আনত্মর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম ২৬ সিনেমার ৮৫টি পুরস্কার লাভ

আনত্মর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম ২৬ সিনেমার ৮৫টি পুরস্কার লাভ

945
SHARE

দেশের খ্যাতিমান চলচ্চিত্র প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ইমপ্রেস টেলিফিল্ম লিমিটেড। এই প্রতিষ্ঠানের ২৬টি চলচ্চিত্র এ পর্যনত্ম ৮৫টি আনত্মর্জাতিক চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেছে। এছাড়া ইমপ্রেস প্রযোজিত এ পর্যনত্ম মুক্তিপ্রাপ্ত শতাধিক সিনেমার মধ্যে বেশ কিছু সিনেমা বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসবে অংশ নিয়ে প্রশংসিত হয়। এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন, ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজিত ছবি (১৯৯৪ থেকে ২০১৪) ১৫৫টি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করে। এছাড়াও দেশের উল্লেখযোগ্য সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের পুরস্কার পায় ইমপ্রেসের ৬০টি ছবি।

আনত্মর্জাতিক পুরস্কার পাওয়া ইমপ্রেসের ২৬টি ছবির মধ্যে চাষী নজরুল পরিচালিত ‘মেঘের পরে মেঘ’ ইন্দো বাংলাদেশ কালার মিউজিক আনত্মর্জাতিক অ্যাওয়ার্ড ২০০৪ পেয়েছে বেস্ট ফিল্ম, বেস্ট ডিরেক্টর ও বেস্ট একট্রেস। ২০০৪ সালে ৫ম বাংলাদেশ ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল, লন্ডন-এ মোসত্মফা সরয়ার ফারুকীর ‘ব্যাচেলর’ পেয়েছে কনটেম্পরারী ট্রেন্ড সেকশন অ্যাওয়ার্ড। একই বছর ২য়? আনত্মর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল-এ ছবিটি পেয়েছে অডিয়েন্স অ্যাওয়ার্ড ও তৌকীর আহমেদ পরিচালিত ‘জয়যাত্রা’ পেয়েছে সেরা ছবির পুরস্কার। পঞ্চম বাংলাদেশ ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল লন্ডন-এ মোরশেদুল ইসলামের ‘দুরত্ব’ ৬ষ্ঠ বাংলাদেশ ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল ২০০৫ লন্ডন-এ হুমায়ূন আহমেদের ‘শ্যামল ছায়া’ পেয়েছে বেস্ট কনটেম্পোরারী সিনেমার পুরস্কার। ২০০৫ সালে ‘শ্যামল ছায়া’ বিদেশী ভাষা ক্যাটাগরিতে বাংলাদেশ থেকে অস্কার মনোনয়ন পায়। কালার অ্যাওয়ার্ড ২০০৫-এ মতিন রহমানের ‘রাক্ষুসী’ পায় সেরা সঙ্গীত শিল্পীর পুরস্কার। ২০০৬ সালে ৩৮ ইন্ডিয়ান ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল গোয়ায় আবু সায়ীদ পরিচালিত ‘নিরনত্মর’ বেস্ট ফিল্ম ও বেস্ট ডিরেক্টরের পুরস্কার লাভ করে। ‘নিরনত্মর’ ২০০৬ সালে বিদেশী ভাষার ছবির ক্যাটাগরিতে বাংলাদেশ থেকে অস্কার মনোনয়ন পায়। একই বছর ভারতের কেরালা ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে সেরা ছবির পুরস্কার পায়। একই বছর ৭ম ঢাকা আনত্মর্জাতিক ফিল্ম ফেষ্টিভ্যালে অডিয়েন্স অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে। এরপরের বছর একই ফেস্টিভ্যালে কাজী মোর্শেদের ‘ঘানি’ সেরা চলচ্চিত্রের পুরস্কার পায়। ৯ম রেইনবো আনত্মর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব লন্ডন-এ ‘ঘানি’ বেস্ট অডিয়েন্স অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে। ৮ম রেইনবো ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে মোসত্মফা সরয়ার ফারুকীর ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ স্পেশাল মেনশন অ্যাওয়ার্ড পায়। ৩৮তম ইন্ডিয়ান আনত্মর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল গোয়া ২০০৬-এ গোলাম রব্বানী বিপ্লবের ‘স্বপ্নডানা’ জুরিবোর্ড অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে।

