বাইরের টেলিভিশনে হুদাই ফুটানি ছাড়া কিছু নাই! : সোহেল খান  

বাইরের টেলিভিশনে হুদাই ফুটানি ছাড়া কিছু নাই! : সোহেল খান  

1618
SHARE

আনন্দ আলো: আপনি কী খান?

সোহেল খান: আমি ও ঔিইূ

আনন্দ আলো: সোহেল খান নামের অর্থ কী। এই নাম নিয়ে আপনি সন্তুষ্ট?

সোহেল খান: হ্যাঁ খুব সন্তুষ্ট। এই নামের জন্যই মানুষজন আমাকে চিনে-জানে। আমি মনে করি মা-বাবা আমার সঠিক নামটাই রেখেছেন।

আনন্দ আলো: অভিনয় এলেন কেন?

সোহেল খান: অভিনয়ে আসলাম নাম ফাটানোর জন্যে। খুব নাম ফাটাইতাছি।

আনন্দ আলো: মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর বাংলালিংকের ‘ওরে কত কথা বলেরে’ বিজ্ঞাপনচিত্রে মডেল হয়ে বেশ নাম কামিয়েছেন। ওরে কত কথা বলেরে… দুই একটি কথা বলেন তো দেখি!

সোহেল খান: ভাই পেটের ভেতরে অনেক কথা আছে। বলতে শুরু করলে থামাইতে পারবেন না। কাজেই আইজ থাকুক…

আনন্দ আলে: বাংলা সিনেমা দেখেন? দেখলে কেন দেখেন? না দেখলে কেন দেখেন না?

সোহেল খান: আপনে এইডা কি কন? বাংলা সিনেমা দেখি না মানে। মায়ের পেট থেকে বাইর হইয়া যখন অ, আ, ক, খ পড়তে শিখছি তখন থেইকা বাংলা সিনেমা দেখি। বাংলা সিনেমা দেখার একটাই উদ্দেশ্য এখান থেকে অনেক কিছুই শেখার-জানার আছে যা কিনা হিন্দি, উর্দূ,-হলিউড ছবিতে নাই।

আনন্দ আলো: বেশির ভাগ ক্ষেত্রে কৌতুক অভিনেতারা কেন স্বাস্থ্যবান হন?

সোহেল খান: কৌতুক অভিনেতাদের পেট ভরতি কথা থাকে তো সেজন্য তাদের স্বাস্থ্য মোটা।

আনন্দ আলো: জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলনের ‘নূরজাহান’ ধারাবাহিক নাটকে মান্নান মাওলানা নামে একজন মন্দ লোকের চরিত্রে অভিনয় করেন। বাস্তবে যদি মান্নান মাওলানার আগমন ঘটে তখন কি করবেন?

T-20-1-2সোহেল খান: বাস্তবে মান্নান মাওলানার আগমন ঘটুক সেটা আমি কোনদিনই চাই না। দেশবাসীর কাছে আমার একটাই আবেদন ধর্মের লেবাসধারী কুটিল চরিত্র মাওলানা মান্নানের আবির্ভাব যেন এই সোনার বাংলায় না ঘটে আসেন সবাই মিলে সেই চেষ্টা করি।

আনন্দ আলো: দেশের টিভি চ্যানেল দেখেন? দেখলে কেন দেখেন? না দেখলে কেন দেখেন না?

সোহেল খান: দেশের টিভি চ্যানেল অবশ্যই দেখি। আমাদের টেলিভিশন চ্যানেল গুলোর অনুষ্ঠান থেকে অনেক কিছু শেখার আছে, বুঝার আছে। বাইরের টেলিভিশনে শাড়ি, গয়না, আর হুদাই ফুটানি ছাড়া কোনো কিছুই নাই। দেশের মানুষ এখন বুঝতাছে না, যখন বুঝতে পারবে তখন বাইরের টেলিভিশন চ্যানেল বর্জন করবে।

আনন্দ আলো: একদিন সকালে ঘুম থেকে জেগে দেখলেন আপনার বিছানায় ১ কোটি টাকা পড়ে আছে। এই টাকা দিয়ে কী করবেন?

সোহেল খান: আমার প্রথম টার্গেট থাকবে ১ কোটি টাকা দিয়ে আমি একটা ভালো বাংলা সিনেমা বানাব।

আনন্দ আলো: আপনার অভিনীত প্রাণ ক্যান্ডির বিজ্ঞাপন চিত্রটি এখনো বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে প্রচার হচ্ছে। বিজ্ঞাপনটি নিয়ে অভিজ্ঞতা কেমন?

