Home শীর্ষ কাহিনি ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ চ্যাম্পিয়ন ঢাকার মেয়ে নুসরাত সায়েম

ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ চ্যাম্পিয়ন ঢাকার মেয়ে নুসরাত সায়েম

SHARE
top-4

‘বাংলায় জাগো ভরপুর’ প্রতিপাদ্য নিয়ে ইস্পাহানি মির্জাপুর ও চ্যানেল আই আয়োজন করেছিল বাংলাভাষার শুদ্ধ উচ্চারণ, বানান ও ব্যাকরণের সঠিক ব্যবহার ছড়িয়ে দিতে বাংলাভাষা বিষয়ক মেধাভিত্তিক টিভি রিয়েলিটি শো ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ-২০১৭’ এর চ্যাম্পিয়ন হয়েছে চ্যাম্পিয়ন ঢাকার মেয়ে নুসরাত সায়েম। এ প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় হয়েছে সিরাজুল আরেফিন (খুলনা) এবং যৌথভাবে তৃতীয় হয়েছে রাইসা সালসাবিল (লক্ষীপুর) ও সোয়েব আনিয়াদ খান তুর্য (পাবনা)। শীর্ষস্থান অধিকারী প্রতিযোগী পুরস্কার হিসেবে পেয়েছে ১০ লাখ টাকার মেধাবৃত্তি। দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারীকে দেয়া হয়েছে যথাক্রমে ৩ লাখ টাকা ও ২ লাখ টাকার মেধাবৃত্তি। এক থেকে দশম স্থান অধিকারী প্রত্যেকে পেয়েছে ৫০ হাজার টাকার সমমূল্যের ১টি করে ল্যাপটপ এবং ব্যক্তিগত লাইব্রেরি গড়ে তোলার জন্য বাংলা বই ও একটি করে বই রাখার আলমারি। এ প্রতিযোগিতার মহোৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে ১৫ সেপ্টেম্বর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে। ৩৫ হাজার প্রতিযোগি থেকে সর্বশেষ টিকে থাকা ৬জন প্রতিযোগিকে নিয়ে অনুষ্ঠিত হয় এ মহোৎসব অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন চ্যানেল আই-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন পরিচালক ও বার্তাপ্রধান শাইখ সিরাজ এবং এমএম ইস্পাহানি লি. এর মহা-ব্যবস্থাপক ওমর হান্নান।

বিজয়ীর হাতে পুরস্কার তুলে দিয়েছেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, চ্যানেল আই-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজ সাগর, ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’ মহোৎসবের অতিথি বিচারক এবং চ্যানেল আই-এর পরিচালক ও বার্তাপ্রধান শাইখ সিরাজ, এম এম ইস্পাহানি লি. এর উপদেষ্টা জাহিদা ইস্পাহানি ও ইস্পাহানি ফুড লি. এর পরিচালক আলী ইস্পাহানি, প্রতিযোগিতার বিচারক ড. সৌমিত্র শেখর, সুবর্ণা মুস্তাফা প্রমুখ। প্রতিযোগিতার আরেক বিচারক আনিসুল হক বিশেষ কারণে উপস্থিত না থাকতে পারলেও ভিডিও বার্তায় বিজয়ীদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। বিজয়ীদের নাম ঘোষণার আগমুহূর্তে মঞ্চে এসে সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর ‘নূরুলদীন এর সারাজীবন’ থেকে অংশ বিশেষ আবৃত্তি করেন।

অনুষ্ঠানের সূচনা হয় প্রতিযোগিতার থিম-সং ‘বাংলা আমার এক ঠিকানা’ পরিবেশনের মধ্য দিয়ে। পুরো অনুষ্ঠানজুড়ে ছিলো নানান চমক। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলা নিয়ে ছিলো বিশেষ গেম শো রাউন্ড। গেম শোগুলোর মধ্যে ছিলো- আমার পছন্দ, গানে গানে খেলা, হিজিবিজি, প্রতিদিনের ভূলগুলি, আমার কথা বুঝতে পার এবং মূকাভিনেতা রাজের অভিনয় পর্ব। বাংলাভাষাকে সম্মৃদ্ধ করেছে নানান ধরনের দেশাতœবোধক গান। সেইরকম একটি গান ‘একটি বাংলাদেশ তুমি জাগ্রত জনতার…’ পরিবেশন করেছেন উপমহাদেশের বিখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী বাংলাদেশের গর্ব সাবিনা ইয়াসমিন। গানটি গেয়ে শোনার আগে সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, সেরা ৬জন প্রতিযোগি গানটি খুব মনোযোগ দিয়ে শুনতে হবে। কারণ, এই গান থেকে কিছু প্রশ্ন থাকবে তোমাদের জন্য। যে প্রশ্নগুলোর উত্তর তোমাদের চূড়ান্ত স্থান নির্ধারণে নম্বরের ভিত্তিতে এগিয়ে নিবে। অনুষ্ঠানে ‘আগুনের পরশমনি…’ গানটি পবিশেন করেন রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা। গানটি পরিবেশনের পাশাপাশি ছিলো মনোমুগ্ধকর নৃত্য যা, পরিবেশন করেছেন চ্যানেল আই সেরা নাচিয়ে তুষার ও তার দল। এর আগে প্রতিযোগিতাটির শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত কিছু অংশ বিশেষ দেখানো হয়। একদল নৃত্যশিল্পীর অংশগ্রহণে কাজী নজরুল ইসলামের ‘চল চল চল’ কবিতার আবৃত্তি করেন আবৃত্তিশিল্পী মাহিদুল ইসলাম। ‘মহোৎসব’ অনুষ্ঠানটি ঐদিন সন্ধ্যা ৭.৩৫ মিনিট থেকে সরাসরি স¤প্রচার করেছে চ্যানেল আই। ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’ উপস্থাপনা করেছেন খায়রুল বাশার এবং পরিচালনা করেছেন তাহের শিপন।

সেরা ৬জন প্রতিযোগি হলেন- সোয়েব আনিয়াদ খান তুর্য (পাবনা), সিরাজুল আরিফিন (খুলনা), রাইসা সালসাবিল (লক্ষীপুর), নুসরাত সায়েম (ঢাকা), প্রতীক পনতীর্থ (সিলেট) ও সমর্পন বিশ্বাস (খুলনা)। দশম স্থান অধিকারী অন্য চার জন প্রতিযোগি- পার্থ প্রতীম দাস প্রিতম, সালে মাহমুদ তানিম, রোকাইয়া ইসলাম ও আলভী আমীন।