আনোয়ার হোসেনই নবাব ছিলেন…

আনোয়ার হোসেনই নবাব ছিলেন…

77
SHARE
Anowar-hossain

ভালো অভিনয় করতেন

আচ্ছা, আমরা তো প্রতিদিন আয়নায় নিজেকে দেখি। শুধুই কী নিজেদেরকে দেখি? এর বাইরের জগৎটা কেমন? এই যে আমাদের প্রিয় দেশ, যুদ্ধ করে পাওয়া জন্মভ‚মি… এর কতটুকু জানি আমরা? হঠাৎ ফেসবুক-এ শেয়ার দেয়া একটি সাক্ষাৎকার ভিত্তিক অনুষ্ঠান দেখে শুধু অবাক নয়, বিস্মিত হতে হলো। বাংলাদেশে বিভাগ কয়টা? এই প্রশ্নটাই কয়েকজনকে করা হয়েছে। পড়–ন তাদের উত্তরগুলো কেমন ছিল।

প্রশ্ন: বাংলাদেশে বিভাগ কয়টা?

শপিং মলে দাঁড়ানো দুই তরুণীর উত্তর: একজন বললেন বিভাগ…? ২৫টি…

একই প্রশ্ন আরেক তরুণীকে। সে উত্তর দিল ৬টা। পাশেই দাঁড়ানো একজন তরুণ বলল- ৭টা। রাস্তার ধারে দু’জন মহিলাকে প্রশ্ন করা হলো বয়স্ক যিনি তিনি উত্তরে বললেনÑ ৬টা। তার পাশে দাঁড়ানো একজন তরুণী আমতা-আমতা সুরে বললেনÑ এখন বোধহয় ৭টা…

একজন তরুণকে প্রশ্ন করা হলে সে বিজ্ঞের মতো জবাব দিল… এই মুহূর্তে… আমি যখন দেশে আসি, মানে… ইয়ে বিভাগের সংখ্যা সিক্সটি ফোর…

আরেক তরুণ ইংরেজি স্টাইলে ‘বিভাগ’ উচ্চারণ করে বললÑ বিভাগ… আই থিং সিক্সটি ফোর… আবারও একটি শপিংমলে একজন মহিলাকে একই প্রশ্ন করা হলো।

বাংলাদেশে আসলে বিভাগ কয়টা? মহিলা ভেবে নিয়ে বললেনÑ ৬টা।

প্রশ্ন: নামগুলো বলতে পারবেন?

মহিলার সহজ সরল স্বীকারোক্তিÑ না, বলতে পারব না।

এবার একটি আন্তর্জাতিক মানের হোটেলের সামনে কোট টাই পরা একজন তরুণকে একই প্রশ্ন করা হলো।

উত্তরে সে বললÑ বিভাগ… ৬৪…

প্রশ্ন কর্তা সঠিক বলে দিলেন, বিভাগ নয় জেলা ৬৪টি।

যাকে প্রশ্ন করা হয়েছিল সে বত্রিশপাটি দাঁত বের করে বললÑ হ্যাঁ হ্যাঁ বিভাগ নয় জেলা ৬৪টি। আর বিভাগ হলো… ৭টা।

এক তরুণীকে একই প্রশ্ন করা হলো। তিনিও ভেবে নিয়ে বিজ্ঞের মতো বললেনÑ ৬টা।

প্রশ্ন কর্তা: নামগুলো বলতে পারবেন?

তরুণীর উত্তর: এইরে… পারব না।

এবার এক তরুণকে প্রশ্ন করতেই তিনি নিজের অবস্থানটা আগে বুঝাতে চাইলেনÑ আমি ১০ বছর হলো দেশে এসেছি। বেশি কিছু বলতে পারব না। তবে আমার ধারণা বিভাগ হলো সিক্সটি ফোর…

পাশাপাশি দাঁড়ানো দু’জন তরুণীকে একই প্রশ্ন করতেই একজন অন্যজনকে প্রশ্ন করলোÑ অ্যাই কয়টা বিভাগ বলোতো? অন্যজন উত্তর দিলÑ আমার ধারণা ৭টা। সঙ্গে সঙ্গেই আগের জন শুধরে দেয়ার চেষ্টা করে বললÑ না, না ৬টা। পাশের জন্য বললÑ তাহলে ৬টা। এবার আগের জন বললÑ বিভাগের সংখ্যা বেড়েছে নাকি? আমি বলতে পারব না…

এবার বেশ কয়েকজন তরুণ-তরুণী বিভাগ হিসেবে কুমিল্লার নাম বলল। যশোর, নোয়াখালীর নামও বলল কয়েকজন।

এবার বাংলাদেশের সাহিত্য সংস্কৃতি নিয়ে কিছু প্রশ্ন করা হলো।

প্রশ্ন কর্তা: (একজন তরুণের উদ্দেশে) বাংলাদেশের পাঁচজন সাহিত্যিকের নাম বলেন?

তরুণের তাৎক্ষণিক উত্তর: হুমায়ূন আহমেদ, জাফর ইকবাল, ইমদাদুল হক মিলন, সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়…

প্রশ্ন কর্তা: (অবাক হয়ে জানতে চাইলেন) সুনীল কি আমাদের দেশের সাহিত্যিক?

তরুণ: (অবাক) সুনীল আমাদের দেশের সাহিত্যিক না?

প্রশ্ন কর্তা: (এবার দু’জন মহিলাকে প্রশ্ন করলেন) বাংলাদেশের ৫ জন কবির নাম বলতে পারবেন?

উত্তরদাতা: (পরস্পরের মধ্যে ভাব বিনিময় করে বয়স্ক যিনি তিনি উত্তর দিলেন) রবীন্দ্রনাথ, নজরুল… আর পারব না।

প্রশ্ন কর্তা: বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস কত তারিখে? এবারও দু’জনের মধ্যে শলাপরামর্শ শুরু হলো। একজন বললেনÑ আমার মনে হয় ১৬ ডিসেম্বর। সঙ্গে সঙ্গেই অন্যজন শুধরে দিয়ে বললÑ না, না ২৬ মার্চ… তারিখটি আসলে কত এ নিয়ে তাদের তর্ক চলতেই থাকলো।

প্রশ্ন কর্তা: (কলেজগামী এক ছাত্রকে) নবাব সিরাজদ্দৌলার নাম শুনেছেন?

উত্তরদাতা: হ্যাঁ।

প্রশ্ন কর্তা: তার নাম কী?

উত্তরদাতা: (বিজ্ঞের ভঙ্গিতে) তার নাম আনোয়ার হোসেন। ভালো অভিনয় করেন…

প্রিয় পাঠক: অব দ্য রেকর্ড প্রশ্ন এইসব মেধাবী মানুষদের নিয়া আমরা আসলে কতদূর যাইব?