সোহেল খান: ওরে কত মজারে। টক ঝাল মিষ্টি। বিজ্ঞাপনের শুটিং করার সময় খেয়েছিলাম।

আনন্দ আলো: সকালে উঠিয়া আমি মনে মনে বলি…কি বলেন?

সোহেল খান: সকালে উঠিয়া আমি মনে মনে বলি আমি যেন প্রতিদিন মায়ের মুখখানি দেখি।

আনন্দ আলো: আপনার পরিচালিত একটি ধারাবহিক নাটকের নাম- রাজাপুর। সত্যি সত্যি আপনি একদিন রাজাপুর গ্রামের রাজা হলেন। প্রথম কোন কাজ করবেন?

সোহেল খান: আমি যদি রাজাপুর গ্রামের রাজা হই আমার প্রথম কাজ হবে রাজাপুর গ্রামে মারামারি হানাহানি, নির্যাতন ঝগড়াঝাটি বন্ধ করে দেওয়া। আমরা যেন সবাই এক সথে মিলেমিশে বসবাস করতে পারি। সুন্দর থাকতে পারি এই চেষ্টা থাকবে।

আনন্দ আলো: ‘দেখা হয়নি চক্ষুমেলিয়া’ কি এমন জিনিস দেখা হয়নি?

সোহেল খান: মানুষের জীবন একটা। এক জীবনে অনেক কিছুই দেখা হয়নি। বলে শেষ করা যাবে নারে ভাই…।

আনন্দ আলো: কোনো গ্রামে আপনি শুটিং করতে গেলেন। ক্যামেরা, লাইট, অ্যাকশন বলার সাথে সাথে আপনার সামনে রয়েল বেঙ্গল টাইগার এসে হাজির। তখন আপনি কী করবেন?

সোহেল খান: পরিচালক ‘কাট’ না বলা পর্যন্ত শুটিং চালিয়ে যাবো। কারন শ্যুটিং এর প্রওয়াজনে পরিচালকই বাঘ এনেছে কাজেই চিন্তা নাই।

আনন্দ আলো: আপনাকে বেশির ভাগ মন্দ মানুষের চরিত্রে দেখা যায় কেন?

সোহেল খান: সত্যিকার অর্থে একটা নাটকে ভালো-মন্দ সব চরিত্রই থাকে। খারাপ চরিত্র কাউকে না কাউকে করতে হবে। আমাকে দিয়ে খারাপ চরিত্র করানো হয় বলেই করি। এটিএম শামসুজ্জামান ভাইকে বরাবরই দেখে আসছি নাটক-সিনেমায় খারাপ চরিত্রে অভিনয় করতে। কিন্তু বাস্তবে উনি অনেক ভালো মানুষ। সুন্দর মনের মানুষ।

আনন্দ আলো: যে কাজটা ভালো পারেন?

সোহেল খান: মানুষকে অনেক ভালোবাসতে পারি।

আনন্দ আলো: যে প্রশ্ন শুনতে শুনতে ক্লান্ত?

সোহেল খান: আমি ভালোনা, আমি ভালোনা, আমি ভালো না।

আনন্দ আলো: আবার যদি তরুণ বয়স ফিরে পান?

সোহেল খান: আমরা যেন মাদক মুক্ত সমাজ গড়তে পারি। মানুষের সেবা করতে পারি, খারাপ কাজ থেকে দূরে থাকতে পারি, খারাপ কোনো নেশার সাথে যেন আমরা জড়িত না হই এটাই হবে আমার প্রথম কাজ।

আনন্দ আলো: আপনার পাঁচটি ভালো গুণের কথা বলুন?

সোহেল খান: আমার পাঁচটি ভালোগুণ- ১. আমার ভেতরে ভালোবাসার কমতি নাই। ২. আমি আমার কষ্টের কথা চেপে রেখেও মানুষের সাথে ভালো ব্যবহার করতে চেষ্টা করি। ৩. অল্পতেই মানুষকে আমি বিশ্বাস করি। ৪. আমার ধারনা বালো অভিনয় করতে পারি। ৫. সবাইকে অনেক ভালোবাসি।

আনন্দ আলো: আপনার পাঁচটি খারাপগুণের কথা বলুন।

সোহেল খান: আমার পাঁচটি খারাপ গুণ ১. অল্পতেই রেগে যাই। ২. ধৈর্য্যশক্তি খুবই কম। ৩. আমি টাকা পয়সা ধরে রাখতে পারি না। ৪. ক্ষিধা সহ্য করতে পারি না। ৫. কেউ যদি কষ্ট দেয়, সেটাও সহ্য করতে পরি না।