Home আরোও বিভাগ টিভি গাইড চলতি বছরই ছবির যাবতীয় কাজ শেষ হবে

চলতি বছরই ছবির যাবতীয় কাজ শেষ হবে

SHARE

প্রচার চলতি কিছু ধারাবাহিকের শুটিং ও চলচ্চিত্র পরিচালনা নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন অভিনেতা তৌকীর আহমেদ। নতুন আরেকটি ছবির কাজ নিয়েও রয়েছে ব্যস্ততা। অভিনয় ও সমসাময়িক বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন তিনি।

আনন্দ আলো: এখনকার ব্যস্ততা কী নিয়ে?

তৌকীর আহমেদ: এখন ‘অজ্ঞাতনামা’ চলচ্চিত্রটি নিয়েই ব্যস্ত রয়েছি। এটি আমার চতুর্থ ছবি। পোস্ট প্রোডাকশনের কাজ বাকি ছিল। তাও প্রায় শেষের দিকে। আগামী বছরের শুরুতে ছবিটি মুক্তি পাবে। এরইমধ্যে ‘অজ্ঞাতনামা’ ছবির কালার কারেকশনের জন্য ভারত গিয়েছিলাম। এখন ছবির ফাইনাল মিক্সিং চলছে। চলতি বছরের মধ্যেই এর যাবতীয় কাজ শেষ হবে বলে আশা করছি। তাই এখন থেকেই ছবি মুক্তি দেয়ার প্রাথমিক প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছি।

আনন্দ আলো: ছবির গল্প কী নিয়ে?

তৌকীর আহমেদ: ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজিত ‘অজ্ঞাতনামা’র গল্প, চিত্রনাট্য ও সংলাপ আমি নিজেই রচনা করেছি। বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের উল্লেখযোগ্য একটি অংশ মধ্যপ্রাচ্যে কাজ করে। এতে সেই প্রবাসীদের জীবনের একটি অধ্যায় তুলে ধরা হয়েছে। দীর্ঘ ৮ বছর পর চলচ্চিত্র নির্মাণ করলাম। ২০০৪ সালে আমি প্রথম চলচ্চিত্র ‘জয়যাত্রা’ নির্মাণ করি। এরপর ২০০৬ সালে ‘রূপকথার গল্প’ নির্মাণ করেছি। তা ছাড়া সর্বশেষ হুমায়ূন আহমেদের গল্প নিয়ে ‘দারুচিনি দ্বীপ’ ছবিটি নির্মাণ করেছি।

আনন্দ আলো: পরবর্তী ছবি নিয়েও নাকি কাজ শুরু করছেন?

তৌকীর আহমেদ: বর্তমানে আমি আমার পরবর্তী প্রজেক্ট নিয়ে পরিকল্পনা করছি। ‘অজ্ঞাতনামা’ মুক্তির পরপরই এ ছবির কাজ শুরু করব। আপাতত এ বিষয়ে আর কিছু বলতে চাইছি না। সবকিছু ঠিক হলে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিষয়টি সবাইকে জানিয়ে দেব।

আনন্দ আলো: আপনার অভিনীত এটিএন বাংলায় ‘জলপ্রপাত’ ধারাবাহিক প্রচার হচ্ছে

তৌকীর আহমেদ: হ্যাঁ। এ ধারাবাহিকে আমি পেশায় একজন ড্রাইভার। একটি বিপদ থেকে মুক্তি পেতে আমেরিকায় পাড়ি জমাই। কিন্তু ওখানে পৌঁছে দেখি, যে মালিকের কাজ নিয়ে এসেছি তিনি মারা গেছেন। এরপর ঘটনাক্রমে আমার সঙ্গে এক বাংলাদেশি তরুণীর দেখা হয়। আমি তার বাড়িতে আশ্রয় নেই। এভাবেই নানা নাটকীয়তার মধ্য দিয়ে ধারাবাহিকটি এগিয়ে যাচ্ছে।