কোথায় গেলেন অপু

কোথায় গেলেন অপু

2233
SHARE
Apu-Biswas

চলচ্চিত্রের সংকটময় সময়ে হাল ধরেছিলেন শাকিব ও অপু বিশ্বাস জুটি। অসংখ্য ছবিতে দু’জনের অভিনয় প্রশংসিত হয়েছে। কিন্তু হঠাৎ করেই অপু বিশ্বাস কোথায় যেন হারিয়ে গেলেন। রোজার আগে থেকে তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তার খোঁজে সাংবাদিকরা অপুর আত্মীয়স্বজন ও নিজ শহর বগুড়া পর্যনৱ গিয়েও অপুর কোনো খবর পাওয়া যায়নি। গুলশানের নিকেতনে অপুর নিজস্ব প্রতিষ্ঠান এপিএস লেডিস ফিটনেস ক্লাবেও খোঁজ নিয়ে কোনো হদিস পাওয়া যায়নি। বর্তমানে ক্লাবটিতে বড় তালা ঝুলছে। আশে পাশের কেউ কিছু বলতে পারছেনা। অনেকেই বলছেন অপু বিশ্বাস আত্মগোপন করেছেন। অভিমান, ক্ষোভ ও হতাশায় তিনি এ কাজটি করেছেন। ঈদের বেশ কিছুদিন আগে তার অভিনীতি ছবির কাজ শেষ করেছেন। একটি ছবিতে চুক্তি বদ্ধ হয়েও পরে ছবির সাইনিং মানি ফেরৎ দিয়েছেন। তখন পরিচালককে বলেছিলেন ছবির চরিত্র অনুযায়ী তার যে ধরনের ফিগার থাকা উচিৎ তা নেই।

এবারের ঈদে অপুবিশ্বাস অভিনীত মোসৱফা কামাল রাজ অভিনীতি সম্রাট মুক্তি পেয়েছে। ছবিতে তার নায়ক শাকিব খান। অনেকেই বলাবলি করছেন অপুবিশ্বাস লন্ডনে চলে গেছেন। সেখান থেকে কবে আসবেন তা কেউ বলতে পারছেন না।

স্যারকে নিয়ে বিশেষ স্মৃতি

খুব সম্ভবত ১৯৯৯ সাল। আমি এফডিসিতে ‘ভয়ংকর বিষু’ সিনেমার কাজ করছি। শুটিংয়ে হঠাৎ সানোয়ার নামে একজন লোক আমার সঙ্গে দেখা করতে এলেন। হুমায়ূন আহমেদ স্যারের সহকারী পরিচয় দিয়ে তিনি বললেন, ‘স্যার আপনার সঙ্গে দেখা করতে চান।’ তাঁকে বললাম, কী বলছেন এসব? আমি তো তাঁর সাংঘাতিক ভক্ত। প্রিয় মানুষের কাছ থেকে এমন দাওয়াত পেয়ে আমি তো তখন শুধু খুশি নই ভিশন খুশি। পরদিন শুটিং থেকে ঘণ্টা খানেক সময় বের করে স্যারের সঙ্গে দেখা করতে কাকরাইলে নুহাশ চলচ্চিত্রের অফিসে গেলাম। তিনি বেশ কিছুক্ষণ আমার দিকে তাকিয়ে ছিলেন। আমিও তাকিয়ে আছি। হঠাৎ চোখাচোখি হতেই। স্যার মুচকি হেসে বললেন, ‘কী খবর রিয়াজ? কেমন আছ? আমি একটা সিনেমা বানাব। রহস্যমানব চরিত্র। তুমি কি সেই ছবিতে কাজ করবে?’ পাল্টা তাঁকে বললাম, আমি এলাম আপনার সঙ্গে দেখা করতে। এসেই তো সারপ্রাইজড! ঘোরের মধ্যে শিডিউলও দিয়ে দিলাম তাঁকে। ফিরে এসে আবার শুটিংয়ে ব্যসৱ হয়ে পড়লাম। এর মধ্যে ভেবে দেখলাম, আমার কাজের যে অবস্থা, তাতে শুটিংয়ের জন্য তো কোনো দিন খালি নেই। ওদিকে স্যারকে তো সিডিউল দিয়ে দিলাম এবার পড়লাম মহাফাঁপরে।

