প্রেমে পড়ে স্বর্গও দেখেছি!-ফারজানা ব্রাউনিয়া

প্রেমে পড়ে স্বর্গও দেখেছি!-ফারজানা ব্রাউনিয়া

SHARE

আনন্দ আলো: ফারজানা ব্রাউনিয়া নামের অর্থ কী? এটাই কি আপনার আসল নাম?

ফারজানা ব্রাউনিয়া: ফারজানা অর্থ বিদুষি রমণি, ব্রাউনিয়া অর্থ শতবর্ষী ফুল। এটা আমার বাবার দেয়া নাম। আমি একজন মানুষ এটাই আমার আসল নাম।

আনন্দ আলো: পৃথিবীতে আপনার জন্ম কেন হয়েছিল বলে মনে হয়?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  যে কারণে পৃথিবীতে অসংখ্য মানুষের জন্ম, সে কারণে আমারও জন্ম। তবে পৃথিবীকে সুন্দর করে রাখার জন্য মূলত মানুষের জন্ম।

আনন্দ আলো: আপনি মাশাআল্লাহ দেখতে অনেক সুন্দর। প্রেম কী আপনার উপর পড়েছিল নাকি আপনি প্রেমের উপর পড়েছিলেন?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  প্রেম কখনো আমার উপর পড়েছিল আবার কখন আমিও প্রেমের উপর পড়েছিলাম।

আনন্দ আলো: এমন কোন কাজ করতে পারেননি যার জন্য আফসোস হয়

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  এমন কোনো কাজ নেই যা করতে না পারায় আফসোস হবে। যখন যে কাজে হাত দিয়েছি তখন সেটা করতে পেরেছি।

আনন্দ আলো: আপনাকে যদি তিনটি শখ পূরণ করার সুযোগ দেয়া হয় তা হলে কোন তিনটি বিষয় বেছে নিবেন?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  আমি আসলে চাই এ দেশের এবং মানুষের সার্বিক সাফল্য ও উন্নয়ন। আর চাইতে পারি নিজের সুস্থতা ও শ্রেষ্ঠ মৃত্যু। এর বাইরে চাওয়ার কিছু নেই।

আনন্দ আলো: দেখা হয়নি চক্ষু মেলিয়ে- কী এমন দেখা হয়নি?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  এক জীবনে চোখ মেলে অনেক কিছু দেখেছি। প্রেমে পড়ে স্বর্গও দেখেছি। তবে চক্ষু মেলিয়া যে বাংলাদেশ দেখতে চাই সেটা এখনো দেখা হয়নি।

আনন্দ আলো: নিজের পাঁচটি ভালো গুনের কথা বলুন?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলা করার ক্ষমতা আমার আছে। উপরে উপরে আমাকে অস্থির অশানৱ মনে হলেও ভেতরে ভেতরে আমি ততটাই শানৱ প্রকৃতির, অনেকেই বলেন আমার কণ্ঠ চমৎকার। আমার উপস্থিত বুদ্ধি প্রখর, পৃথিবীতে সৃষ্টিকর্তা প্রতিটি মানুষকে সুন্দর করে সৃষ্টি করেছেন আমাকেও সৃষ্টিকর্তা চমৎকার করে সৃষ্টি করেছেন।

আনন্দ আলো: পাঁচটি মন্দ গুণের কথা বলুন?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  আমি এখন আর বেশি বেশি খাই না, কাজ সম্পন্ন না হলে ক্রোধান্বিত হই, কারো কাছ থেকে আঘাত পেলে মনে রাখি প্রতিশোধ নেয়ার এবং আমি খুব জেদী।

আনন্দ আলো: মিডিয়ার কোন বিষয়টি আপনাকে বিব্রত করে?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  অর্থ বানানোর জন্য মিডিয়াকে যারা ব্যবহার করেন সেই সব বাণিজ্যিক মানুষের উপস্থিতি আমাকে বিব্রত করে।

আনন্দ আলো: এতো কাজ থাকতে উপস্থাপনায় এসেছিলেন কেন?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  উপস্থাপক ইচ্ছা করলে হওয়া যায় না। এটা কেউ জোর করে বানাতেও পারে না। উপস্থাপকের জন্ম হয়। আমিও উপস্থাপক হিসেবে জন্ম নিয়েছি।

