Home টি-২০ আড্ডা প্রেম ঘটিত বিয়ে প্রেমের ক্ষতি করে!

প্রেম ঘটিত বিয়ে প্রেমের ক্ষতি করে!

SHARE
arfan-ahmed

আরফান আহমেদ

মোহাম্মদ তারেক

আনন্দ আলো: আরফান নামের অর্থ কী?

আরফান আহমেদ: আরফান মানে আর ফান। সব কিছু ভেঙ্গে খান খান..

আনন্দ আলো: আরফান আর কত ফান করবে?

আরফান আহমেদ: যতদিন বেঁচে থাকব ততদিন ফান করে যাব।

আনন্দ আলো: নিজের সঙ্গে কখনো কী ফান করা হয়?

আরফান আহমেদ: যখন ফান করার কাউকে না পাই, তখন নিজের সঙ্গেও ফান করি।

আনন্দ আলো: এত কাজ থাকতে অভিনয়ে এলেন কেন?

আরফান আহমেদ: ট্রাফিক পুলিশ হওয়ার স্বপ্ন ছিল, সেটা হতে পারিনি বলেই অভিনয় করছি।

আনন্দ আলো: জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দেয় যে কাজ অর্থাৎ নাটকটি?

আরফান আহমেদ: ‘আরমান ভাই’ নাটকটি আমার অভিনয় জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দেয়।

আনন্দ আলো: একদিন সকালে ঘুম থেকে জেগে দেখলেন আপনার বিছানায় এক কোটি টাকা পড়ে আছে। সে টাকা দিয়ে কী করবেন?

আরফান আহমেদ: আগে যাচাই বাছাই করব টাকাগুলো কী আসল না নকল।

আনন্দ আলো: কোনো গ্রামে আপনি শুটিং করতে গেলেন। ক্যামেরা, লাইট, অ্যাকশন বলার সঙ্গে সঙ্গে আপনার সামনে একটা রয়েল বেঙ্গল টাইগার এসে পড়ল। তখন কী করবেন?

আরফান আহমেদ: বাঘ মামাকে বলব, আমাকে খাওয়ার আগে একটা অপসন দেন। আমি কি খেতে চাই?

আনন্দ আলো: তোমার জন্য আমি জীবন দিতে পারি, কিন্তু…

আরফান আহমেদ: দেব না, কারণ দিতে গেলে যদি মরে যাই।

আনন্দ আলো: আপনাকে একদিনের জন্য মঙ্গল গ্রহে  পাঠানো হলো। কাকে সঙ্গে নিতে চাইবেন?

আরফান আহমেদ: যে আমার শত্রু তাকে সঙ্গে নিতে চাইব।

আনন্দ আলো: সিকান্দার বাক্‌স এ কী রাখেন?

আরফান আহমেদ: টাকা-পয়সা, গয়না-গাটি রাখি না। শুধু মজার মজার সংলাপগুলো রাখি।

আনন্দ আলো: আপনার যে সংলাপটি মানুষের মুখে মুখে…

আরফান আহমেদ: আরমান ভাই ফাইস্যা গেছে।

আনন্দ আলো: আচ্ছা বলেন তো মানুষ বিয়ে করে কেন?

arfan-ahmed-cartoonআরফান আহমেদ: সংসার করবার জন্য।

আনন্দ আলো: বিয়েকে কেউ কেউ আদর করে বলেন, দিল্লীকা লাড্ডু… যে খায় সেও পসৱায়, যে খায় না সেও পসৱায়। মন্তব্য কী?

আরফান আহমেদ: খেয়ে পসৱানোই ভালো। কমপক্ষে লাড্ডু খাওয়া তো হবে।

আনন্দ আলো: আপনি কোন্‌ বিয়ের পক্ষে? প্রেমের বিয়ে, নাকি পারিবারিক ভাবে দেখাশুনার পর বিয়ে?

