ক্রিকেটে  কাব্য স্যালুট

ক্রিকেটে  কাব্য স্যালুট

949
SHARE
shakib

কেউ যদি কারও সাথে অহেতুক অসৌজন্যমূলক ব্যবহার করে বা বাজে আচরণ করে ভুক্তভোগী যদি সেই বাজে আচরণের জবাবে সম্মান জানায় তাহলে অপমানকারী বা বাজে আচরণকারী যেই হোকনা কেন আত্ম াঘায় ভুগবেন বা মনবেদনায় কষ্ট পাবেন। সৃজনশীল ও অভিজাত মানুষেরা যুগ যুগ ধরে এভাবেই ভুল মানুষদের সম্মান জানিয়ে শুধরে দিচ্ছেন।

সাম্প্রতিককালের অস্থির পৃথিবীতে সম্মান জানিয়ে কাউকে শুধরে দেয়া ব্যতিক্রম ঘটনা হলেও ভদ্রলোক ও অভিজাত মানুষের খেলা ক্রিকেটে কিন্তু ঠিকই হরহামেশা ঘটছে এমন ঘটনা। ৩০ অক্টোবর ঢাকায় অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ ইংল্যান্ড দ্বিতীয় টেস্টের দ্বিতীয় দিন বেন স্টোকসকে আউট করার পর সাকিব আল হাসান স্যালুট করেন ইংলিশ এই মেজাজি অলরাউন্ডারকে। তার পরই এই স্যালুট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসে।

ক্রিকেট ইতিহাসে এমন অনেক ঘটনা আছে সেখানে বাজে আচরণ বা উত্ত্যক্তকারী ক্রিকেটারকে ভদ্র আচরণ করার জন্য সম্মান জানানো হয়েছে। শুরুটা হয়েছিল ২০১৫ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে ইংল্যান্ডের টেস্ট ক্রিকেট ম্যাচ চলার সময়। ব্যাট করছিলেন ইংল্যান্ডের বেন স্টোকস। পাশেই ফিল্ডিং করছিলেন অলরাউন্ডার মার্লন স্যামুয়েল। বারবার স্টোকস ব্যাট হাতে স্যামুয়েলের দিকে তাকিয়ে বলছিলেন দেখ কীভাবে ব্যাট করতে হয় শিখে নাও, কিছুই তো পারো না। এ ধরনের কথায় চরম অপমান বোধ করছিলেন স্যামুয়েল। কিছুক্ষণ পর তারই বলে বেন স্টোকস আউট হওয়ার পর স্যামুয়েল স্যালুট করেন ইংলিশ এই অলরাউন্ডারকে। এই খবর তখন সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে।

এ ঘটনার পর স্যালুট যেন ক্রিকেট দুনিয়ায় প্রতিবাদের ভাষা হয়ে উঠে। পাকিস্তান ক্রিকেট দল এবছরই ইংল্যান্ড সফর করে। সফরের শুরুতেই পাকিস্তানকে তুলোধুনো করতে থাকে ইংলিশ মিডিয়া এবং  ইংলিশ ক্রিকেটাররা। দর্শকদের কেউ কেউ ক্রিকেটারদের সন্ত্রাসী বলে গাল দেয়। তিন টেস্ট সিরিজের একটিতে জয়ী হওয়ার পর মেজবাউল হকের নেতৃত্বে পুরো দল মাঠেই আর্মিদের মতো দাঁড়িয়ে ইংলিশ দল ও দর্শকদের স্যালুট করে। এই স্যালুট দৃশ্য পুরো বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ার পর ইংলিশদের সমালোচনাও করেছে ক্রিকেটবোদ্ধারা।

ইংলিশ অলরাউন্ডার বেন স্টোকস ক্রিকেট স্যালুটের মহানায়ক। তার বদমেজাজের কারণে নিজ দেশে নিজ দলের ক্রিকেটারদেরও স্যালুট পেয়েছেন। একটি ম্যাচে শতরান করার পর ম্যান অব দ্য মাচ পুরস্কার পান স্টোকস। এরপর তাকে, স্যালুট ঠোকেন সতীর্থ জো রুট। খুশি না হয়ে রুটের দিকে মেজাজ তিরিক্ষি করে তেড়ে গিয়েছিলেন স্টোকস।

