Home আরোও বিভাগ টিভি গাইড নিজেকে অর্থহীন দেখতে চাই না

নিজেকে অর্থহীন দেখতে চাই না

SHARE
Farjana-Chobi

দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী ফারজানা ছবি। ধারাবাহিক নাটক নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি। এছাড়াও তিনি বই লেখা নিয়েও ব্যস্ত রয়েছেন। কথা হলো ছবির সঙ্গে-

আনন্দ আলো: কী নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন?

ফারজানা ছবি: কয়েকটি ধারাবাহিক নাটকের শুটিং নিয়েই ব্যস্ত রয়েছি। এখন করছি ‘নীল জ্যোৎস্না’ শীর্ষক ধারাবাহিক নাটকের কাজ। এটি পরিচালনা করছেন হিমেল ইসহাক। নাটকে আমার সঙ্গে জুটি বেঁধেছেন মাজনুন মিজান ও আরমান পারভেজ মুরাদ। এটি বিটিভির জন্য নির্মিত হচ্ছে।

আনন্দ আলো: আর কোনো নতুন কাজ?

ফারজানা ছবি: বৈশাখী টেলিভিশনের গোয়েন্দা সিরিজের একটা গল্পে অভিনয় করছি। এটি পরিচালনা করছেন ডিএ তায়েব ও শাহিন সুমন। এই গল্পটি ক্রাইমভিত্তিক। গল্পে দেখা যাবে, কেউ একজন খুন হয়। সেই খুনের পেছনে আমারই ভূমিকা থাকে। নানানভাবে নাটকের গল্পটি এগুতে থাকে।

আনন্দ আলো: লেখালেখি করছেন?

ফারজানা ছবি: অনেকদিন ধরেই আমি লেখালেখি করছি। বর্তমানে একটি ছোট গল্পের বই নিয়ে ব্যস্ততা যাচ্ছে। বেশ যত্ন আগামী বছরে বইমেলায় এটি প্রকাশ করার ইচ্ছা আছে। আমি কয়েকটি নাটকও লিখেছি। এছাড়া প্রতিদিনই আমার দৈনন্দিন জীবনে ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলো আমি ডায়েরিতে লিখে রাখি।

আনন্দ আলো: বর্তমানের নাটক নিয়ে কিছু বলবেন?

ফারজানা ছবি: এখন বাজেট স্বল্পতা ও আনুষঙ্গিক কিছু সমস্যার জন্য মানহীন নাটক নির্মাণ হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে চ্যানেল কর্তৃপক্ষ একটু সচেতন হলেই সমস্যাগুলো দূর করা সম্ভব বলে আমি মনে করি। এছাড়া যারা অভিনয় করছেন, তাদেরও মানসম্পূর্ণ গল্পে অভিনয় করা উচিত।

আনন্দ আলো: অবসরে কী করেন?

ফারজানা ছবি: আমার একমাত্র বন্ধু হলো পরিবার। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেই অবসর সময়গুলো পার করি। তবে চেষ্টা করি, প্রতিদিন কাজের মধ্যেই কাটিয়ে দিতে। আমি মনে করি, কর্মহীন জীবন অর্থহীন। আমি নিজেকে কোনো দিন অর্থহীন দেখতে চাই না।

ভাষা শহীদ শফিউরকে নিয়ে নাটক

১৯৫২ সালের মহান ভাষা আন্দোলনে শহীদ শফিউরের জীবন নিয়ে তৈরি হয়েছে নাটক ‘ফেব্রুয়ারির আল্পনা’। এতে তার চরিত্রে অভিনয় করেছেন মাজনুন মিজান। শফিউরের স্ত্রী আকিলার ভূমিকায় দেখা যাবে ফারহানা মিলিকে। বায়ান্নর সময়কে ফুটিয়ে তুলতে পুরো নাটকটির রং রাখা হয়েছে সাদাকালো। শেষ দৃশ্যে কেবল Basha-Shohidএকটি স্কুলের ক্লাসরুমের ঘটনা দেখা যাবে রঙিন। এখানেই ছাত্র-ছাত্রীদেরকে শফিউরের গল্প বলেন তাদের শিক্ষক। শফিউর চরিত্রে অভিনয়ের অভিজ্ঞতা জানিয়ে মাজনুন মিজান বলেন, ‘আমরা যে এখন বাংলা ভাষায় কথা বলতে পারছি, যাদের রক্তের বিনিময়ে এটা সম্ভব হয়েছে শফিউর তাদের মধ্যে অন্যতম। এমন একটি কালজয়ী চরিত্রে অভিনয় করতে পারা আমার জন্য একটা সম্মান।’ নাটকটিতে শফিউরের বাবার চরিত্রে আবুল হায়াত ও মায়ের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন দিলারা জামান। মূল গল্প লিখেছেন রফিকুল রশীদ, চিত্রনাট্য ও পরিচালনা করেছেন মোজাম্মেল হোসেন। ‘ফেব্রুয়ারির আল্পনা’র চিত্রায়ণ হয়েছে পুরান ঢাকা, বুড়িগঙ্গা নদী, ওয়াইজ ঘাট, বুলবুল ললিতকলা একাডেমি, দোয়েল চত্বর ও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে।

এই সময়ে পারসা ইভানা

চ্যানেল আইণ্ডএর সেরা নাচিয়ে হয়েছিলেন পারসা ইভানা। সেই থেকে মিডিয়ায় পথচলা শুরু। তবে শুধু নাচ নিয়েই তিনি থেমে থাকেননি। নাটক অভিনয় করেও ইতোমধ্যে নিজের জায়গাটি পাকাপোক্ত করেছেন। সম্প্রতি তিনি চারটি ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করছেন। নাটকগুলো হলো প্রেসিডেন্ট সিরাজউদ্দোলা, বউ বকা দেয়, সিনেমাটিকও, রূপালি পর্দা। শুধু যে ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করছেন তা নয়। বিশেষ খণ্ড নাটকেও তিনি অভিনয় করছেন। কয়েকদিন আগেই নির্মাতা ইমরাউল রাফাতের পরিচালনায় ‘দেশি মুরগী’ নামের একটি এক ঘণ্টার নাটকে অভিনয় করলেন ইভানা। এছাড়াও নির্মাতা বান্নাহর পরিচালনায় ‘অতসী’ ও ‘শোধ’ নামের দুটি শর্টফিল্মে অভিনয় করেছেন তিনি। ইভানা বলেন, ‘নাচের পাশাপাশি আমি অভিনয়টাও করছি। আসলে নাচের মাধ্যমে অভিনয়েরও অনেক কিছু শিখেছি। সেই অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে অভিনয় করছি।’