অতীতের আয়নায় আগামীর সম্ভাবনা

অতীতের আয়নায় আগামীর সম্ভাবনা

444
0
SHARE
Fere-Dekha-2016

আনন্দ আলো প্রতিবেদন

অনেকে কথায় কথায় বলেন, যায় দিন ভালো, আসে দিন খারাপ। প্রায়শই আড্ডা, আলোচনায় শোনা যায় অতীত দিনটাই ভালো ছিল- সেই যে আমার নানান রংয়ের দিনগুলো। কেউ কেউ জোর দিয়েই বলার চেষ্টা করেন আমাদের কালটাই ভালো ছিল। এর সূত্র ধরেই আমরা ২০১৬ সালকে একবার স্মৃতির আয়নায় দেখতে চাই। কেমন গেল ২০১৬? কতদূর এগুলো আমাদের শোবিজ অর্থাৎ নাটক, চলচ্চিত্র, সঙ্গীত, খেলাধুলাসহ আমাদের বিস্তৃত সাংস্কৃতিক অঙ্গন?

হ্যাঁ, ২০১৬ সালকে স্মৃতির আয়নায় ফেললে সহজেই দেখা দিবে অনেকগুলো স্মৃতিময় ঘটনা।

প্রথমে টেলিভিশনের কথায় আসি। অহংকারের সঙ্গে এখন বলতে পারি আমাদের টেলিভিশন মাধ্যম অনেক বড় ও বিস্তৃত আকার ধারন করেছে। এক সময় ছিল শুধু সরকার নিয়ন্ত্রিত একমাত্র টেলিভিশন চ্যানেল বাংলাদেশ টেলিভিশন অর্থাৎ বিটিভি। বর্তমানে দেশে প্রায় ৩০টি টেলিভিশন চ্যানেল কার্যকর ভূমিকা পালন করছে। বাংলাদেশে টেলিভিশন মাধ্যমের নতুন যাত্রায় দর্শকের আগ্রহও বেড়েছে। বিশেষ করে দৈনন্দিন জীবনের যাবতীয় খবরাখবর পাওয়ার ক্ষেত্রে দেশের মানুষ এখন টেলিভিশন চ্যানেলের ওপরই ভরসা করে বেশি। অবশ্য সেই তুলনায় বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান বিশেষ করে নাটক ও টেলিফিল্ম, সিনেমার প্রতি দর্শকের আগ্রহ যেন একটু কমে গেছে। পাশের দেশের বাংলা ও হিন্দি ভাষার টিভি চ্যানেলের মানহীন কাহিনির নাটক, সিনেমার প্রতি এক শ্রেণির দর্শকের আগ্রহ এখন বিশেষভাবে উল্লেখ করার মতো। বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে বাংলায় ডাবিংকৃত বিদেশি টিভি সিরিয়াল চালু হওয়ায় বছরের শেষদিকে এর বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামে নাট্যকার, পরিচালক, অভিনেতা, অভিনেত্রী ও প্রযোজকসহ শোবিজ সংশ্লিষ্ট সকল শাখার প্রতিনিধি। এই আন্দোলনের অর্জন কতটুকু হয়েছে তা অবশ্য এখনই বলা যাচ্ছে না। তবে গত বছর ডিরেক্টরদের সংগঠন ডিরেক্টরস গিল্ড সংগঠিত রূপ নিয়েছে। প্রযোজকদের সংগঠনও বেশ ঐক্যবদ্ধ। অভিনয় শিল্পীরা তাদের সংগঠন ‘অভিনয় সংঘ’কে নতুন ভাবে সংগঠিত করার লক্ষ্যে নেতৃত্ব নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি শুরু করেছে। এক কথায় বলা যায় আমাদের শোবিজ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পর্যায়ের শিল্পী কলাকুশলী ঐক্যবদ্ধ হবার চেষ্টা করছেন। এখন দেখার পালা নতুন বছরের পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়। গত বছর বেসরকারি টিভি চ্যানেলের তালিকায় ডিবিসি ও নিউজ-২৪ নামে দুটি নতুন টেলিভিশন চ্যানেল আত্মপ্রকাশ করেছে।

