আমাদের নাটকের মান অনেক ভালো

আমাদের নাটকের মান অনেক ভালো

SHARE

নতুন বিজ্ঞাপন, খণ্ড ও ধারাবাহিক নাটকের শুটিং নিয়ে ব্যসত্ম রয়েছেন অভিনেতা আহসান হাবীব নাসিম। কথা হলো তার সঙ্গে-

আনন্দ আলো: নতুন কী করছেন?

নাসিম: আরএফএল-এর নতুন একটি বিজ্ঞাপনে কাজ করেছি। সানবীম আশরাফের নির্দেশনায় নির্মিত বিজ্ঞাপনটিতে আমার সঙ্গে সহশিল্পী ছিলেন জেনী। এছাড়াও কিছু নতুন ধারাবাহিক নাটকের শুটিং করছি। আর প্রচার চলতি ধারাবাহিক নাটক ‘নীড় খোঁজে গাঙচিল’, ‘ঘোমটা’সহ অন্যান্য নাটকের শুটিং করতে হচ্ছে।

আনন্দ আলো: চলো হারিয়ে যাই নাটকে আপনাকে পুলিশের চরিত্রে দেখা যাচ্ছে…

নাসিম: হ্যাঁ। এনটিভিতে প্রচার হওয়া সাইফুল ইসলাম মান্নুর পরিচালনায় নাটক ‘চলো হারিয়ে যাই’তে আমাকে পুলিশের চরিত্রে অভিনয় করতে দেয়া যায়। আমি প্রথম পুলিশের চরিত্রে অভিনয় করি বিটিভিতে ‘দৌঁড়’ নাটকে।

আনন্দ আলো: অনেকেই বলছেন আমাদের টিভি নাটকের দর্শক কমে যাচ্ছে। আপনি বিষয়টাকে কিভাবে দেখেন?

নাসিম: টিভি নাটকের দর্শক কমে গেছে আমি এটা মনেকরি না। তবে আমাদের চ্যানেলের বিজ্ঞাপন ব্যবস্থাপনার কারণে নাটক দেখে দর্শক আনন্দ পাচ্ছে না। তাই তাঁরা বাধ্য হয়ে রিমোর্ট চেপে অন্য দেশের টিভি চ্যানেলে চলে যাচ্ছে। আমাকে পরিচিতজন এবং বন্ধু-বান্ধব বলে থাকেন অমুক নাটকটি দেখতে গিয়ে বিজ্ঞাপনের জন্য শেষ পর্যনত্ম আর দেখা হয়নি। খবর চলে এসেছে ইত্যাদি ইত্যাদি। তবে হ্যাঁ এটা সত্যি যে, আমাদের দেশের মানুষ বিদেশি চ্যানেল বেশি দেখছেন। আমাদের নিজেদের চ্যানেল দেখার সুযোগ করে দিলে ঠিকই দর্শক দেখবেন। কারণ আমাদের প্রোডাকশনের মান অনেক ভালো।

আনন্দ আলো: চলচ্চিত্রের কী খবর?

নাসিম: আমি প্রথম চলচ্চিত্রে অভিনয় করি ২০০৫ সালে। তৌকীর আহমেদের পরিচালনায় ‘জয়যাত্রা’ ছবিতে অভিনয় করি। এরপর ২০১২ সালে ‘পুতুল কথা’ শিরোনামের একটি স্বল্পদৈর্ঘ্যের ছবিতে অভিনয় করি। এতে আমি একজন সাংবাদিকের চরিত্রে অভিনয় করি। এটি কানাডায় মুক্তি দেয়া হয়। ইতোমধ্যে কয়েকটি ছবিতে অভিনয়ের কথা হচ্ছে। দেখা যাক কী হয়।

বাবার বইয়ের প্রচ্ছদ আঁকলেন মেয়ে!

BIPASHA-AND-ABUL-HAYAT-(1)নন্দিত অভিনেত্রী বিপাশা হায়াত আসছে একুশের বইমেলায় ‘নির্বাচিত গল্প সংকলন’ শীর্ষক একটি গ্রন্থের প্রচ্ছদ এঁকেছেন। বইটি লিখেছেন তাঁর পিতা বিশিষ্ট অভিনেতা-নির্মাতা আবুল হায়াত। বইটিতে ১২টি গল্প স্থান পেয়েছে। গল্পগুলোর শিরোনাম হচ্ছে- ‘জল ডুবা’, ‘দেয়াল’, ‘অন্যকিছু’, ‘অচেনা’, ‘তারা’ প্রভৃতি। বইটি একুশে বইমেলার দ্বিতীয় সপ্তাহে পাওয়া যাবে বলে আবুল হায়াত জানান। বিপাশার প্রচ্ছদ আঁকা নিয়ে আবুল হায়াত আরো বলেন, ‘ছাত্রাবস্থায় বিপাশা প্রথম আমার বইয়ের প্রচ্ছদ এঁকেছিল। তাছাড়া আমিও শুরু থেকে চেয়েছি আমার বইয়ের প্রচ্ছদ যেন বিপাশাই আঁকে। শুরুতে এটা ছিল আমার শখ। আর এখন তা রীতিমতো চাওয়ায় পরিণত হয়েছে। তাছাড়া বিপাশা তো এখন অনেক পরিণত শিল্পী।’ এদিকে, বিপাশা বর্তমানে ছবি আঁকা নিয়েই বেশি ব্যসত্ম রয়েছেন। ২০১১ সালে তার আঁকা ছবি নিয়ে প্রথমবারের মতো একটি একক প্রদর্শনী হয়েছে। ইতিমধ্যে তিনি ‘ভ্রমি বিস্ময়ে’, ‘রি-আল্মস অব মেমোরি’, ও ‘স্মৃতির রাজ্যে’ শিরোনামে আরো ৩টি প্রদর্শনী করেছেন।

চ্যানেল আই এর প্রশংসায় চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি

Shakib-Khanবাংলা চলচ্চিত্রের মুকুটহীন রাজা নায়ক রাজ রাজ্জাক-এর ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে চ্যানেল আই তিন দিনব্যাপী ভিন্নমাত্রার অনুষ্ঠান আয়োজন করেছিলো। একজন শিল্পীর জন্য চ্যানেল আই-এর এমন ভালোবাসার ভূয়সী প্রশংসা করেছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি শাকিব খানের স্বাক্ষর সম্বলিত চ্যানেল আই-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর বরাবর প্রেরণকৃত এক বার্তায় ধন্যবাদ জ্ঞাপন ও প্রশংসা করা হয়। বার্তায় জানানো হয়, ‘শিল্পীদের প্রতি চ্যানেল আইয়ের গভীর ভালোবাসা বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সকল সদস্যদের আরো অনুপ্রাণিত করবে। নায়করাজ রাজ্জাকের প্রতি আপনাদের এই অকৃত্রিম শ্রদ্ধা জানানোর বিষয় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি চিরদিন স্মরণ রাখবে।’ চ্যানেল আই-এর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে নায়করাজ রাজ্জাক সর্বসত্মরের মানুষের শ্রদ্ধার পাত্র। তাঁর সম্মানে চ্যানেল আইয়ের বিশেষ আয়োজন সকলের ভাল লেগেছে জেনে চ্যানেল আই পরিবারও আনন্দিত।