Home আরোও বিভাগ স্মরণ কবি না ফেরার দেশে অনেক ভালো থাকবেন

কবি না ফেরার দেশে অনেক ভালো থাকবেন

SHARE
Belal-Chowdhury

ফরিদুর রেজা সাগর
বেলাল চৌধুরী, আমাদের বাংলা কবিতার বিশুদ্ধ কারিগর চলে গেলেন না ফেরার দেশে। এটাই নিয়ম। জন্মের পর মৃত্যুও অনিবার্য। কিন্তু কিছু মৃত্যু সহজেই মেনে নেয়া যায় না। বেলাল চৌধুরী তাদেরই একজন। তিনি অসুস্থ ছিলেন। কিন্তু ভাবিনি এত তাড়াতাড়ি আমাদের ছেড়ে চলে যাবেন। তাঁর মৃত্যু সংবাদ শুনে মনে মনে বিদায়ের কথা বলতে গিয়ে আবেগ লুকাতে পারিনি। বেলাল চৌধুরী, আমাদের অতি আপনজন। আর আসবেন না চ্যানেল আই ভবনে। তার সঙ্গে আর তুখোড় আড্ডা হবে না। মৃদু হাসি ছড়িয়ে তাঁর মতো করে কেউ আর বলবেন নাÑ সাগর কেমন আছো?
আজ কত স্মৃতি কত কথা মনে পড়ছে। তিনি দীর্ঘ বছর ‘ভারত বিচিত্রা’ প্রতিকার সম্পাদনার দায়িত্ব পালন করেছেন। আমাদের তখন তরুণ বয়স। বেলাল চৌধুরী পরম মমতায় আমাদেরকে সাহিত্যের সৃজনশীল পথে হাঁটা শিখিয়েছেন। তিনি ছিলেন বেশ খোলামেলা স্বভাবের মানুষ। যে কোনো আড্ডায় তিনি হয়ে উঠতেন সবার মধ্যমণি। অনেকের ধারণা বেলাল চৌধুরী ছিলেন বহিমিয়ান টাইপের মানুষ। আমি তাদের সঙ্গে একমত নই। বেলাল চৌধুরীর জীবন ছিল অত্যন্ত গোছানো, সুশৃঙ্খল। সুন্দরের পক্ষে ছিল তার অনন্ত সাধনা।
আমাদের কবি বেলাল চৌধুরীর জন্ম ১৯৩৮ সালের ১২ নভেম্বর। বাবা রফিক উদ্দিন আহমেদ ও মা মুনিরা আখতার খাতুন চৌধুরানীর ৯ সন্তানের মধ্যে তিনি ছিলেন প্রথম। ষাটের দশকের মাঝামাঝি তিনি ভারতের কলকাতায় যান। পশ্চিমবঙ্গের প্রখ্যাত সাহিত্যপত্র ‘কৃত্তিবাস’ এর সম্পাদক ছিলেন। দেশে ফেরেন স্বাধীনতার পর। বিশিষ্ট কবি কথাসাহিত্যিক সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়সহ কলকাতার নামকরা কবি সাহিত্যিকের সঙ্গে তার ছিল প্রগাঢ় বন্ধুত্ব। সে কারণে তিনি বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বাঙালি কবি, লেখকদের মধ্যে একটা সেতুবন্ধ রচনা করেছিলেন। প্রয়াত লেখক হুমায়ূন আহমেদ ও সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের মধ্যে বন্ধুত্বের সেতুবন্ধ তৈরি করে দিয়েছিলেন আমাদের প্রিয় কবি বেলাল চৌধুরী। কলকাতা থেকে দেশে ফিরে ঢাকায় দীর্ঘ সময় ভারত বিচিত্রা পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। পরে সাপ্তাহিক স›দ্বীপ ও সন্ধানী পত্রিকার সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন।
সাহিত্য কর্মে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ একুশে পদক, বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কারসহ একাধিক পুরস্কার পেয়েছেন বেলাল চৌধুরী। তাঁর মৃত্যুতে আমাদের বাংলা সাহিত্যে যে শূন্যতা সৃষ্টি হলো তা হয়তো আর পূরণ করা সম্ভব হবে না। আমরা যেন প্রিয় কবিকে ভুলে না যাই। না ফেরার দেশে অনেক ভালো থাকবেন বেলাল চৌধুরী। আমিন, সুম্মা আমিন…