আরফান আহমেদ: আমি পারিবারিক ভাবে আয়োজন করা বিয়ের পক্ষে। কারণ প্রেম ঘটিত বিয়ে প্রেমের ক্ষতি করে। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কথা ধরেই বলছি, যাকে প্রেম কর, তাকে বিয়ে কর না।’

আনন্দ আলো: বিয়ে সম্পর্কিত দুটি চুটকি বলেন?

আরফান আহমেদ: স্ত্রী: সত্যি বলছি, তোমাকে বিয়ে করে আমি মোটেই সন্তুষ্ট নই।

স্বামী: যাক, একটা ব্যাপারে আমাদের মতের মিল আছে।

বন্ধু: আচ্ছা, বিয়ের সময় বর ঘোড়ায় চড়ে যায় কেন? গাধায় চড়েও তো যেতে পারে?

বান্ধবী: কনে গাধার পিটে গাধা দেখে ঘাবড়ে যেতে পারে বলে।

আনন্দ আলো: প্রতিদিন নিশ্চয়ই ফেসবুক ঢুঁ মারেন। প্রথমে কি খোঁজেন?

আরফান আহমেদ: ফেসবুক আমার নেই বললে চলে। আমার চারটি ফেইক আইডি আছে। যেগুলোর নামে জিডি করেছি। ফেসবুকে আমি চোর খোঁজার চেষ্টা করছি। কারণ উনি আবার কখন আমার ফেইক আইডি দিয়ে মানুষের কাছে টাকা চাওয়া শুরু করে।

আনন্দ আলো: কিসের সীমাবদ্ধতা থাকা দরকার।

আরফান আহমেদ: প্রেমের জায়গা থেকে সীমাবদ্ধতা থাকা দরকার। কারণ কখন যে আমরা প্রেমে পড়ে যাই বলতে পারি না।

আনন্দ আলো: সংসারে কে বেশি সেক্রিফাইস করে আপনি, না স্ত্রী?

আরফান আহমেদ: অবশ্যই স্ত্রী সবচেয়ে বেশি সেক্রিফাইস করে।

আনন্দ আলো: বন্ধুরা যে কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষ্যাপায়…

আরফান আহমেদ: আমাকে দেখে কখনোই তাদের মনে হয়নি আমি জনপ্রিয় কোনো অভিনেতা হতে পারব।

আনন্দ আলো: শুটিংয়ের সময় যে জিনিসটা সবসময় থাকে?

আরফান আহমেদ: শুটিংয়ের সময় আমি যে ফানগুলো করব সে অস্ত্রগুলো আমার সঙ্গে থাকে।

আনন্দ আলো: হঠাৎ ছিনতাইকারীর কবলে পড়লে কী করবেন?

আরফান আহমেদ: সবকিছু বের করে দিয়ে বলব, ভাই আজকে আমার বাজারের টাকাটা দেন। বাকিটা নিয়ে যান।  আমি বুঝতে পেরেছি, আপনি আমার মতো অভাবে আছেন।

আনন্দ আলো: শোনা কথা আপনি নাকি স্ত্রীকে ভয় পান। ঘটনা কী?

আরফান আহমেদ: এটা সত্যি বলতে হবে। তা নাহলে বউ মাইন্ড করবে।

আনন্দ আলো: ধরা যাক  আপনি একটা মারাত্মক অপরাধ করেছেন। শাসিৱ হিসেবে আপনাকে একটা কৌতুক বলতে বলা হলে কোন্‌ কৌতুকটি বলবেন?

আরফান আহমেদ: স্ত্রী: জান কাল রাতে একটি স্বপ্ন দেখেছি।

স্বামী: কী স্বপ্ন দেখলে?

স্ত্রী: দেখলাম, তুমি আমাকে বেশ কিছু হীরার অলংকার কিনে দিয়েছ।

স্বামী: আরে আমিও তো একইরকম স্বপ্ন দেখেছি। আমি দেখেছি, তোমাকে অলংকারগুলো কিনে দেয়ার সময় আমাদের সঙ্গে তোমার বাবাও ছিলেন। অলংকারগুলোর দাম তোমার বাবাই দিলেন।