ক্রিকেটে স্যালুট নিয়ে এত মাতামাতি অথচ এর মধ্যে ভারতীয় ক্রিকেটাররা থাকবেন না তা কি হয়। ভারতের ক্রিকেট দলের সফল অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি একটি ঘটনার প্রেক্ষিতে সামরিক পোশাক পরে স্যালুট করছেন।

salotএত গেল ক্রিকেট বিশ্বের স্যালুট বাতচিত এবার আসা যাক বাংলাদেশের প্রসঙ্গে। ইংল্যান্ডের সঙ্গে দ্বিতীয় টেস্ট জয় করার পর সাকিব আল হাসানের স্যালুট দৃশ্যটি আনন্দ উৎসবের প্রধান অনুসঙ্গ হয়ে উঠে সারা বাংলাদেশে। বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই স্যালুট ভাইরাল হয় দেশ-বিদেশে। মাঠে বসে একদল তরুণী বাঘিনী বেশে স্যালুট দিয়ে সেলফি তুলে ফেসবুকে ছড়িয়ে দিয়েছে। এই ছবিটি ভারতের জনপ্রিয় বাংলা দৈনিক আজকাল পত্রিকার খেলার পাতায় ৮ কলামে প্রকাশিত হয়। বাংলাদেশে দায়িত্ব প্রাপ্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শিয়াত বার্নিকাট সাকিবের স্যালুটকে সম্মান দেখিয়ে তার স্যালুটের ছবি প্রকাশ করেন আমেরিকান দূতাবাসের ওয়েবসাইটে। অনেক টিভি, সঙ্গীত ও চলচ্চিত্র তারকা নিজেদের এবং সাকিবের স্যালুুটের ছবি ফেসবুক প্রোফাইলে ব্যবহার করছেন। যেমন টিভি অভিনেতা ইরেশ যাকের ও রওনক হাসানসহ অনেকে তাদের ফেসবুক প্রোফাইলে স্যালুটের ছবি ব্যবহার করেছে।

অনেকের কাছে রহস্য যে, সাকিব আল হাসান কেন বেন স্টোকসের উইকেট পাওয়ার পর স্যালুট ঠুকেছিলেন? সে বিষয়ে কিন্তু এখনো তিনি কিছু বলেননি। তবে তার স্ত্রী শিশির নিজের ফেসবুকে মজা করে বলেছেন, বাসায় আসার পর সাকিব প্রায়ই তাকে এইভাবে স্যালুট দেন। বাংলাদেশের ক্রিকেট ভক্ত লাখ লাখ মানুষ তাদের সাম্প্রতিক পিকচার প্রোফাইল পরিবর্তন করে কেউ নিজের স্যালুটের ছবি কেউবা সাকিব আল হাসানের ছবি ব্যবহার করছেন। কারো সঙ্গে সামনা সামনি দেখা হলেই স্যালুট বিনিময় করছেন। বিশেষ করে তরুণ ক্রিকেট প্রেমী দর্শকরা এ ব্যাপারে বেশি এগিয়ে। স্যালুট দেয়ার বিষয়ে এখন শিশুরাও পিছিয়ে নেই। শিশুরাও স্যালুট দিয়ে ছবি তুলছে। স্কুল-কলেজেও ছাত্ররা স্যালুট বিনিময় করছে বন্ধুদের সঙ্গে।

শুধু আমাদের দেশে নয়, ইংল্যান্ডের প্রভাবশালী দৈনিক ডেইলী মেইলের স্পোর্টস পাতায় এবং গার্ডিয়ান পত্রিকার ক্রিকেট বিভাগে বেন স্টোকসকে স্যালুট দেয়ার কথা উঠে এসেছে। সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, বাংলাদেশের সঙ্গে ইংল্যান্ড প্রথম টেস্ট খেলার সময় উইকেট পাওয়ার পর বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের আনন্দ উদযাপন ইংলিশদের কাছে অতিরঞ্জিত মনে হয়েছে। তাই ঢাকায় অনুষ্ঠিত শেষ টেস্টের সময় আম্পায়ার দু’দলকে আনন্দ উদযাপনে সতর্ক করে দেয়ার পর সাকিব আল হাসান স্যালুট দিয়ে আনন্দ উদযাপন করেছেন।