দুর্গাপূজার ফ্যাশন

দুর্গাপূজার ফ্যাশন

1446
SHARE

সৈয়দ ইকবাল: ঢাক ঢোল আর শাকের বাদ্যই বলে দেয় এসে গেছে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। আর তাই তো এই উৎসবকে সামনে রেখে দেশিয় ফ্যাশন হাউজগুলো ইতিমধ্যেই সেজেছে বর্ণিল সাজে। নগরীর বিভিন্ন দেশিয় ফ্যাশন হাউজ ঘুরে দেখা গেছে দুর্গাপূজা উপলক্ষ্যে নিত্যনতুন কালেকশন নিয়ে ক্রেতাদের সামনে হাজির হয়েছে তারা। দেশিয় ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির নানা উপাদান ব্যবহার করে পোশাকে শতভাগ বাঙালিয়ানা ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা প্রতিবারের মতো এবারও রয়েছে সকল ফ্যাশন হাউজে। তবে রঙের ক্ষেত্রে লক্ষ্য করা যাচ্ছে দারুণ বৈচিত্র্য। উৎসবে সবার আকর্ষণ থাকে উজ্জ্বল রঙের প্রতি। সবসময় শরতে হালকা রঙ ও নীল-সবুজের শেডগুলো প্রাধান্য পেলেও এবার লক্ষ্য করা যাচ্ছে গাঢ় রঙের বাহার। লাল, খয়েরি, মেরুন ইত্যাদি রঙগুলো প্রাধান্য পেয়েছে। এখনো বেশ গরম থাকায় ফেব্রিক ও রঙের ক্ষেত্রে দেয়া হয়েছে বিশেষ গুরুত্ব। যেহেতু কিছুটা গরমের মধ্যে এবার দুর্গাপূজা উদযাপন হচ্ছে তাই ফেব্রিক ব্যবহারে
আরামের কথা বিবেচনা করে বেছে নেয়া হয়েছে সুতি কাপড় এবং উৎসবের কিছু এক্সক্লুসিভ পোশাকের জন্য বেছে নেয়া হয়েছে ঐতিহ্যগতভাবে প্রশংসিত সিল্ক, মসলিন, এন্ডি সিল্ক, জয়শ্রি, এন্ডি কটন, জর্জেট, শিফনসহ নানান ধরনের কাপড়। এসব পোশাকে কারচুপি, এম্ব্রয়ডারি, স্ক্রিন প্রিন্ট, বøক, স্টিচিং ইত্যাদি
কারুকাজের মাধ্যমে ডিজাইন সমৃদ্ধ করা হয়েছে। শাড়ির উপকরণে প্রাধান্য পেয়েছে টাঙ্গাইলের সুতি, ডুপিয়ান সিল্ক, বলাকা সিল্ক, জয়শ্রী সিল্ক, এন্ডি সুতি, এন্ডি সিল্ক, জামদানী, মসলিন, রেশমী কটন, মার্সেলাইস সুতি ইত্যাদি। পাঞ্জাবি, ফতুয়া, সালোয়ার-কামিজ, ক‚র্তা, ক‚র্তী, শার্ট-এর কাটিং এবং প্যাটার্নে দুর্গাপূজার ঐতিহ্য গুরুত্ব পেয়েছে। ছেলেদের শার্ট ও টি-শার্টে উঠে এসেছে নানান ধরনের আলপনা।  আড়ং, অঞ্জন’স, রঙ, বাংলার মেলা, প্রবর্তনা, নগরদোলা, নিপুণ, বিবিআনা, সাদাকালো, নিত্য উপহার, অন্যমেলা, 03এড্রয়েট, ফড়িং, ইন্ডিগো, এমপ্রেসসহ বেশকিছু হাউজের আউটলেটে আপনি পাবেন দুর্গাপূজার নিত্যনতুন সব কালেকশন। এছাড়াও আজিজ সুপার মার্কেটে বেশকিছু দোকানেও পাবেন এই বিশেষ আনন্দ দিনের নানা রঙের পোশাক। সুতি কাপড়ে স্ক্রিন প্রিন্ট, বøক, সিকোয়েন্সের মিশেলে ফ্লোরাল ও ঐতিহ্যবাহী আল্পনার মোটিফে তৈরি হয়েছে