Home প্রতিবেদন শাহ সিমেন্ট সুইট হোম জিয়াউলের স্থাপত্য ভুবন

জিয়াউলের স্থাপত্য ভুবন

SHARE
Asif-Ziaul-(1)

আলো, বাতাস, প্রকৃতি ও মানুষের প্রতি মমত্ববোধ নিয়ে স্থাপত্য শিল্পে যারা দেশের জন্য কাজ করে চলেছেন তাদের মধ্যে জিয়াউল হক অন্যতম। ১৯৯৩ সালে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) থেকে স্থাপত্য বিষয়ে ব্যাচেলর অব আর্কিটেকচার ডিগ্রি লাভ করেন। পাস করে বের হওয়ার পর পরই পাঁচ সহকর্মীকে সঙ্গে নিয়ে গড়ে তোলেন ইন্টার কনসালটেন্ট লিমিটেড নামের একটি কনসালটেন্সি ফার্ম। ২০০৪ সালে নিজেই গড়ে তোলেন ‘আর্কিটেক্টস লিমিটেড’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। এযাবৎ তিনি বেশ কিছু দৃষ্টিনন্দন স্থাপনার ডিজাইন ও ইন্টেরিয়র করেছেন। ডিজাইনের পাশাপাশি বেশকিছু প্রজেক্টের কনস্ট্রাকশনের কাজও করেছেন তিনি। স্কুল জীবনে ছবি আঁকাআঁকিতে পারদর্শী ছিলেন। খেলাধুলা ছিল তার পছন্দের বিষয়। ফুটবল ভালো খেলতেন। এবার শাহ্ সিমেন্ট সুইট হোমে তাকে নিয়েই প্রতিবেদন লিখেছেন- মোহাম্মদ তারেক।