আনন্দ আলো: ‘লেখাপড়া করে যেই গাড়ি ঘোড়ায় চড়ে সেই’ এই প্রবাদ কী এখনও সত্য?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  এই বাক্যটা কখনো সত্যি ছিল না, এখনো না। উন্নত ও আলোকিত মানুষ হওয়ার জন্য লেখাপড়া। গাড়ি ঘোড়ায় চড়ার জন্য লেখাপড়া নয়। লেখাপড়া না জানা অনেক মানুষই তো এখন গাড়ি হাকাচ্ছে।

আনন্দ আলো: লোকে বলে সুন্দরী মেয়েরা না চাইতে অনেক কিছু পেয়ে যায় আপনি কি মানেন?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  আমি মনে করি মেয়েদের সুন্দরী হওয়া একটা অভিশাপ সে যদি সচেতন না হয় এবং তার যদি ম্যানেজ করার ক্ষমতা না থাকে তাহলে গেছে…।

আনন্দ আলো: এক সড়ক দূর্ঘটনায় স্বামী ও স্ত্রী দু’জনের অবস্থাই সংকটাপন্ন। আপনি ইচ্ছে করলে যে কোন একজনকে বাঁচাতে পারবেন। কাকে বাঁচাবেন?

Farjana-Brownia-1ফারজানা ব্রাউনিয়া:  আমি দুজনকেই বাঁচাতে চেষ্টা করবো। তবে যে তুলনামূলকভাবে বেশি সংকটাপন্ন তাকে আগে পিক করবো।

আনন্দ আলো: কোন খাবারটির কথা মনে হলে জিভে জল আসে আপনার?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  প্রায় সব মুখরোচক খাবার দেখলেই জিভে পানি আসে। সেটাতো নিজের স্বাস্থ্য দেখেই বুঝতে পারছেন।

আনন্দ আলো: যে কাজটি আপনার ক্যারিয়ারের টার্নিং পয়েন্ট?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  আমাকে প্রথম উপস্থাপনায় আহ্বান জানানোর পর ফরিদুর রেজা সাগর ভাইকে হ্যাঁ বলাটা।

আনন্দ আলো: কোন মানুষটির কাছে আপনি কখনো মিথ্যা বলেন না। বা সত্য গোপন রাখেন না?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  আমি কখনো কারো কাছে মিথ্যা বলিনি, সত্যও গোপন রাখি না।

আনন্দ আলো: ২৪ ঘন্টা আপনাকে দেশ পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়া হলো। প্রথমে কোন কাজটি করবেন।

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  দেশের সব কিশোরীদের সুস্বাস্থ্য ও শিক্ষা আগে নিশ্চিত করবো।

আনন্দ আলো: অনেক সময় মুখ ফসকে বেরিয়ে যায় উপস্থাপনা টুপাস্থাপনা। এই টুপাস্থাপনাটা কী?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  উপস্থাপনা সেটাই যা সুন্দর সাবলিল ও চমৎকারভাবে মানুষের কাছে তুলে ধরা হয়। আর টুপাস্থাপনা হলো যিনি উপস্থাপনা জানেন না, বোঝেন না তবুও এই কাজটি করে বিরক্তি সৃষ্টি করেন।

আনন্দ আলো: বিশ্বের বুকে বাংলাদেশকে দারিদ্রমুক্ত দূর্নতিমুক্ত করতে সবার আগে কী করা প্রয়োজন?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  যে গতিতে দেশ চলছে কোনো বাধাহীন ভাবে সেই গতিতে চললে বাংলাদেশ দারিদ্র্যমুক্ত ও দুর্নীতিমুক্ত হবে।

আনন্দ আলো: আপনি স্বর্ণ কিশোরী নেটওয়ার্কের প্রধান। আপনার আসল উদ্দেশ্য কি বলেন তো?

ফারজানা ব্রাউনিয়া:  দেশের দুই কোটি কিশোরীর সুস্বাস্থ্য ও শিক্ষা নিশ্চিত করতে কাজ করাই আমার প্রধান লক্ষ্য।