ফিজআপ-চ্যানেল আই সেরাকণ্ঠ পাওয়ার্ড বাই শরীফ কিচেন স্টার

ফিজআপ-চ্যানেল আই সেরাকণ্ঠ পাওয়ার্ড বাই শরীফ কিচেন স্টার

101
SHARE
Fizzup

আবার শুরু হয়েছে সংগীত শিল্পী অন্বেষণ প্রতিযোগিতামূলক রিয়েলিটি শো ফিজআপ-চ্যানেল আই সেরাকণ্ঠ সিজন-৬ পাওয়ার্ড বাই শরীফ কিচেন স্টার। এই প্রতিযোগিতাটির প্রাথমিক বাছাই কার্যক্রম চলছে সারাদেশে। বিভাগীয় পর্যায়ের বিচারকের দায়িত্ব পালন করছেন খ্যাতিমান সংগীতশিল্পী মোঃ খুরশীদ আলম, আকরামুল ইসলাম এবং স্থানীয় খ্যাতিমান সংগীতজ্ঞরা। এই রিয়েলিটি শোর এবার প্রধান বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন উপমহাদেশের কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী ওপার বাংলার মিতালী মুখার্জী, বিশিষ্ট সংগীতশিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, সামিনা চৌধুরী ও কুমার বিশ্বজিৎ। উপস্থাপনা করবেন আরজে ও মডেল মারিয়া নূর। সেরাকণ্ঠ পরিচালনা করছেন ইজাজ খান স্বপন। তিনি জানান, এবারের সেরাকণ্ঠের পুরোটা জুড়েই থাকবে বিশেষ চমক। দর্শকরা চমকটি দেখতে পারবেন চ্যানেল আই-এর পর্দায়। প্রচার হবে প্রতি সপ্তাহের সোম ও মঙ্গলবার রাত ৮টায়।

আর নয় চলচ্চিত্র…

পড়শী

আনন্দ আলো: বর্তমানে আপনার ব্যস্ততা কী নিয়ে?

porshi-1পড়শী: ব্যস্ততা শুধু গান নিয়ে। বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে সংগীত বিষয়ক অনুষ্ঠানে শো করছি। অডিও অ্যালবামের কাজ করছি। প্লেব্যাক করে যাচ্ছি নিয়মিত। এছাড়া দেশ-বিদেশে স্টেজ শো নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছি।

আনন্দ আলো: আপনার নতুন অ্যালবামের কী খবর?

পড়শী: সম্প্রতি ইমরান ভাইয়ের সঙ্গে আমার দ্বৈত অ্যালবাম বের হয়েছে সিডি চয়েসের ব্যানারে। অ্যালবামের নাম ‘আবদার’। তিনটি গান নিয়ে সাজানো হয়েছে অ্যালবামটি। গানের কথা লিখেছেন রবিউল ইসলাম জীবন। আশা করছি অ্যালবামের গানগুলো শ্রোতাদের ভালো লাগবে।

আনন্দ আলো: জুয়েল মোর্শেদের সঙ্গে দ্বৈত গান ‘মন ভুইলা’র মিউজিক ভিডিওটির সাড়া কেমন?

পড়শী: জুয়েল ভাইয়ের সঙ্গে ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই কাজ করছি আমি। এর আগেও তার সঙ্গে করা কাজগুলো শ্রোতারা গ্রহণ করেছেন। তার সঙ্গে আমার বোঝাপড়াটা বেশ ভালো। ‘মন ভুইলা’র ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে। এর কথা ও সুর রচনা করেছেন তানজীব সারোয়ার। এটার ভিডিওতে আমি ও জুয়েল ভাই অভিনয় করেছি। অনেক ভিন্নধারার একটি ভিডিও। এই ভিডিওটির জন্য অনেক সাড়া মিলেছে। সবাই গানের পাশাপাশি জুয়েল ভাই ও আমার অভিনয়ের প্রশংসা করেছেন। সব মিলিয়ে গানটি নিয়ে আমি হ্যাপি।

আনন্দ আলো: সিনেমার গানের খবর কী?

