম, যুদ্ধ এবং পরিণতিতে আমাদের এই স্বাধীনতা তথা বিজয় দিবস। সেই অর্জনটাকে নানান মাধ্যমে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার জন্যই পোশাকে মহান মুক্তিযুদ্ধের অর্জনের প্রতিচ্ছবি তুলে ধরা হয়েছে বলে জানান দেশীয় ফ্যাশন ডিজাইনাররা।

এবার বিজয় দিবসের প্রাক্কালে বিভিন্ন ফ্যাশন হাউজ ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিবছরের মতো এবারও বিজয় দিবস কিংবা পুরো বিজয়ের মাস উপলক্ষে বাজারে এনেছে বাহারি ধরনের লাল-সবুজের পোশাক। বেশিরভাগ পোশাকেই রয়েছে জাতীয় পতাকার লাল সবুজের গর্বিত ছোঁয়া। শোরুমগুলোয় নানান ডিজাইন থাকলেও তরুণ-তরুণীদের আগ্রহটা লাল-সবুজের ডিজাইন করা টি-শার্ট, ফতুয়া, পাঞ্জাবির দিকেই বেশি। লাল-সবুজকে প্রাধান্য দিয়ে তরুণীদের সালোয়ার-কামিজ, ফতুয়া, টপস পাওয়া যাচ্ছে। দেশীয় ফ্যাশন হাউসগুলো বিজয়ের এই উৎসবকে আরো বেশি সুশ্রী ও বিজয়ের চেতনায় নতুন প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ করে তোলার জন্য ক্রেতাদের কাছে ব্যতিক্রমী সব পোশাক উপস্থাপন করে থাকে। রঙের বেলায় লাল-সবুজ তো আছেই সঙ্গে অন্য রঙগুলোও বাদ পড়ছে না। বিজয় দিবসের পোশাকে কোনো কোনো হাউস বিজয় উৎসবের বিভিন্ন প্রতীক ও চিত্রও ফুটিয়ে তুলেছে। পোশাকে মোটিভ হিসেবে জাতীয় পতাকার রং ব্যবহার করা হয়েছে। ব্লক, এম্ব্রয়ডারি, স্ক্রিনপ্রিন্টসহ দুই তিন মাধ্যমকে একসঙ্গে ব্যবহার করা হয়েছে পোশাকগুলোতে। শীত শীত আবহাওয়ার জন্য পোশাকগুলো তৈরি করা হয়েছে একটু মোটা কাপড়ে। এছাড়াও পোশাকে বিজয়ের কথা, গান, কবিতাও প্রাধান্য পেয়েছে। আজকের তরুণ স্বাধীনতার স্বরূপ বা বিজয়ের আনন্দ অনুভব করতে চায় তাদের নিজস্ব ঢঙে। আর তাই তো তরুণদের এ চাওয়াকে প্রাধান্য দিয়ে বিজয়ের মাসে পোশাকের সম্ভারে লাল-সবুজকে তুলে ধরার চেষ্টা করেছে দেশীয় ফ্যাশন হাউসগুলো। এসব পোশাকের মধ্যে টি-শার্টের ক্যানভাসে স্কিন প্রিন্টের মাধ্যমে ওঠে আসে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, পোস্টার, যুদ্ধের কবিতা অথবা  োগান। কখনও স্মৃতিসৌধের প্রতিকৃতি, গৌরবোজ্জ্বল বিভিন্ন মুহূর্ত, দেশাত্মবোধক গানের পংক্তি অথবা বঙ্গবন্ধুর ভাষণ উঠে এসেছে টি-শার্টের বুকে।

09_2ফ্যাশন হাউজ অঞ্জন’স-এর স্বত্বাধিকারী ও ফ্যাশন ডিজাইনার শাহীন আহম্মেদ বলেন, ‘বিভিন্ন উৎসবে দেশীয় ফ্যাশন হাউজগুলো ভিন্ন ধরনের পোশাক নিয়ে ক্রেতার সামনে হাজির হন। তাই তো এবার বিজয় দিবসে লাল-সবুজের কম্বিনেশনে নানান ধরনের শাড়ি, পাঞ্জাবি, সালোয়ার কামিজ, টি-শার্টসহ বিভিন্ন পোশাক করেছি। তবে এই সময়ে শীতের প্রাদুর্ভাব থাকায় কাপড়ে সেই দিকটি খেয়াল রাখা হয়েছে। আর বিভিন্ন পোশাকের পাশাপাশি রয়েছে চাদরও। এসব চাদরে স্বাধীনতা তথা মুক্তিযুদ্ধের নানান মোটিফ তুলে ধরা হয়েছে।’

অন্যদিকে শাড়ি, সালোয়ার কামিজ, শর্ট পাঞ্জাবি, পাঞ্জাবি ও টপসের সঙ্গে মানানসই শীতের চাদর ও লাল-সবুজ অলঙ্কার। অনেক হাউজে শিশুদের জন্যও রয়েছে সালোয়ার কামিজ, পাঞ্জাবি, ফতুয়া ও টি-শার্ট। নিপুণ, রঙ, কে-ক্রাফট, অঞ্জন’স, নগরদোলা, কাজী ক্রাফট, নিত্য উপহার, বিবিআনা, রঙ, ওজি, বাংলার মেলা, সমীকরণ, প্রবর্তনা, ফড়িংসহ অনেকগুলো ফ্যাশন হাউজ-ই বিজয়ের এই মাসে স্বাধীনতার থিম নিয়ে পোশাক তৈরি করেছে। অন্যদিকে ওয়েস্টার্ন হাউজগুলোর মধ্যে মেনজ ক্লাব, ডিজাইন মেলা, ইজি, পটুয়া, জেন্টল পার্ক, ওজি প্রত্যেকেই তাদের কাজের বৈচিত্র্য আনার জন্য লাল-সবুজের স্ট্র্রাইপ দিয়ে অনেক ধরনের ডিজাইনের ব্লেজার তৈরি করেছে। ঢাকার আজিজ সুপার মার্কেটেও রয়েছে বিজয় দিবসের নানান ধরনের পোশাক। যেখানে টি-শার্ট, পাঞ্জাবি, ফতুয়া, থ্রিপিস, শাড়ি, টপসসহ বিভিন্ন পোশাক পাওয়া যাচ্ছে। শুধু তাই নয় শীতের এই মৌসুমে চাদর-এর মধ্যেও বিজয়ের থিম নিয়ে আসা হয়েছে। যা আজিজ সুপার মার্কেট থেকে শুরু করে অনেকগুলো ফ্যাশন হাউজে পাওয়া যাচ্ছে।

বিজয়ের পোশাক যেকোনো ফ্যাশন হাউজ থেকে কিনলে সাধারণত দাম পড়বে, টি-শার্ট ৩৫০ থেকে ৫৫০ টাকা, পাঞ্জাবি ১২০০ টাকা থেকে ২২০০ টাকা, শাড়ি ১৬০০ টাকা থেকে ৩২০০ টাকায়, ফতুয়া ৪৫০ থেকে ৭০০ টাকা, চাদর ৬৫০ থেকে ৮৫০ টাকা। এছাড়াও নগরীর নিউ মার্কেট, আজিজ সুপার মার্কেটে গেলে এসব পোশাকের দাম কিছুটা কমে পাওয়া যাবে। তবে আজিজ সুপার মার্কেটে বিজয় দিবসের পোশাকের বেশি কালেকশন রয়েছে। এই মার্কেটের প্রায় সবগুলো ফ্যাশন হাউজ-ই বিজয় দিবসকে উপলক্ষ করে লাল সবুজ থিম নিয়ে বিভিন্ন পোশাক তৈরি করেছে। যা পাওয়া যাবে অনেক কম দামেই।

পোশাক: বিসর্গ ও সুইসুতা।