স্থাপত্য একদিকে যেমন দৃষ্টিনন্দন শিল্প মাধ্যম অপর দিকে এর রয়েছে ব্যবহারিক উপযোগিতা। এই জন্য স্থাপত্যকে বলা হয় ব্যবহারিক শিল্প। বাংলাদেশে স্থাপত্য শিল্পের পথিকৃৎ স্থপতি মাজহারুল ইসলাম প্রায়ই বলতেন বাংলাদেশের স্থাপত্য হবে আলো, হাওয়া এবং জননির্ভর। নদী মাতৃক এই দেশের স্থাপত্য তাই হতে হবে খোলামেলা এবং ষড়ঋতুকে বিবেচনায় রেখেই। কথাগুলো বললেন স্থপতি জিয়াউল হক। ছয় ভাই বোনের মধ্যে জিয়াউল চতুর্থ। তার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লা জেলায়। কিন্তু তার জন্ম ও বেড়ে ওঠা চন্দ্রঘোনায়। জিয়াউলের বাবার নাম শামসুল হক। তিনি কর্ণফুলী পেপার মিলস-এর কর্মকর্তা ছিলেন। মা চেমন আরা বেগম একজন গৃহিণী। ছোটবেলা থেকেই সাংস্কৃতিক কর্মকাÐের সাথে জড়িত ছিলেন। শিশু সংগঠন খেলাঘর করতেন। স্কুল জীবনে ফুটবল ভালো খেলতেন। ছবি আঁকাআঁকিতে পারদর্শী ছিলেন।
কর্ণফুলী পেপার মিলস হাইস্কুল থেকে তিনি এসএসসি পাস করেন ১৯৮২ সালে। ১৯৮৪ সালে চট্টগ্রাম কলেজ থেকে কৃতিত্বের সঙ্গে এইচএসসি পাস করে ভর্তি হন বুয়েটের স্থাপত্য বিভাগে। জিয়াউল হক ব্যাচেলর অব আর্কিটেকচার ডিগ্রি লাভ করেন ১৯৯৩ সালে। পাস করে বের হওয়ার কিছুদিন পর জিয়াউল পাঁচ সহকর্মীকে সঙ্গে নিয়ে গড়ে তোলেন ইন্টার কনসালটেন্ট লিমিটেড নামের একটি কনসালটেন্সি ফার্ম। তারপর ১৯৯৭ সালে সিনিয়র স্থপতি ফারুক হোসেনের সঙ্গে ৫ বছর কাজ করেন। ২০০৪ সালে স্থপতি জিয়াউল হক নিজেই গড়ে তোলেন ‘আর্কিটেক্টস লিমিটেড’ নামের একটি কনসালটেন্সি ফার্ম। ধানমন্ডিতে তিনি খুব সুন্দর একটি অফিস সাজিয়েছেন। তার প্রতিষ্ঠানে অভিজ্ঞ স্থপতি, ইঞ্জিনিয়ারসহ মোট ২০জন কর্মী কাজ করছেন।
Vacation-Homeইতোমধ্যে জিয়াউল হক দেশের নামকরা ফ্যাক্টরী, কলেজ, হসপিটাল, শপিং কমপ্লেক্স, শো-রুম, অফিস বিল্ডিংসহ অসংখ্য বিল্ডিংয়ের ডিজাইন ও ইন্টেরিয়র করেছেন। তার উল্লেখযোগ্য কাজের মধ্যে রয়েছেÑ নারায়ণগঞ্জে রূপগঞ্জের তাঁত বাজার, পল্টনের বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা অফিসের ডিজাইন, ইন্টেরিয়র ও কনস্ট্রাকশন, রূপগঞ্জের টিএমআর নিট ফেব্রিক্স ফ্যাক্টরী, টঙ্গীর রূপা কম্পোজিট নিট ডাইং ফ্যাক্টরী, চট্টগ্রামের আগ্রাবাদের সাউথ ল্যান্ড সেন্টার শপিং কমপ্লেক্স, গুলশানের প্রাইম ভিউ, পিবিএল টাওয়ার বিল্ডিং, বসুন্ধরা গ্রæপের অফিসের ইন্টেরিয়র ও কনস্ট্রাকশন, বরিশালের বাকেরগঞ্জের রূপা গ্রæপের চেয়ারম্যানের বাড়ি, আতাহার উদ্দিন হাওলাদার কলেজ, ধানমন্ডির সাউথ ব্রিজের সাউথ প্রাইট অ্যাপার্টমেন্ট, বনানীর নাভানা রিয়েল এস্টেটের নাভানা হোমস, পল্লবীর ছায়া পল্লব অ্যাপার্টমেন্ট, জিগাতলার সীমান্ত স্কয়ারের ব্যাবিলন গ্রæপের শোরুমের ডিজাইন, ইন্টেরিয়র ও কনস্ট্রাকশন, উত্তরার র‌্যাপার ফাস্ট ফুড, সুলতানা ড্রীম, গরীবে নেওয়াজ ভিলা, রূপা নিটওয়ার প্রাইভেট লিমিটেডের ফ্যাক্টরী, বাকেরগঞ্জের আতাহার উদ্দিন হাসপাতাল, পল্লবীর মায়াকুঞ্জ অ্যাপার্টমেন্ট, উত্তরার আমেরাল কর্ণার অ্যাপার্টমেন্টসহ অসংখ্য ভবনের ডিজাইন, ইন্টেরিয়র ও কনস্ট্রাকশনের কাজ করেছেন। বর্তমানে তিনি বেশকিছু নতুন প্রজেক্টের কাজ নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন। স্থপতি জিয়াউল হক তার সব ধরনের কাজ স্থাপত্য নীতি ও রাজউকের নিয়ম মেনেই করেন। ১৯৯৮ সালে তিনি বিয়ে করেন। স্ত্রীর নাম ডা: সালমা সুলতানা। তিনি ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক। এই দম্পতি দুই সন্তানের জনক-জননী।
স্থপতি জিয়াউল হক বলেন, স্থাপত্য নক্সার ক্ষেত্রে আমি খেয়াল রাখি যাতে ভবনের যে কোনো জায়গা থেকে বাইরের সময়টা অনুভব করা যায়। ভবনে পর্যাপ্ত আলো-বাতাস চলাচল যে কোনো ভালো স্থাপত্যের অন্যতম পূর্বশর্ত। স্থাপত্যের ব্যবহারিক দিকটা আমার কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যে প্রয়োজনে স্থাপনাটি নির্মিত হচ্ছে, ব্যবহারকারীরা যাতে স্বাচ্ছন্দ্যে তা ব্যবহার করতে পারেন সেটা সর্বোচ্চ বিবেচনায় রাখতে হবে। কোনো জটিলতা নয় বরং সরল এবং জুতসই নির্মাণ কাঠামো আমাকে বেশি আকর্ষণ করে। স্থাপত্যের ভাষা প্রকাশের ক্ষেত্রে আধুনিকতা আমার পছন্দ।
বাংলাদেশের আবহাওয়া, জলবায়ু ও প্রকৃতিকে ঠিক রেখে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের ডিজাইনের দিকে নজর দেন স্থাপতি জিয়াউল হক। এই স্থপতি তার নিজের কাজ সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে করতে ভালোবাসেন। নিজের পেশার কাছে দায়বদ্ধ থেকে সেটাকে সততার সঙ্গে শেষ করতে চান।