দর্শকের হৃদয়ে আজীবন বেঁচে থাকতে চাই

দর্শকের হৃদয়ে আজীবন বেঁচে থাকতে চাই

903
SHARE

ছোট ও বড়পর্দায় সমানতালে কাজ করে যাচ্ছেন অভিনেতা আনিসুর রহমান মিলন। বেশকিছু নতুন ধারাবাহিক নাটকেও অভিনয় করছেন তিনি। অভিনয় ও সমসাময়িক নানা বিষয় নিয়ে কথা হলো তার সঙ্গে-

আনন্দ আলো: বর্তমান ব্যসত্মতা কি নিয়ে?

আনিসুর রহমান মিলন: বর্তমানে ‘রাত্রির যাত্রী’ ছবির শুটিং করছি। এটি পরিচালনা করছেন হাবিবুল ইসলাম হাবিব। এতে আমার সহশিল্পী হিসেবে রয়েছেন চিত্রনায়িকা মৌসুমী।

আনন্দ আলো: আর ছোটপর্দায়?

আনিসুর রহমান মিলন: বেশকিছু ধারাবাহিক নাটকের শুটিং নিয়ে ব্যসত্ম আছি। আমার অভিনীত ধারাবাহিক নাটকগুলো হচ্ছে- সাগর জাহানের ‘মিলার বারান্দা’, সাজ্জাদ সুমনের ‘ননস্টপ’, রুম্মান রনির ‘ফাইভ স্টার মেস’, আকিদুল ইসলামের ‘দূরের বাড়ি কাছের মানুষ’ প্রভৃতি। এছাড়াও একক নাটকের শুটিং নিয়েও ব্যসত্ম সময় যাচ্ছে। সম্প্রতি ‘মেঘ প্রানত্মরে একা’ নামের একটি খন্ড নাটকের শুটিং শেষ করলাম। এটি পরিচালনা করেছেন চয়নিকা চৌধুরী। এছাড়াও সামনে আরো তিন, চারটি খন্ড নাটকের শুটিং করার কথা রয়েছে।

আনন্দ আলো: নতুন কোনো  চলচ্চিত্রের খবর?

আনিসুর রহমান: বর্তমানে বেশকিছু চলচ্চিত্রের শুটিং করছি। এগুলোর মধ্যে রয়েছে রায়হান খানের ‘থার্টি ফাস্ট নাইট’, বজলুর রাশেদ চৌধুরীর ‘বন্ধ, ইফতেখার চৌধুরীর ‘বক্সার’, স্বপন আহমেদের ‘তবুও ভালোবাসা’, শাহ আলম মন্ডলের ‘সাদা-কালো প্রেম’, বুলবুল বিশ্বাসের ‘রাজনীতি’, সায়মন তারেকের ‘ক্রাইম রোড’ ও সাইফ চন্দনের ‘টার্গেট’। এছাড়াও সম্প্রতি দেবাশীষ বিশ্বাসের ‘মন জ্বলে’ ও তানিম রহমান অংশুর ‘স্বপ্নবা’ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি।

আনন্দ আলো: নিজের অভিনয় নিয়ে কোনো মূল্যায়ন?

আনিসুর রহমান মিলন: মঞ্চ থেকে আমার অভিনয় জীবন শুরু হয়েছে। অভিনয়টা এখন আমার কাছে একটি পেশা। তাই অভিনয়ের ক্ষেত্রে আমি খুব যত্নশীল। আমি অভিনয় দিয়ে দর্শকদের হৃদয়ে আজীবন বেঁচে থাকতে চাই।