পড়শী: সিনেমার গান নিয়মিত করছি। তবে একটু বেছে বেছে কাজ করছি। মনের মতো হলেই কেবল প্লেব্যাক করছি। বেশ কিছু নতুন গানের প্রস্তাব রয়েছে। ব্যাটেবলে মিললে করে ফেলবো।

আনন্দ আলো: আরজেগিরি কেমন চলছে?

পড়শী: জাগো এফ এম রেডিও স্টেশনে আমি পড়শী নাইট শীর্ষক শো অনেকদিন ধরেই করছি। ভালো সাড়া পাচ্ছি। গানের বাইরে এ বিষয়টি আমার প্যাশনে পরিণত হয়েছে।

আনন্দ আলো: একটি ছবিতেও তো অভিনয় করা হয়েছে। সামনে কী কোনো চলচ্চিত্রে আপনাকে দেখা যাবে?

পড়শী: সেটা গল্প ও চরিত্রের ওপর নির্ভর করবে। খুব বেশি মনের মতো না হলে আর চলচ্চিত্রে অভিনয় করবো না। আমি গানের মানুষ, গান নিয়েই থাকতে চাই।

কুমার বিশ্বজিতের তিলোত্তমা

Kumar-Bijjow-jit-3-4বাংলা ঢোলের ব্যানারে প্রকাশিত হয়েছে চিরসবুজ গায়ক কুমার বিশ্বজিৎ-এর ইপি অ্যালবাম ‘তিলোত্তমা’। অ্যালবামে গান রয়েছে মোট ৩টি। এর মধ্যে দুটি মৌলিক গান হলো ‘তুমি থাকো তারার দেশে মুগ্ধ সারামাস’ ও ‘কতো ফাগুন এনে দিলে তোমার হৃদয় গলবে’। লিখেছেন শহীদুল্লাহ ফরায়জী ও আহমেদ রিজভী। সুর ও সঙ্গীতায়োজন করেছেন কুমার বিশ্বজিৎ ও কিশোর। অন্য গানটি হলো কালা শাহর ‘আমার মুর্শিদ পরশমনি গো’। এটির সংগীতায়োজনে কুমার বিশ্বজিৎ ও তার বন্ধুরা। অ্যালবামটি প্রসঙ্গে কুমার বিশ্বজিৎ বলেন, সময়ের পরিবর্তনে এখন তিন গানের ইপি অ্যালবামের জোয়ার চলছে। কয়েকটি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আমার ইপি অ্যালবাম করার আগ্রহ দেখায়। আমিও এবার যুগের সঙ্গে তাল মেলালাম। মাত্র তিন গানে অ্যালবাম খারাপ কী? আপাতত শ্রোতারা অডিও শুনতে পেলেও কোরবানির ঈদে তিনটি গানেরই মিউজিক ভিডিও পাবেন।

ফাহমিদা নবীর কারিগরি

Fahmida-Nobi২০০৭ সালে ভয়েস গ্রæমিং সেন্টার কারিগরির যাত্রা শুরু করেন ফাহমিদা নবী। ২০১৭ পর্যন্ত এখানে যারা ক্লাস করেছেন তাদের মধ্য থেকে ১১ জনকে নিয়ে নিজের তত্ত¡াবধানে একটি অ্যালবাম প্রকাশ করেছেন তিনি। অ্যালবামের নাম ‘কারিগরি’ শিরোনামের এই অ্যালবামে কণ্ঠ দেয়া শিক্ষার্থীরা হলেন পুতুল, মুন্নী, জেসিমা, দৃষ্টি, ফাহমিদা আহমেদ, ফারজানা, সীমা, অনন্যা, কদর, পিলু ও রাজীব। ফাহমিদা নবী নিজেও কণ্ঠ দিয়েছেন একটি গানে। সিডির পাশাপাশি অনলাইনে গানগুলো প্রকাশ করেছে ফাহমিদা নবীর নিজস্ব প্রতিষ্ঠান আনমল। ফাহমিদা নবী বলেন, এই অ্যালবামটির সঙ্গে শিক্ষার্থীর একটি স্বপ্ন জড়িয়ে আছে। সবাই চেষ্টা করেছে ভালোভাবে গাওয়ার। সব গানই মেলোডি। কথাগুলো প্রেমের। ১২টি গানের সব কটির সংগীতায়োজন এবং ১০টির সুর করেছেন সজীব দাস। নিজেদের লেখা ও সুরে কণ্ঠ দিয়েছেন সীমা ও কদর। আশা করছি অ্যালবামের গান গুলো। শ্রোতাদের ভালো লাগবে।