পোশাকগুলো। প্রতিটি পোশাকে উজ্জ্বল রঙ প্রাধান্য পেয়েছে। মেয়েদের জন্য রয়েছে শাড়ি, সালোয়ার কামিজ, ফতুয়া ও পাঞ্জাবি। ছেলেদের জন্য থাকছে পাঞ্জাবি ও ফতুয়া। এসব পোশাকের বেশিরভাগই সুতি। শাড়ি, থ্রি-পিস, পাঞ্জাবি, ফতুয়া, শার্ট, শীতের শাল ইত্যাদিতে ব্যবহার করা হয়েছে সুতি কাপড়। সব পোশাকেই ফুটিয়ে তোলা হয়েছে দুর্গাপূজার সমার্থক নানা মোটিফ।  ফ্যাশন হাউজ ‘রঙ’ দুর্গাপূজার এবারের আয়োজনে রেখেছে বৈচিত্র্যময় সব পোশাক। প্রায় সব ধরনের উজ্জ্বল রং যেমন লাল, কমলা, ম্যাজেন্টা, নীল, হলুদ, বেগুনী, সবুজ ইত্যাদি রংয়ের বর্ণিল ব্যবহার রয়েছে। বøক, স্প্রে, টাই-ডাই, এ্যাপলিক, মেশিন এ্যাম্ব্রয়ডারি, কারচুপি, ইত্যাদি ব্যবহার করে ভিন্ন ভিন্ন নান্দনিক রূপ দেয়া হয়েছে। পোশাকের মূল উপকরণ কাপড় তৈরি হয়েছে টাঙ্গাইল, রাজশাহী, মানিকগঞ্জ, নরসিংদী, সিরাজগঞ্জ, মিরপুর, কুমিল্লা সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। নিজস্ব তাঁতে বোনা কাপড়ের বুননেও আনা হয়েছে নতুনত্ব। তাঁতের বুননে তৈরি এক্সক্লুসিভ শাড়ির পাশাপাশি হাফসিল্ক, মসলিন, রেশমী কটন, ডুপিয়ান-এর শাড়িতে বিভিন্ন কাজ করা হয়েছে। এছাড়াও ‘রঙ’ তাদের এবারের বিশেষ আয়োজনে রয়েছে কান্তজির মন্দিরের ‘টেরাকোটা’র অনুপ্রেরণায় পোশাকের আনুষঙ্গ হিসেবে এসেছে দেব-দেবী প্রতিমায় পোড়ামাটির ফলকের নকশা ও রঙে সাজানো হয়েছে শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, শার্ট, টি-শার্ট, পাঞ্জাবি, ফতুয়া, বাচ্চাদের পোশাক, উত্তরীয় ইত্যাদি। পূজার এই মৌসুমে উৎসবকে সুন্দর করতে ‘রঙ’ নিয়ে এসেছে বিশেষ মূল্যছাড়। সকল সামগ্রীতে সর্বোচ্চ ৭০% পর্যন্ত মূল্যছাড়  দেয়া হচ্ছে।  পূজায় শিশু-কিশোরদের ডিজাইনেও বড়দের পোশাকের মতো গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। শিশুদের পোশাকের ভেতর থাকছে থ্রি-পিস, ফ্রক, টি-শার্ট, পাঞ্জাবি। এবারের ঈদ ও পূজার আয়োজনে ফ্লোরাল ঘের কামিজের চলতি ধারা অব্যাহত রয়েছে। বেশ লম্বা ত্রিভুজ কাট, বেশি ঘের, আনারকলি কাট বা কলিদার কামিজই থাকছে লং কামিজের কাটিংয়ে। সাধারণত: আপনি ১ হাজার থেকে ২৫০০ টাকার মধ্যে চাইলেই নিজের পছন্দমতো পোশাকটি বেছে নিতে পারবেন এসব হাউজগুলো থেকে। আজিজ সুপার মার্কেটে গেলে আরো কমে কিছু পোশাক পেয়ে যাবেন। আর কেউ কাপল পোশাক কিনতে চাইলে বিভিন্ন ডিজাইনের উপর দাম নির্ভর করবে। তারপরও ২৫০০ থেকে ৩৫০০ টাকার মধ্যে আপনি কাপল পোশাক পেয়ে যাবেন।