আমাদের চলচ্চিত্র নিয়ে অনেকে হতাশা প্রকাশ করেন। তবে গত বছরটি ছিল আমাদের চলচ্চিত্রের জন্য একটি সম্ভাবনার বছর। ফ্রান্সে কান ফেস্টিভ্যালের বাণিজ্যিক শাখায় আমাদের দেশের দুটি চলচ্চিত্র যথাক্রমে অজ্ঞাতনামা ও আয়নাবাজি প্রদর্শিত হয়েছে। ইমপ্রেস-এর নতুন ছবি তৌকির আহমেদ পরিচালিত ‘অজ্ঞাতনামা’ গত বছর দেশের চলচ্চিত্র প্রেমী মানুষের মাঝে মুগ্ধতা ছড়িয়েছে। অমিতাভ রেজা পরিচালিত ‘আয়নাবাজি’ ছিল বছরের আরেক আলোচিত ছবি। এছাড়া ইমপ্রেস-এর আরও একটি ছবি গৌতম ঘোষ পরিচালিত ‘শঙ্খচিল’ বছর জুড়ে আলোচনায় ছিল। বাণিজ্যিক ধারার ছবির মধ্যে ‘শিকারি’,‘বাদশা’, ‘বসগিরি’, ‘রক্ত’সহ একাধিক ছবি দর্শকের মনযোগ কেড়েছে। বছরের শেষ দিকে বিশিষ্ট চলচ্চিত্র পরিচালক মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর নতুন ছবি ‘ডুব’ নিয়ে একটি বিতর্ক শুরু হয়েছে। ছবিটি মুক্তি পেলে বোঝা যাবে বিতর্কের যৌক্তিক কোনো কারণ ছিল কি ছিল না।

Fere-Dekha-1-2016ক্রীড়া ক্ষেত্রে গত বছরটি বেশ আলো ছড়িয়েছে। বিশেষ করে ক্রিকেটের অগ্রগতি ছিল আশাব্যঞ্জক। কাটার মাস্টার মুসৱাফিজুর রহমানসহ একাধিক তরুণ খেলোয়াড়ের আবির্ভাব ঘটেছে আমাদের ক্রিকেট অঙ্গনে। সবচেয়ে অহংকারের সংবাদ কাটার মাস্টার মুসৱাফিজ গত বছর আইসিসির উদীয়মান বর্ষ সেরা খেলোয়াড়ের স্বীকৃতি পেয়েছেন। গত বছর ক্রিকেটে মিরাজ নামে এক তরুণ খেলোয়াড়ের আগমনও ছিল বিশেষ ভাবে উল্লেখযোগ্য। ক্রিকেটে মেয়েদের অর্জনও ছিল আশাব্যঞ্জক। ক্রিকেটের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ অর্থাৎ বিপিএল-এর চতুর্থ আসর ছিল বেশ জমজমাট।

সঙ্গীতাঙ্গনেও অনেক আলো ছড়িয়েছে গত বছরটি। বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত উৎসব এবার আরও জমজমাট ছিল। চ্যানেল আই-এর উদ্যোগে ১লা ডিসেম্বরের ব্যান্ডফেস্ট সঙ্গীতাঙ্গনে ব্যাপক আগ্রহ ও উদ্দীপনার জন্ম দিয়েছে। এলআরবি’র ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে বিশেষ কনসার্ট ছিল একটি উল্লেখযোগ্য আয়োজন।

আশার মাঝেও হতাশাও ছিল। গল্প চুরির অভিযোগে গত বছরের শুরুতে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্ত একটি আলোচিত সিনেমার পুরস্কার বাতিল করা হয়। ‘বৃহন্নলা’ নামের এই ছবির গল্প চুরি করার অভিযোগ তোলা হয় ছবির পরিচালকের বিরুদ্ধে। চলচ্চিত্রের একজন নির্ভরযোগ্য অভিনেত্রী অপু বিশ্বাস রহস্যজনক ভাবে হঠাৎ করেই চলচ্চিত্রাঙ্গন থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন। ফলে তার অভিনীত বেশ কয়েকটি ছবির শ্যুটিং এখনও শেষ করা যায়নি। অভিনেত্রী ও পরিচালক রোকেয়া প্রাচীর অভিযোগের ভিত্তিতে অভিনেত্রী প্রসূন আজাদকে এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ করে ডিরেক্টরস গিল্ড। যদিও এর কোনো কার্যকর পদক্ষেপ লক্ষ্য করা যায়নি। প্রসূন যথারীতি বিভিন্ন পরিচালকের নাটক, টেলিফিল্মে নিয়মিত অভিনয় করে চলেছেন।

ইমপ্রেস-এর বিনোদন পাক্ষিক আনন্দ আলো সর্বদাই সম্ভাবনার গল্প বলতে চায়। সে কারনেই অতীতের কোনো ব্যর্থতাকে গুরুত্ব দিতে চায় না। আনন্দ আলো মনে করে গত বছর যা কিছু ছিল সম্ভাবনাময় তাই নিয়েই শুরু হোক আগামীর পথ চলা। অতীতের আয়নায় দেখা সাফল্যকে ঘিরে আসুন আগামীর সম্ভাবনাকে আরও জোরদার করি।