রবীন্দ্রজয়নত্মীতে জীবিত ও মৃত

নির্মাতা অঞ্জন আইচ নির্মাণ করেছেন তারই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘জীবিত ও মৃত’ গল্প অবলম্বনে একটি বিশেষ নাটক। নাটকটির নাম গল্পের নামেই রাখা হয়েছে। আর এতে অভিনয় করেছেন ইমন, সোহানা সাবা, তারিক আনাম খান, মৌনীরা প্রমুখ। ইতিমধ্যেই মানিকগঞ্জে নাটকটির দৃশ্যধারণ করা হয়। আসছে ২৫ বৈশাখ এটি একুশে টেলিভিশনে প্রচার হবে বলে জানা যায়। অঞ্জন আইচ বলেন, ‘বেশ ভালো একটি গল্প। একজন বিধবা মেয়েকে তার শ্বশুর বাড়ির মানুষজন মেরে ফেলে। আসলে মেয়েটি মরে না। কিন্তু সে যখন আবার ফিরে আসে তখন কেউ আর বিশ্বাস করতে পারে না সে যে জীবিত। সবাই তাকে ভাবে সে মৃত।’

ওরা সবাই সুপারগার্লস!

Super-Girlমুমতাহিনা চৌধুরী টয়া, নাদিয়া আফরিন মিম, সাফা কবির, কেয়া রহমান ও অন্বেষা- বিনোদন অঙ্গনের এই পাঁচ তরুনীকে নিয়ে নির্মিত হয়েছে নতুন টিভি সিরিজ ‘সুপার গার্লস’। প্রত্যেকেই তাদের নিজ নামে অভিনয় করছেন এতে। এই সিরিজটির গল্প ও চিত্রনাট্য লিখেছেন ভারতীয় টিভি নাটকের অভিনেত্রী ও চিত্রনাট্যকার প্রিয়া ওয়াল। পরিচালনায় তানিম রহমান অংশু। পাঁচ সুপার গার্লস‘সুপার গার্লস’ ধারাবাহিক নাটকে টয়া অভিনয় করেছেন একজন অভিনেত্রীর ভূমিকায়। মধ্যবিত্ত পরিবারের এই মেয়েটিকে অভিনেত্রী হওয়ার জন্য প্রচুর স্ট্রাগল করতে হয়। কেয়া রহমানকে সবাই সংগীতশিল্পী হিসেবে চেনেন। তিনি ‘ক্লোজআপ ওয়ান: তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ’ প্রতিযোগিতার মধ্যে দিয়ে বিনোদন অঙ্গনে যাত্রা শুরু করেন। এই সিরিজের মধ্যদিয়ে তার অভিনয়ে অভিষেক হচ্ছে। এতে তাকে দেখা যাবে একজন সংগীতশিল্পীর ভূমিকায়। মডেল অভিনেত্রী সাফা কবিরকে মডেলিংয়ে বেশি দেখা গেলেও এই সিরিজে তিনি অভিনয় করছেন টিভি উপস্থাপকের ভূমিকায়। লাক্স সুন্দরী প্রতিযোগিতায় প্রথম হওয়া নাদিয়াকে দেখা যাবে মডেল চরিত্রে। অন্যদিকে অন্বেষা অভিনয়ে নতুন হলেও ‘সুপার গার্লস’ সিরিজে তিনি অভিনয় করেছেন বাস্কেটবল খেলোয়াড় চরিত্রে। ব্যক্তিজীবনেও তিনি এই খেলায় পারদর্শী।

জানা গেছে, বেশ বড় আয়োজন নিয়ে শুরু হয়েছে ‘সুপার গালর্স’। এই সিরিজটির সূচনাসংগীত নিয়ে কাজ করেছেন ব্যন্ডদল চিরকুট। পরিচালক তানিম রহমান অংশু জানিয়েছেন, ‘একটি প্রপার টিভি সিরিজের জন্য যে ধরণের ট্রিটমেন্ট দরকার তার পুরোটা করার চেষ্টা করছি। যে কারণে এটি অন্য টিভি সিরিজগুলোর চেয়ে আলাদা হবে।’ আসছে এপ্রিলের শুরুতে জিটিভিতে প্রতি সপ্তাহে ৬দিনে ৬টি পর্ব প্রচার হবে। পাশাপাশি সপ্তমদিনে পুরো গল্পটি একত্রে প্রচার হবে বলে জানা যায়।