একদিন শুটিং শেষে রাত ১০টার পর কাউকে না জানিয়ে নুহাশ চলচ্চিত্রে চলে গেলাম। গিয়ে দেখি শুটিংয়ের সব রেডি করে রেখেছেন স্যার। কী বলব, বুঝতে পারছিলাম না। স্যারকে বললাম, একটা সমস্যা আছে। আমি তো কাজটা করতে চাই, কিন্তু শিডিউল বের করতে পারছি না। যদি কিছু মনে না করেন, আমার তো ওই ছবির শুটিংয়ে রাত ১০টা পর্যনৱ শিডিউল দেওয়া। এরপর যদি আপনি ম্যানেজ করতে পারেন, তাহলে আমি আপনার কাজটি করতে পারব। তিনি আমাকে জিজ্ঞেস করলেন, ‘এখন তোমার কোনো সমস্যা আছে?’ আমি ‘না’ বলার সঙ্গে সঙ্গে তখনই শুটিং শুরু করলেন। প্রথম দিনের শুটিং রাত ১২টায় শুরু করে শেষ হয় সকাল ৯টায়। সকাল ৯টায় ‘দুই দুয়ারী’ সিনেমার শুটিং শেষ করে নুহাশপল্লী থেকে বেড়িয়ে বজরায় চড়লাম। পুরোটা সময় বজরায় ঘুমালাম। এক ঘণ্টা পর গাজীপুরের একটা জায়গায় এলাম। সেখানে আমার গাড়ি অপেক্ষা করছিল। এরপর গাড়িতে সোজা এফডিসিতে। এই সময়টাও ঘুমিয়ে নিতাম। এভাবেই টানা পাঁচ দিন চলল। এ গুলো আমার স্যারকে নিয়ে বিশেষ স্মৃতি। তাঁর সঙ্গে আড্ডাটা দারুণ জমতো। কখনো ধানমন্ডির দখিন হাওয়ায়, আবার কখনো নুহাশপল্লীতে। মাঝে মধ্যে এই স্মৃতিগুলো মনে হতেই কষ্ট লাগে।

তিশার উচিৎ চলচ্চিত্রে নিয়মিত হওয়া

Tishaএবারের ঈদে মেন্টাল দ্য রানা পাগলা ছবিটি ব্যবসা করে মূলত ভালো গল্প ও ছবির শিল্পীদের ভালো অভিনয়ের জন্য। বিশেষ করে ছবিতে টিভি তারকা তিশার সুঅভিনয় দর্শকদের বেশি আকর্ষন করেছেন। এ প্রসঙ্গে ছবির নায়ক শাকিব খান বলেন, ছবিতে অসাধারন অভিনয় করেছেন তিশা। তিনি একজন পরীক্ষিত অভিনেত্রী, নাটকে অভিনয় করে এতদিন টিভি দর্শকদের আনন্দ দিয়েছেন এবার মেন্টাল ছবিতে অভিনয় করে সিনেমা দর্শকদের মাতিয়েছেন। তিনি আলো বলেন, তিশার উচিৎ এখন টিভি পর্দা ছেড়ে চলচ্চিত্রে নিয়মিত অভিনয় করা। নায়িকা সংকটের এই সময়ে তিশা চলচ্চিত্রের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য তারকা হয়ে উঠতে পারেন। তিশার জন্য এটা অনেক বড় সুযোগ এই সুযোগ তার কাজে লাগানো উচিৎ।

উল্লেখ্য, মেন্টাল দ্য রানা পাগলা তিশা-শাকিব অভিনীত প্রথম ছবি। তার অভিনীত প্রথম ছবি মোসৱফা সরয়ার ফারুকী অভিনীত থার্ড পারসন সিঙ্গুলার নাম্বার। এ বছর তিনি আরেফিন শুভর বিপরীতে অসিৱত্ব নামে একটি ছবিতে অভিনয় করে প্রশংসতি হয়েছেন।