কোথায় আমার নীল দরিয়া

বর্তমানে অসুস্থ হয়ে চিকিৎসারত আছেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের বরেণ্য শিল্পী আব্দুল জব্বার। এরই ফাকে অনলাইনে প্রকাশিত হয়েছে তার মৌলিক গানের অ্যালবাম ‘কোথায় আমার নীল দরিয়া’। ৯টি গান নিয়ে সাজানো হয়েছে অ্যালবামটি। অ্যালবামের গানগুলো হলো আমি আপন ঘরের জানলাম না খবর, মা আমার মসজিদ, এখানে আমার পদ্মা মেঘনা, প্রেমের বিষকাটা, নয়নে মেখো না কাজল, আমি দুঃখকে বলেছি ইত্যাদি। সব গান লিখেছেন মোঃ মনিরুল ইসলাম। সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন গোলাম সারোয়ার। অ্যালবামটি সম্পর্কে আব্দুল জব্বার বলেন, এটি আমার প্রথম অ্যালবাম। এই অ্যালবামটি করতে পেরে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। গানগুলোর কথা অসাধারণ। এর মধ্যে মা, মাটি, দেশ, ধর্ম, সমাজ সবই আছে। আশা করছি শ্রোতাদের কাছে অ্যালবামের গানগুলো ভালো লাগবে। অ্যালবাম প্রসঙ্গে গীতিকার আমিরুল ইসলাম বলেন, এই অ্যালবামে সব রকম আবেগের গান রয়েছে। গানগুলো শ্রোতার মনে দাগ কাটবে। তাছাড়া শ্রদ্ধেয় আব্দুল জব্বার ভাই বাংলা গানের জীবন্ত কিংবদন্তি। আমার লেখা গানে তিনি কণ্ঠ দিয়েছেন। এটা আমার পরম প্রাপ্তি। এজন্য আমি তার কাছে চির কৃতজ্ঞ। অ্যালবামটি প্রকাশ করেছে মম মিউজিক সেন্টার।

মুন্নীর বৃষ্টি বিরহ

দীর্ঘদিন পর নতুন একটি গান নিয়ে শ্রোতাদের সামনে হাজির হলেন জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী দিনাত জাহান মুন্নী। সাউন্ডটেকের ব্যানারে প্রকাশিত এ গানটির শিরোনাম ‘বৃষ্টি বিরহ’। কত বিরহের বৃষ্টিতে ভিজে, চোখে কান্নার লিখেছি কবিতা, এমন কথার এ গানটির কথা ও সুর করেছেন গীতিকবি কবির বকুল। আর সংগীতায়োজন করেছেন কিশোর। এরই মধ্যে বেশ প্রশংসিত হয়েছে গানটি। এ প্রসঙ্গে দিনাত জাহান মুন্নী বলেন, অনেক দিন পর আমার নতুন গান প্রকাশ পেল। সত্যি বলতে এরকম গান গাইতে আমার বেশি ভালো লাগে। ‘বৃষ্টি বিরহ’ গানটি যখন প্রথম শুনলাম তখনই মনে ধরে গেল। অসাধারণ কথা ও সুর। আমি নিজের শতভাগ দিয়েই গাওয়ার চেষ্টা করেছি। যারাই গানটি শুনেছেন পছন্দ করেছেন। আমার আরো বেশি সংখ্যক শ্রোতার কাছে পৌঁছানোর পর গানটি আরো বেশি গ্রহণযোগ্যতা পাবে। এদিকে মুন্নী ব্যস্ত সময় পার করছেন বিভিন্ন টিভি চ্যানেলের অনুষ্ঠান নিয়ে। পাশাপাশি উপস্থাপনাও করছেন নিয়মিত। এছাড়াও নতুন বেশ কিছু গানের পরিকল্পনা করছেন তিনি। যেগুলো সামনে প্রকাশ হবে।