একই বছর ১০তম সাংহাই আনত্মর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ‘স্বপ্নডানা’ নতুন সেরা পরিচালকের পুরস্কার অর্জন করে। ২০০৭ সালে ‘স্বপ্নডানা’ বিদেশী ভাষার ছবির ক্যাটাগরিতে বাংলাদেশ থেকে অস্কার মনোনয়ন পায়। ২০১০ সালে তৌকীর আহমেদ পরিচালিত ‘দারুচিনি দ্বীপ’ ১১তম বালী আনত্মর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ৫টি সেরা ছবির একটি নির্বাচিত হয়। একই বছর মুরাদ পারভেজ পরিচালিত ‘চন্দ্রগ্রহণ’ ১০তম রেইনবো ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল, লন্ডন-এ সেরা ছবির পুরস্কার অর্জন করে। ২০০৯ সালে গোলাম রব্বানী বিপ্লবের ‘বৃত্তের বাইরে’ ৮ম থার্ড আই এশিয়ান ফিল্ম ফেস্টভ্যাল মুম্বাইতে সেরা চলচ্চিত্র নির্বাচিত হয়। একই বছর বিদেশী ভাষার ছবির ক্যাটাগরিতে ‘বৃত্তের বাইরে’ বাংলাদেশ থেকে অস্কার মনোনয়ন পায়। ২৮তম ফাকির ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল অংশ নেয় (তেহরান) একই বছর ‘থার্ড পারসন সিঙ্গুলার নাম্বার’ দুবাইতে অনুষ্ঠিত আবুধাবী ফিল্ম ফেস্টভ্যালে অংশ নেয়।

১১তম ঢাকা আনত্মর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে খালিদ মাহমুদ মিঠুর ‘গহীনে শব্দ’ সেরা ছবির পুরস্কার অর্জন করে। ১১ তম রেইনবো ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল লন্ডন-এ ‘গহীনে শব্দ’ সেরা ছবি ও স্পেশাল মেনশন অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে। এ ছাড়া ২০১০ সালে ‘গহীনে শব্দ’ ওকানগান আনত্মর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল কানাডায় সেরা ছবি, সাইলেন্ট রিভার ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল ২০১১ (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) এ সেরা ছবি, সেরা শিশু শিল্পী ও সেরা প্রধান অভিনেতার পুরস্কার পায়। থার্ড ওয়ার্ল্ড ইনডিপেনডেন্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র)-এ সেরা পরিচালকের পুরস্কার পায়। ২০১০ সালে লন্ডনে অনুষ্ঠিত লন্ডন ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ‘গহীনে শব্দ’ মেনশন অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে। একই বছর বাংলাদেশ ভারত যৌথ প্রযোজনার ছবি গৌতম ঘোষ পরিচালিত ‘মনের মানুষ’ ৪১তম ইন্ডিয়ান ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল গোয়াতে সেরা ছবির পুরস্কার অর্জন করে। ২০১০ সালের ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-এ সেরা ছবির পুরস্কার পেয়েছে বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত গৌতম ঘোষের ‘মনের মানুষ’।

মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক ছবি নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চুর ‘গেরিলা’ ১৭তম কলকাতা ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল ২০১১-এ নিটপ্যাক অ্যাওয়ার্ড ফর বেস্ট এশিয়ান ছবির পুরস্কার অর্জন করে। ২০১২ সালে কলকাতার পূর্ব পশ্চিম ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড-এ ছবির নায়িকা জয়া আহসান সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার অর্জন করেন। ২০১২ সালে ঢাকা আনত্মর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল-এ ‘গেরিলা’ সেরা ফিল্ম পপুলার চয়েস, সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার অর্জন করে।

২০১৩ সালে মোসত্মফার সরয়ার ফারুকীর ‘পিঁপড়া বিদ্যা’ কলকাতার এনইটিপিএসি পুরস্কার অর্জন করে।

Impress-Telefim৩য় নেপাল হিউম্যান রাইটস ইন্টান্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল-এ শাহনাজ কাকলীর ‘উত্তরের সুর’ স্পেশাল মেনশন অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে। একই বছর একই উৎসবে হুমায়ূন আহমেদের ‘ঘেটুপুত্র কমলা’ সেরা ছবির পুরস্কার অর্জন করে। ২০১৪ সালে মুম্বাই ইনডিপেনডেন্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল-এ খালিদ মাহমুদ মিঠুর ‘জোনাকীর আলো’ সেরা ছবির পুরস্কার অর্জন করে। একই বছর ছবিটি বাসভ আনত্মর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল রোমানিয়া ২০১৪ তে সেরা পরিচালকের পুরস্কার অর্জন করে। থার্ড ওয়ার্ন্ড ইনডেপেনডেন্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) সেরা ফিল্ম ও সেরা ডেব্যু  অভিনেতার পুরস্কার এবং ১২তম এশিয়ান ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল মুম্বাই ২০১৪ তে অডিয়েন্স অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে জোনাকীর আলো। ২০১৪ সালে ‘জোনাকীর আলো’ বিদেশী ভাষা ক্যাটাগরিতে অস্কার মনোনয়ন পায়।

আবু শাহেদ ইমন পরিচালিত ‘জালালের গল্প’ ১৯তম বুসান ইন্টানন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল এশিয়ান সিনেমা ফান্ড ফর পোস্ট প্রোডাকশন্স অর্জন করে। ২০১৫ সালে ছবিটি ৭ম জয়পুর ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল ইন্ডিয়ায় বেস্ট ডেব্যু ডিরেক্টরের পুরস্কার অর্জন করে। একই বছর ছবিটি ১৯তম আভানজা আনত্মর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল পর্তুগাল-এ বেস্ট ফিচার ফিল্ম ও সেরা অভিনেতার পুরস্কার অর্জন করে। ২০তম কেরালা ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল-এ বেস্ট ডেব্যু ডিরেক্টর এর পুরস্কার অর্জন করে।

আশরাফ শিশির পরিচালিত ‘গাড়িওয়ালা’ ৩য় নর্থ ক্যারোলাইনা গ্লোবাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল (ইউএসএ) ২০১৫ তে বেস্ট স্ক্রীন প্লেষ্টোরী বেস্ট সার্পোটিং অ্যাক্টর ও বেস্ট চাইন্ড অ্যাক্টর পুরস্কার অর্জন করে। ২০১৫ সালে অনুষ্ঠিত ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল অব রাজস্থান (ভারত)-এ সেরা চলচ্চিত্রের পুরস্কার অর্জন করে। দি গালফ অব নেপল ইনডিপেনডেন্ট ফিল্ম ২০১৫ (ইটালী) তে ‘জালালের গল্প’ সেরা সিনেমার পুরস্কার অর্জন করে। একই বছর ৭ম টেরেন্টন ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল (নিউজার্সি)-এ জালালের গল্প মেনশন অ্যাওয়ার্ড ফর নেয়ারেটিভ ফিচার পুরস্কার অর্জন করে।

একই বছর ৭ম পিকনিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল সানটানডার, স্পেন-এ ‘গাড়িওয়ালা’ সেরা ছবির পুরস্কার অর্জন করে। ২০১৫ তে ৭ম ফেস্টিভ্যাল ইন্টারন্যাশনাল ডি সিনে ট্যারাপ্যাকা, চিলিতে সেরা চলচ্চিত্রের পুরস্কার অর্জন করে ‘গাড়িওয়ালা’। ওই বছর এনইজেড ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল কলকাতায় সেরা ছবি, সেরা শিশু চরিত্র ও সেরা পাশ্বচরিত্রের পুরস্কার অর্জন করে। সিনেরোকম ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল, হলিউড লাসভেগাস (ইউএসএ) ২০১৫ তে প্লাটিনাম অ্যাওয়ার্ড ফর বেস্ট ডিরেক্টর গোল্ড অ্যাওয়ার্ড, বেস্ট ইয়ং আর্টিস্ট, বেস্ট ইয়ং আটিস্ট এর পুরস্কার অর্জন করে।

২০১৫ তে সামার গ্লাম ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল টেক্সাস (ইউএমএ) তে গাড়িওয়ালা বিদেশী ভাষার সেরা জুরি পুরস্কার, ফ্যামিলি ফিচার জুরি অ্যাওয়ার্ড, জুরি অ্যাওয়ার্ড বেস্ট ক্রিন, জুরি অ্যাওয়ার্ড  ফর বেস্ট ড্রামটিক, এ্যাকট্রেস, জুরি অ্যাওয়ার্ড  ফর ফরেন ফিচার, জুরি অ্যাওয়ার্ড সিনেমাটোগ্রাফি, অডিয়েন্স চয়েজ ও বেস্ট ডকুমেন্টেশন অ্যাওয়ার্ড  অর্জন করেছে।

একই বছর স্পেনের বার্সোলোনার আনত্মর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে বেস্ট ডকুমেন্টেশন ও বেস্ট সিনেমাটোগ্রাফী অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে। ২০১৬ তে দ্বিতীয় ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে এলাহাবাদ ইন্ডিয়ায় বেস্ট স্টোরীর পুরস্কার অর্জন করে ‘গাড়িওয়ালা’। একই বছরে গৌতম ঘোষের ‘শঙ্খচিল’ ভারতের ৬৩ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের সেরা বাংলা ফিচার ফিল্মের পুরস্কার অর্জন করে।