সমালোচনা করায় মিশা বাদ

ক্ষোভ থেকেই জনপ্রিয় খলনায়ক মিশা সওদাগরকে সরিয়ে কলকাতার খলনায়ক রজতাভ দত্তকে কাষ্ট করলেন নির্মাতা শামীম আহমেদ রনি। নতুন সিনেমা ‘বসগিরি’তে মিশার পরিবর্তে কলকাতার দাপুটে অভিনেতা রজতাভ দত্ত ২০ জুলাই থেকে শুটিং করছেন বলে জানা গেছে। এছাড়া এ ছবিতে বেশকিছু দৃশ্যের শুটিংয়ে অংশ নেয়া মিশা সওদাগরের অভিনয় বাদ দিয়ে সেগুলোতে এখন রজতাভ দত্ত ওরফে রনির দৃশ্যধারণ চলছে। এ প্রসঙ্গে মিশা সওদাগরের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির স্বার্থে কথা বলি। এজন্য যদি কেউ আমাকে পছন্দ না করেন তাতে আমার কিছু করার নেই।

উল্লেখ্য, কিছুদিন আগে নির্মাতা শামীম আহমেদ রনি পরিচালিত ‘রানা পাগলা- দ্য মেন্টাল’ ছবি মুক্তির পর মিশা গল্প জটিলতার অভিযোগ আনেন। পাশাপাশি ছবিতে নির্মাণের নানা অসঙ্গতি নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকারও দেন। আর এতেই নাকি ক্ষেপেছেন ছবির পরিচালক রনি। এ কারনে বসগিরি থেকে মিশাকে বাদ দিয়ে নেয়া হল রজতাভ দত্তকে।

সুদিনের আভাস

কাঠমান্ডু ও এর আশপাশের বেশ কয়েকটি জায়গায় টানা এক সপ্তাহ চলবে অনন্য মামুনের ‘আমি তোমার হতে চাই’ ছবির শুটিং। প্রথমে ইন্দোনেশিয়ার বালিতে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ভিসা-জটিলতার কারণে তা আর হলো না। তাই নেপালে যাচ্ছেন নায়িকা বিদ্যা সিনহা মিম সঙ্গে সহশিল্পী বাপ্পি ও মিশা সওদাগর। সেখানে ভারত থেকে ছবির আরেক শিল্পী রাখি সাওয়ানৱও যোগ দেবেন। রাখি ভারতে বিতর্কিত অভিনেত্রী। এ প্রসঙ্গে মিম বলেন বিতর্কিত কিনা জানা নেই। তবে আইটেম-কন্যা হিসেবে ভারতে তিনি পরিচিত। তাঁর নাচ ও অভিব্যক্তি খুব ভালো বলে জানি। এবারের ঈদের ছবি নিয়ে মিম বলেন, আবার সবাই হলমুখী হচ্ছেন দর্শক। বাংলা সিনেমা দেখছেন। ঈদের সময় বিভিন্ন চ্যানেলের খবরে আর অনুষ্ঠানে দেখেছি সিনেমা দেখতে প্রেক্ষাগৃহে দর্শকের উপচে পড়া ভিড়। তখন খুবই আনন্দ হচ্ছিল।