চিরকুটের উধাও

Chirkut২০১০ সালে চিরকুট এবং ২০১২ সালে জাদুর শহরের পর রোজার ঈদে তৃতীয় একক অ্যালবাম উধাও নিয়ে এসেছে ব্যান্ড চিরকুট। অ্যালবামে গান রয়েছে মোট ছয়টি। গানগুলো হলোÑ টিভি, ‘নিয়ম বুঝি না’, ‘কেউ জোনাক’, ‘কাটাতার’, ‘উধাও’ এবং ‘তারুণ্য’। সব গানের কথা লিখেছেন সুমি নিজেই।  তবে টিভি গানটি লিখেছেন যৌথভাবে সাইফুল আকবর খানের সঙ্গে। এর মধ্যে কয়েকটি কনসার্টে ‘তারুণ্য’ গানটি শুনিয়েছে দলটি। নতুন অ্যালবামটি প্রসঙ্গে সুমি বলেন, প্রেম ভালোবাসা, মনুষ্যত, পাখি, সবুজ বন, যা কিছু সুন্দর এর সবই উধাও হয়ে যাচ্ছে দিন দিন। মানুষের ভেতরে অস্থিরতা এবং মানুষের মাঝে দূরত্ব বাড়ছে। এই বেদনাবোধ নিয়েই উধাও গানটি। অন্যান্য গান তারুণ্যের এগিয়ে যাওয়া ও অনুপ্রেরণা নিয়ে। তিনি আরো বলেন, যান্ত্রিক কারিগরি, সুর ও শব্দ ধারণের দিকে বিশেষভাবে নজর দেয়া হয়েছে। সার্বিক বিবেচনায় অ্যালবামের সাফল্য বজায় রেখেছেন তারা। দলটির বর্তমান সদস্যরা হলেন ড্রামসে পাভেল আরীন, গিটারে ইমন চৌধুরী, কিবোর্ডে জাহিদ নিরব, বেজ দিদার হাসান এবং লিরিক, টিউন ও কণ্ঠে শারমীন সুলতানা সুমি।

কনার মেঘ গেল

সঙ্গীতার ব্যানারে প্রকাশ হয়েছে জনপ্রিয় শিল্পী দিলশাদ নাহার কনার সিঙ্গেলস। গানটির শিরোনাম ‘মেঘ গেল’। কথা লিখেছেলন নিলুফার নাসরীন। আর সুর ও সংগীত করেছেন রোকন ইমন। কনা বলেন, বেশ ভালো কথা ও সুরের গান। আমার নিজের গাইতে খুব ভালো লেগেছে। গানটি শ্রোতাদের ভালো লাগবে বলে আমার বিশ্বাস। সম্প্রতি কলকাতার টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন। বাংলাদেশের ছয়জন তারকাকে এ পুরস্কার দেয়া হয়। এর মধ্যে তিনিও একজন। এদিকে শুধু টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তিই নয় কলকাতায় একটি গানেরও রেকর্ডিং করে এসেছেন তিনি। চলচ্চিত্রের এ গানটির নাম ‘মনে রেখো’। এর সুর ও সংগীতায়োজন করেছেন আকাশ সেন।