স্বামীকে গাড়ি ও মটর সাইকেল উপহার

পরনে লাল বেনারসি শাড়ি। গলা ও হাতে ৫০ ভরি গয়না। নবাবি মঞ্চে বসে হাস্যোজ্জ্বল কনে অতিথিদের সঙ্গে বিনিময় করছেন শুভেচ্ছা। এক পাশে চলছে কাওয়ালি। সুরের মূর্ছনায় ভরপুর অনুষ্ঠানস্থল। পুরো অঙ্গন যেন মনোমুগ্ধকর। কনে নায়িকা মাহিয়া মাহি। ঢাকা সেনানিবাসের এক কনভেনশন সেন্টারে শুরু হওয়া তাঁর বিবাহোত্তর সংবর্ধনায় সৃষ্টি হয়েছে এমন রোমাঞ্চকর দৃশ্য। রাত পৌনে আটটার দিকে অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছান মাহি। গাড়ি থেকে নামতেই শুরু হয় ঢাকঢোলের শব্দ। বেজে উঠে সুর। তাঁর মুখের অভিব্যক্তিই তখন বলে দিচ্ছিল, নতুন জীবনে প্রবেশের আনুষ্ঠানিকতায় কতটা রোমাঞ্চিত তিনি। সাজানো গেট দিয়ে ঢুকে বসেন পালকিতে। সেই পালকিতে করে তাঁকে নবাবি মঞ্চে নিয়ে যান তারকা দম্পতি মৌসুমি ও ওমর সানি। মঞ্চে উঠে একে একে গ্রহণ করতে থাকেন অতিথিদের শুভেচ্ছা ও অভিবাদন। মঞ্চের ঠিক নিচেই বর-কনের ছবির বোর্ড। এর পাশেই বিয়ের অনুষ্ঠান দেখার জন্য বড় পর্দা। অনুষ্ঠানে অতিথিদের মধ্যে পরিচালক সোহানুর রহমান সোহান, শাফিউদ্দিন শাফি, নায়ক সম্রাট, বাপ্পী, তারকা দম্পতি অননৱ জলিল ও বর্ষাসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।বিয়ে উপলক্ষ্যে স্বামীকে একটি গাড়ি এবং একটি মোটরসাইকেল উপহার দিয়েছেন মাহি। মাহির পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, সাদা রঙের মিতসুবিশি গাড়িটির মূল্য প্রায় ৪০ লাখ টাকা। এবং ধূসর রঙের সুজুকি মোটরসাইকেলটির মূল্য আড়াই লাখ টাকা।

কেলোর কীর্তি নিয়ে নানান কীর্তি

Kelor-Kirtiবাংলাদেশ ও ভারতের চলচ্চিত্র আমদানি-রপ্তানির নিয়ম অনুযায়ী কলকাতায় মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশি পরিচালক উত্তম আকাশের ‘রাজা ৪২০’ ছবিটি। গত ১৯ জুন ছবিটি কলকাতায় পাঠানো হয়। কিন্তু ছবি আমদানির শর্ত অনুযায়ী, রপ্তানি করা ‘রাজা ৪২০’ ছবিটি প্রথমে সেন্সর হয়ে কলকাতায় প্রদর্শিত হতে হবে। এরপর কলকাতার একটি ছবি বাংলাদেশে আমদানি করতে পারবে আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান। কিন্তু আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান মাত্র পাঁচ দিন পরই আমদানির জন্য ‘কেলোর কীর্তি’ ছবির অর্ডার দেয়। তাই আইনসংগত অর্ডার না হওয়ার কারণে বাংলাদেশের আদালত এ ছবির মুক্তি বন্ধ করার আদেশ দেন এর বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রীট করলে সেখানেও এই আদেশ বহাল থাকে। ২২ জুলাই বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে ‘কেলোর কীর্তি’ ছবিটি মুক্তি দেওয়ার পরিকল্পনা ছিল ছবিটির আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান আরাধনা এন্টারপ্রাইজের। সেই হিসেবে সেন্সর ছাড়পত্রের জন্যও জমা পড়ে ছবিটি। ‘কেলোর কীর্তি’ ছবিটি পরিচালনা করেছেন রাজা চন্দ। এতে অভিনয় করেছেন দেব, মিমি চক্রবর্তী, যীশু সেনগুপ্ত, অঙ্কুশ হাজরা, সায়নিৱকা বন্দ্যোপাধ্যায়, নুসরাত জাহান, কৌশানী মুখোপাধ্যায়, রুদ্রনীল ঘোষ প্রমুখ। এটি তামিল ছবি ‘চার্লি চ্যাপলিন’-এর রিমেক। এদিকে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞার উপর আপিল করলে আপিল বোর্ড নিষেধাজ্ঞা স্থগিত করে। গত ২০ জুলাই চলচ্চিত্রটি প্রদর্শনের ওপর ছয় মাসের স্থগিতাদেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে এই ছবির প্রদর্শন করা কেন অবৈধ হবে না, তা জানতে চেয়ে চার সপ্তাহের জন্য রুল জারি করা হয়েছিল। কিন্তু আপিল বিভাগের নিষেধাজ্ঞার ফলে এখন আর ছবিটি প্রদশনে আর কোনো বাধা রইলনা। এখন যে কোনো শুক্রবার ছবিটি বাংলাদেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে।